The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ইতিহাস বদলে যাবে: এবার আসছে ডানাওয়ালা জাহাজ!

সম্প্রতি এক জাহাজের নকশা প্রণয়নকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ডানাওয়ালা জাহাজ নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ পৃথিবীর সকল আবিষ্কার মানুষের দ্বারাই হয়েছে। আর তাই কালে কালে বদলে গেছে বিশ্বের ইতিহাস। এবার এমনই এক ডানাওয়ালা জাহাজ আবিষ্কার করে ইতিহাস বদলে দিতে চলেছেন গবেষকরা!

ইতিহাস বদলে যাবে: এবার আসছে ডানাওয়ালা জাহাজ! 1

এবার এমনই এক আবিষ্কারের কথা ভাবছেন সুইডেনের এক জাহাজ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান। তারা সম্প্রতি এক জাহাজের নকশা প্রণয়নকারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হয়ে ডানাওয়ালা জাহাজ নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন।

দ্য ড্রাইভেন’র এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৯০ শতাংশ পর্যন্ত কার্বন নিঃসরণ কমাতে সক্ষম হবে নতুন এই জাহাজটি। যা জাহাজের নকশা প্রণয়নকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালেনিয়াস মেরিন’র সঙ্গে যুক্ত হয়ে নির্মাণ করা হবে। এই জাহাজের থাকবে ৪টি বিশাল আকৃতির ডানা। এই জাহাজটি আগামী ২০২৪ সাল হতে আটলান্টিক মহাসাগর দিয়ে চলাচল শুরু হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এই জাহাজে বহন করা যাবে একসঙ্গে ৬-৭ হাজার গাড়ি!

ওই প্রতিবেদনটিতে আরও জানানো হয়, ইতিমধ্যেই প্রাথমিকভাবে জাহাজটির জন্য ‘ওশেনবার্ড’ ও ‘দ্য উইন্ড পাওয়ার কার ক্যারিয়ার’ কিংবা ‘ডব্লিউপিসিসি’ নামও নির্বাচিত হয়েছে। এই নকশাটি জাহাজের জন্য নতুন যুগের সূচনা করতে চলেছে বলে দাবি করেছে ওয়ালেনিয়াস মেরিন।

ফ্রেইনার জাহাজের তুলনায় নতুন আবিষ্কৃত এই জাহাজটি চলাচলে অনেক কম জীবাশ্ম জ্বালানি খরচ হবে। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ৪৫০টি বড় যানবাহন বহনকারী জাহাজ প্রতিদিন প্রায় ৪০ টন জীবাশ্ম জ্বালানি ব্যবহার করে থাকে।

এ বছরের শুরুর দিকে অবশ্য সাগরে ‘ওশেনবার্ড’র ছোট্ট একটি মডেল সফলভাবে চলাচলও করেছে। সবকিছু ঠিক-ঠাক থাকলে আগামী ২০২৪ সালেই সাগরে নামবে নতুন প্রযুক্তির পূর্ণাঙ্গ এই নতুন জাহাজটি। এর দৈর্ঘ্য প্রায় ৬৫৬ ফুট ও প্রস্থ ১৩১ ফুট। এর পূর্ণ উচ্চতা সুবিশাল প্রসারিত পালসহ হবে ৩২৮ ফুটের মতো। তাই নির্দিধায় বলা যায়, এই জাহাজটি হতে চলেছে বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু জাহাজ!

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...