The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কিম্ভূত কিমাকার বানিয়ে ফেলা দুই কান কাটা এক ব্যক্তির গল্প!

পছন্দমতো চেহারা পেতে কেও এতোদূর যেতে পারেন, এই গল্প না শুনলে হয়তো বিশ্বাসই করতে পারবেন না

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্লাস্টিক সার্জারি ও ট্যাটুর মাধ্যমে নিজেকে কিম্ভূত কিমাকার বানিয়ে এক অন্যভাবে সবার সামনে নিজেকে তুলে ধরেছেন জার্মানির জনৈক বাসিন্দা।

কিম্ভূত কিমাকার বানিয়ে ফেলা দুই কান কাটা এক ব্যক্তির গল্প! 1

পছন্দমতো চেহারা পেতে কেও এতোদূর যেতে পারেন, এই গল্প না শুনলে হয়তো বিশ্বাসই করতে পারবেন না। গত বছর হঠাত্‍ই স্যান্ড্রো নামে জার্মানির ওই বাসিন্দার মাথায় চেপেছিল যে, তার মুখটাকে একেবারে মানুষের মাথার খুলির মতো করে তুলতে হবে। তাই ২০১৯ সালে তিনি দুই কান কেটে ফেলেন। জার্মানির ফিনস্টারওয়াল্ডের এই বাসিন্দার কপাল ও হাতের পেছনে রয়েছে ইমপ্লান্ট ও তার মুখও ট্যাটুতে ঢাকা। এরপর ৩৯ বছরের স্যান্ড্রো নামে ওই ব্যক্তি ‘খুলি’ সদৃশ মুখ করে তোলার কাজকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে নাকের ডগা কেটে ফেলবেন! চোখে উল্কি আঁকাবেন বলেই এমন পরিকল্পনা করেছেন!

তার এই উদ্ভট শারীরিক পরিবর্তনের আগ্রহ প্রথম জাগে ২০০৭ সালে। সেই সময় তিনি টিভিতে এক ব্যক্তিকে দেখেছিলেন যার মাথায় কাটা ইমপ্লান্ট করা হয়। এরপর থেকে এ পর্যন্ত চেহারা পরিবর্তনের জন্য তিনি ৬ হাজার ইউরোরও বেশি খরচ করে ফেলেছেন।

এমন কাণ্ডে কর্মজীবন ও প্রেমজীবনের ব্যাপক ক্ষতিও হয়েছে তার। এই কারণে প্রেমিকা তাকে ছেড়ে গেছে। বন্ধুবান্ধব, পরিবার-পরিজন মনে করেন তিনি প্রকৃতপক্ষে মানসিকভাবে অসুস্থ, যাকে বলে পাগল। বিভিন্ন সংস্থা তার অদ্ভূত চেহারার জন্যই কাজে নিতে চাননি। তবে এতোকিছুর পরও তিনি নিজের ইচ্ছেয় রয়েছেন অদম্য। স্যান্ড্রো জানিয়েছেন, লোকে তাকে দেখে কী বললো বা ভাবলো, তাই নিয়ে আদৌ কখনও মাথা ঘামান না তিনি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...