The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ষোলআনী সৈকত নান্দনিক এক সৌন্দর্য

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বেড়াতে যাওয়ার জন্য আপনি হয়তো হাপিত্যেশ করছেন। বেড়ানোর জন্য একটি সুন্দর নৈসর্গিক স্থান রয়েছে ঢাকার খুব কাছেই। আর সেটি হলো ষোলআনী সৈকত।

ষোলআনী সৈকত নান্দনিক এক সৌন্দর্য 1

ঢাকা থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে মুন্সিগঞ্জ জেলার গজারিয়া থানায় মেঘনা নদীর পাড় ঘেঁষা ষোলআনী প্রজেক্টটি বর্তমানে ষোলআনী সৈকত (Sholoani Saikat) নামেই পরিচিতি লাভ করেছে। এই স্থানটি আগে দৌলতপুর নামেই পরিচিত ছিল। নদী ভাঙ্গন রোধ করতে মেঘনা নদীর পাড়ে সিসি ব্লক দিয়ে বাধ নির্মাণের কারণে এই স্থানটির সৌন্দর্য আরও বৃদ্ধি পেয়েছে, যা প্রকৃতিপ্রেমীদের আকর্ষণ করে। ঢাকা হতে দূরত্ব কম হওয়ার কারণে বাইকারদের কাছে এই স্থানটি অতি অল্প সময়েই অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সমর্থ হয়েছে।

প্রায় ৫ কিলোমিটার দীর্ঘ ষোলআনী সৈকতের মনোরম পরিবেশে মেঘনা নদীর বুকে অসংখ্য নৌযানের বিচরণ, অসীম নীল আকাশে সাদা মেঘে যেনো ভেসে বেড়ানো, অপূর্ব সূর্যাস্তের সৌন্দর্য বা ভরা জোছনার মোহনীয় রূপ উপভোগ করতে পারবেন আপনি। এছাড়াও এখানে নৌকা ভাড়া করে মেঘনার বুকে ভেসে বেড়ানোর এক সুবর্ণ সুযোগও রয়েছে।

যাবেন কিভাবে

ষোলআনী সৈকতে যেতে চাইলে রাজধানী ঢাকার গুলিস্তান হতে গজারিয়া পরিবহন, দাউদকান্দি বা গৌরিপুরগামী বিআরটিসি বাসে ভবেরচর বাস স্ট্যান্ডে আসতে হবে। ভবেরচর বাস স্ট্যান্ড হতে সিএনজিতে চড়ে প্রথমে রসুলপুর নেমে অন্য একটি সিএনজিতে ষোলআনী স্ট্যান্ড পৌঁছে পায়ে হাটা দূরত্বে অবস্থিত ষোলআনী সৈকতে যাওয়া যাবে। এছাড়াও চাইলেই ভবেরচর বাস স্ট্যান্ড হতে সিএনজি রিজার্ভ নিয়েও সরাসরি ষোলআনী সৈকতে যাওয়া যাবে।

রাজধানী ঢাকার গুলিস্তান হতে ভবেরচর পর্যন্ত গজারিয়া পরিবহনের ভাড়া জনপ্রতি ৭০ টাকা ও বিআরটিসি এসি বাসের ভাড়া ১১০ টাকা করে। ভবেরচর হতে রসুলপুর পর্যন্ত লোকাল সিএনজি ভাড়া জনপ্রতি ২০ টাকার মতো। রসুলপুর হতে ষোলআনী পর্যন্ত লোকাল সিএনজি ভাড়া জনপ্রতি নিবে ২০ টাকা। ভবেরচর হতে ষোলআনী সৈকত পর্যন্ত সিএনজি রিজার্ভ ভাড়া হলো ২০০ টাকার মতো। তথ্যসূত্র : vromonguide.com

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের

Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...