The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কার্বনকে হীরায় রূপান্তরে অভাবনীয় সফলতা পেলেন বিজ্ঞানীরা!

সম্প্রতি এমন সাফল্যের খবর দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার একদল বৈজ্ঞানিক

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মিনিটের মধ্যে কক্ষ তাপমাত্রাতেই কার্বনকে হীরায় রূপান্তরে সক্ষম হলেন গবেষকরা। কার্বনের উপর প্রবল চাপ প্রয়োগ করে হীরা তৈরিতে এই সাফল্য পাওয়া যায়।

কার্বনকে হীরায় রূপান্তরে অভাবনীয় সফলতা পেলেন বিজ্ঞানীরা! 1

আর এটি করার জন্য প্রয়োজন হয়নি কোনও তাপ। সম্প্রতি এমন সাফল্যের খবর দিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার একদল বৈজ্ঞানিক। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে যে, অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি এবং আরএমআইটি ইউনিভার্সিটি অব মেলবোর্নের গবেষকদের সমন্বয়ে গঠিত এই দলটি সিনথেটিক হীরা তৈরির সম্পূর্ণ নতুন এই পদ্ধতিটি আবিষ্কার করেছেন। পদ্ধতিটিতে কার্বন গুড়োর উপর ৬৪০টি আফ্রিকান হাতির ওজনের সমান চাপ প্রয়োগ করার মাধ্যমে কার্বন গুড়া হীরায় পরিণত হয়।নতুন এই পদ্ধতিতে উৎপাদিত হীরা গহনা এবং শিল্পক্ষেত্রে বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যাবে বলেও জানিয়েছে গবেষকরা।

সিনথেটিক ডায়মন্ডের ধারনা এবারই প্রথম নয়। ১৯৪০ সাল হতেই বিভিন্ন পদ্ধতিতে সিনথেটিক ডায়মন্ড তৈরি করা হয়ে আসছে। অতি উচ্চ তাপমাত্রায় দীর্ঘ সময় ধরে কার্বনকে পুড়িয়ে কৃত্রিম উপায়ে এই হীরা তৈরি করা হতো। নতুন এই পদ্ধতিতে তাপশক্তির ব্যবহার একেবারেই নেই বললেই চলে। সেই সঙ্গে সময়ও কমে এসেছে কয়েক ঘণ্টা থেকে কয়েক মিনিটের মধ্যে। তাই ধারনা করা হচ্ছে যে, সামনের দিনগুলোতে সিনথেটিক হীরার দাম আরও কমে আসতে পারে।

উল্লেখ্য যে, প্রাকৃতিকভাবে সাধারণত হীরা পাওয়া যায় ভূমি হতে ১৫০ কিলোমিটার গভীরে। শত কোটি বছর ধরে ভূ-গর্ভে হাজার ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় কার্বন পুড়ে হীরায় পরিণত হতো। সে কারণে প্রাকৃতিক হীরা দুর্লভ ও অনেক বেশি ব্যয়বহুল হয়ে থাকে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...