এবার কথা বলবে সিগারেটের প্যাকেট!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ সিগারেটের প্যাকেট এবার কথা বলবে। হয়তো এ কথা শুনে আশ্চর্য হচ্ছেন। কিন্তু না ঘটনাটি আসলেও সত্যি।

Smoking

অনলাইন সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, এখন থেকে ধূমপান করে চোখ লাল হয়ে যাওয়া ধূমপায়ীর সাথে কথা বলবে সিগারেটের টকিং প্যাকেট। ধূমপানের মত স্বাস্থ্যের জন্য খুব ক্ষতিকর অভ্যাস থেকে ফিরিয়ে আনতেই এমন উদ্যোগ। সিগারেটের প্যাকেটের ভেতরে বিশেষ ধরনের ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস যুক্ত থাকবে। তাতে মেসেজ এবং মোবাইল নম্বর ধারণ করার মতো একটি মেমোরিও থাকবে। যা থেকে তামাক বা সিগারেট সেবনকারীকে সতর্কতামূলক এবং উপেদশমূলক বার্তা দেয়া হবে।

প্যাকেটগুলোতে ভয়েস রেকর্ডার ডিভাইস যুক্ত করা। তার সাথে একটি প্লেব্যাক বা রেকর্ড বাজার জন্য ইলেক্ট্রনিক ইউনিটও আছে। যাতে সিগারেটের টকিং প্যাকেটটি খোলামাত্র মেসেজ বেজে ওঠে। ইউরোপের কয়েকজন গবেষক জানিয়েছেন, এটি এমন একটি কৌশল যা তামাক কোম্পানিগুলোর বিরুদ্ধে কাজ করবে। বিশেষত ধূমপানের মত খারাপ অভ্যাস থেকে সরে আসতে উৎসাহিত করবে এই উদ্যোগ।

Cigarette pack open on table, close-up   Original Filename: 200551047-001.jpg

যুক্তরাজ্যের স্টারলিং ইউনিভার্সিটির গবেষকরা বেশ কয়েজন তরুণ-তরুণী এবং বয়স্ক নারী ও পুরুষের উপর ডিভাইসটির ব্যবহারিক পরীক্ষা চালিয়েছেন। এর জন্য ওই বিশ্ব বিদ্যালয়ের সেন্টার ফর টোবাকো কন্ট্রোল রিসার্চ-এর গবেষকরা পরীক্ষামূলকভাবে দুটি টকিং প্যাকেট তৈরি করেছেন। এবং দুটিতেই ভিন্ন ভিন্ন মেসেজও রেকর্ড করা আছে। এরপর একটি টকিং প্যাকেট ধূমপানকারীদের ফোন নম্বর দেয়। যাতে এটি ধূমপান থেকে সরে আসতে উপদেশমূলক বার্তা দেয়।

আরেকটি প্যাকেট ধূমপান শরীরের শক্তি কমিয়ে দেয় এমন সতর্ক বার্তা দেয় ধূমপানকারীদের। প্রাথমিকভাবে ডিভাইসটি পরীক্ষা করা হয়েছিল ১৬ থেকে ২৪ বছরের কয়েকজন নারীর উপর। তাদের মধ্যে অনেকেই মারাত্মক ধূমপায়ী ছিলেন। এ ধরণের প্যাকেট ব্যবহার সম্পর্কে নানারকম প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন ধূমপানকারীরা। বিশেষ করে ১৬ থেকে ১৭ বছরের তরুণীরা জানিয়েছেন, এটি তাদের ধূমপান থেকে সরে আসতে ভাবায়।

তবে আবার অনেকে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন। তারা বলছেন, এটি তাদেরকে সরে আসতে সাহায্য করতে পারে। আবার এটি ব্যবহারে তাদের মধ্যে অনাগ্রহও তৈরি করতে পারে। কারণ এতে তারা বিরক্ত হয়েছেন।

একজন নারী তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘কোন কোন লোকজন হয়ত বলতে পারে, প্যাকেটটি আমার দরকার। কারণ প্যাকেটগুলো আমার ভেতরে আঘাত করছে।’
গবেষক ক্রফোর্ড মুডি বলেন, ‘ভবিষ্যতে এটাও সম্ভব, আমরা হয়ত তখন দেখব এই টকিং প্যাকেটগুলো গান গাইছে, কিংবা কথা বলছে। সেকারণে আমাদের উদ্দেশ্য পূরণে এগুলোর ব্যবহার হবে এটাই আমরা দেখতে চেয়েছি।’

সিগারেটের এ টকিং প্যাকেট ধূমপানকারীদের ধূমপান থেকে সরে আসতে উৎসাহিত করার জন্য তৈরি করা হয়েছে বলা হচ্ছে। কিন্তু এ কথায় অনেকেই সায় দিতে নারাজ।
স্কটল্যান্ডের একশন অন স্মোকিং এন্ড হেল্থের প্রধান নির্বাহী শেইলা ডুফি এমনটিই মনে করেন। তিনি জানান, এটি তৈরির পেছনে সৃজনশীল উপায়ে সিগারেট কিভাবে আরো বেশি বিক্রি করা যায় সেটিই চেষ্টা করা হয়েছে।

শেইলা বলেন, ‘তামাক শিল্প কারখানাগুলো বড়ধরনের চুক্তি করে সৃজনশীল, দক্ষ ও বিশেষজ্ঞদের কিনে নিয়েছে। এতে তাদের উদ্দেশ্য হল, নতুন ভোক্তা শ্রেণি এবং প্রধানত তরুণ জনগণগোষ্ঠীর কাছে তাদের এই ভয়ঙ্কর এবং আসক্তিকারী পণ্য বাজার সম্প্রসারণ করা।’
সূত্র : মিরর।

Advertisements
Loading...