The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

২০২০ এর প্রথম ভারতীয় স্যাটেলাইট মহাকাশে পৌঁছেছে

সেই রকেটেই মহাকাশে পৌঁছালো ভারতের কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট Gsat-30

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ নতুন বছরের শুরুতেই মহাকাশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনে সাফল্য পেয়েছে ভারত। গত শুক্রবার ভোররাতে ২০২০ সালের প্রথম স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছে ভারত। সেই রকেটেই মহাকাশে পৌঁছালো ভারতের কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট Gsat-30. ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির রকেটে পাঠানো হয় সেই স্যাটেলাইটটি। হেভি লিফট লঞ্চ ভেইকল Ariane-5 (VA 251)-এ পাঠানো হয়েছে এই স্যাটেলাইটটি।

২০২০ এর প্রথম ভারতীয় স্যাটেলাইট মহাকাশে পৌঁছেছে 1

নতুন বছরের শুরুতেই মহাকাশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনে সাফল্য পেয়েছে ভারত। গত শুক্রবার ভোররাতে ২০২০ সালের প্রথম স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছে ভারত। সেই রকেটেই মহাকাশে পৌঁছালো ভারতের কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট Gsat-30. ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির রকেটে পাঠানো হয় সেই স্যাটেলাইটটি। হেভি লিফট লঞ্চ ভেইকল Ariane-5 (VA 251)-এ পাঠানো হয়েছে এই স্যাটেলাইটটি।

লঞ্চ হওয়ার ৩৮ মিনিট পর কক্ষপথে স্থাপিত হয় ওই স্যাটেলাইটটি। ৩,৩৫৭ কেজির ওই স্যাটেলাইটটি Insat-4a স্পেসক্রাফটের পরিবর্তে ব্যবহৃত হবে বলে জানা গেছে। ভারতের দ্বীপসহ বিভিন্ন জায়গায় কমিউনিকেশন বাড়াতে কাজ করবে এই স্যাটেলাইটটি।

এই স্যাটেলাইটের আয়ু হবে ১৫ বছর। গ্রামাঞ্চলে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নতির কাজে এই স্যাটেলাইটটি বিশেষ কার্যকর হবে বলে জানানো হয়েছে। ফ্রান্সের গিয়ানা স্পেস সেন্টার হতে ভোররাতে ওড়ে এই স্যাটেলাইটটি। এর থেকে DTH সার্ভিস এবং ডিজিটাল নিউজ পরিসেবা পাওয়া যাবে বলেও জানা গেছে।

এক বছর পূর্বে ভারতের কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট Gsat-31 লঞ্চ করে এই ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি। দীর্ঘদিন ধরেই মহাকাশ গবেষণার ক্ষেত্রে যৌথভাবে কাজ করে আসছে ভারত এবং ফ্রান্স।

এ মাসের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে গগনযানের জন্য মহাকাশচারীদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার কথা রয়েছে। ৪ জন মহাকাশচারীকে ইতিমধ্যেই মনোনীত করা হয়েছে বলেও জানানো হয়েছে ইসরো প্রধান কে শিবানের পক্ষ হতে।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা যায়, গগনযানই হলো ভারতের প্রথম মানব মহাকাশযান অভিযান। যার জন্য নিশ্চিত করা হয়েছে ৪ মহাকাশচারীকে। জানানো হয়, গগনযানের টেস্ট ফ্লাইট চলতি বছরই পাঠানো হবে মহাকাশে।

সংবাদ মাধ্যমকে শিবান জানিয়েছেন, এই মাসের তৃতীয় সপ্তাহেই রাশিয়াতে শুরু হবে প্রশিক্ষণ। তাছাড়াও চন্দ্রায়ন ৩ ও গগনযানের জন্য এই প্রশিক্ষণ চলবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। চাঁদের মাটিতে মুখ থুবড়ে পরা চন্দ্রযান ২ কে চিহ্নিত করার জন্য চেন্নাইয়ের প্রযুক্তিবিদকে ধন্যবাদ দিয়েছেন তিনি। কে শিবান জানিয়েছেন যে, তারা বুঝতে পেরেছেন কোথায় রয়েছে চন্দ্রযান ২। এছাড়াও বিক্রম ল্যান্ডারে কি ধরনের ভুল ছিল তাও তারা বুঝতে পেরেছেন। কি জন্য এমনটা হয়েছে তিনি তাও জানিয়েছেন।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...