The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সিগারেট কিনতে গিয়ে ৭ কোটি টাকার হাতঘড়ি খোয়া গেলো!

সিগারেট কেনার জন্য গভীর রাতে হোটেল হতে বের হন ওই ধনী জাপানি পর্যটক

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্যারিসে বেড়াতে এসেছেন ৩০ বছর বয়সী ধনী এক জাপানি পর্যটক। তিনি উঠেছেন প্যারিসের আর্ক দে ট্রায়ামফির সামনে নেপোলিয়ন নামের একটি পাঁচ তারকা হোটেলে। কিন্তু সিগারেট কিনতে গিয়ে ৭ কোটি টাকার হাতঘড়ি খোয়া গেলো তার!

সিগারেট কিনতে গিয়ে ৭ কোটি টাকার হাতঘড়ি খোয়া গেলো! 1

সংবাদ মাধ্যমের এক খবরে জানা যায়, সিগারেট কেনার জন্য গভীর রাতে হোটেল হতে বের হন ওই ধনী জাপানি পর্যটক। এআরসি দি ট্রিওম্পফি মনুম্যান্টের কাছে গিয়ে এক ব্যক্তিকে সিগারেট দোকান কোথায় জিজ্ঞেসও করেন। সেই সময় তার হাতে ছিল হীরার তৈরি বিরল একটি দামি ঘড়ি। এর কয়েক মিনিটে মধ্যে ছিনতাইয়ের কবলে পড়ে ৭ লাখ ৭০ হাজার ইউরো মূল্যের রিচার্ড মিলের বিরল ও মূল্যবান ঘড়িটি ছিনতাই হয়। ওই সময় তার হাত থেকে টান দিয়ে ঘড়ি ছিনতাই করে পালিয়ে যায় এক দুষ্কৃতিকারী।

জানা গেছে, ওই হীরার তৈরি বিরল ঘড়িটি ট্যুরবিলন ডায়মন্ড টুইস্টার নামে পরিচিত। যার বাজার মূল্য ৮ লাখ ৪০ ডলার (৭ কোটি ১১ লাখ ২৮ হাজার ২৬০ টাকার মতো)।

মিল-এর তৈরি এই টাইমপিসগুলোর দাম বিশ্ববাজারে অনেক বেশি। এর মেকানিজমও একেবারেই অন্যরকম। প্যারিসের চোরের চোখও সেই পার্থক্য এড়িয়ে যায়নি।

এই বিষয়ে প্যারিসের পুলিশ বলছে যে, জাপানি ওই ব্যক্তি রাস্তায় বেরিয়ে আসতেই এক চোর তার হাত চেপে ধরে মূল্যবান ওই ঘড়িটি টান দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে গেছে। তবে এই ঘটনায় ওই পর্যটকের কোনো ধরনের ক্ষতি হয়নি বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ।

হীরা দিয়ে মোড়ানো ঘড়িটি চুরি হওয়ার পর ফরাসি কর্তৃপক্ষ চোরকে ধরতে তদন্ত কমিটিও গঠন করেছে। তবে জাপানি ওই ব্যক্তি নিজেকে একটু বেশিই ভাগ্যবান মনে করতে পারেন বলে বলছে দেশটির পুলিশ।

কারণ হিসেবে পুলিশ বলছে যে, ঘড়িটি ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় একটি মোবাইল ফোন ফেলে রেখে গেছে ওই চোর। পুলিশ এই ফোনের সূত্র ধরেই তদন্ত করছে। সংঘবদ্ধ চক্র এই ধরনের চুরির ঘটনার সঙ্গে জড়িত কিনা সেটি জানতে গুরুত্বের সঙ্গে তদন্তটি এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে প্যারিস পুলিশ।

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে চুরি, চিনতাই সাম্প্রতিক সময়ে অত্যধিক আকারে বেড়েছে। প্যারিসের গার দ্যু নর্থ, লা চ্যাপেল, অভারভিলিয়ে, সারসেল, সেইন্ট দে নিস, চ্যাম্প এলিসি অ্যাভিনিউসহ গুরুত্বপূর্ণ ট্যুরিস্ট স্পটগুলোতে প্রায়ই প্রবাসী বাংলাদেশী ও পর্যটকেরা ছিনতাই, চুরি ও অনাকাঙ্ক্ষিত আক্রমণের শিকার হতে হচ্ছে।

অনেক সময় ট্যুরিস্ট স্পটগুলোতে সংঘবদ্ধ চোররা ধনী পর্যটকদের টার্গেট করে ফেলে। চলতি বছরের জানুয়ারি হতে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত প্যারিস এবং এর পার্শ্ববর্তী এলাকায় এই ধরনের ৭১টি চুরির ঘটনা ঘটেছে। যার মধ্যে রিচার্ড মিলে ব্র্যান্ডের অন্তত ৪টি ঘড়ি চুরির ঘটনাও রয়েছে। যার প্রত্যেকটির মূল্য এক লাখ ইউরোর উপরে হবে।

ইতিপূর্বে ২০১৪ সালে প্রিন্স আবদুল আজিজ বিন ফাহাদ (৪১) প্যারিসের উত্তরাঞ্চলীয় পোর্তে দে লা চ্যাপেলে গাড়িবহরে হামলা চালিয়ে ২ লাখ পাউন্ড (ব্রিটিশ) বা ২ কোটি ৫০ হাজার টাকা লুট করেছিলো দৃর্বৃত্তরা।

উল্লেখ্য, প্যারিসের সংবাদপত্রে এই ঘটনার বর্ণনা দিয়ে গত কয়েক মাসে প্রায় ১২টি মূল্যবান ঘড়ি চুরির কথা উল্লেখ করেছে।

Loading...