The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

কক্সবাজারের ‘অচেনা দার্জিলিং’ খ্যাত নিভৃতে নিসর্গ পার্ক

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সত্যিই এটি নিভৃতে নিসর্গই! এমন একটি সুন্দরতম স্থানে আপনি গেলে নিজেও অভিভূত না হয়ে পারবেন না। কক্সবাজারের ‘অচেনা দার্জিলিং’ খ্যাত নিভৃতে নিসর্গ পার্কের কথায় আজ বলা হবে।

কক্সবাজারের ‘অচেনা দার্জিলিং’ খ্যাত নিভৃতে নিসর্গ পার্ক 1

একইসঙ্গে নীল জলরাশি, সবুজ পাহাড় ও সাদা মেঘ মালার মিলনমেলায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চাইলে আপনাকে ঘুরে আসতে হবে কক্সবাজারের এই ‘অচেনা দার্জিলিং’ এ। নিভৃতে নিসর্গ পার্ক কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলায় সুরাজপুর মানিকপুর ইউনিয়নস্থ মাতামুহুরি নদীর একেবারে কোলঘেঁষে অবস্থিত। কক্সবাজার হতে এই পার্কের দূরত্ব প্রায় ৫৫ কিলোমিটার। আর চকরিয়া হতে প্রায় ১২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। এর দক্ষিণে অবস্থিত পার্বত্য বান্দরবানের লামা উপজেলা।

সত্যিই এক নৈসর্গ যাকে বলে। দুপাশে পাহাড়ের মধ্যদিয়ে চলে গেছে মাতামুহুরী নদী। পাহাড় এবং নদীর অপরূপ এক সান্নিধ্য। নদীতে নৌকা ভ্রমণে পাহাড় নদীর মিতালি দেখার সঙ্গে সঙ্গে দেখা যায় বিভিন্ন বন্য প্রাণী, পাহাড় বেয়ে অঝোর ধারায় ঝরে পড়া ঝরনা, নানা পাখির কলরব মনকে করে পুলকিত। নীল জলরাশি দিয়ে যেতে যেতে দেখা যাবে একাধিক সুউচ্চ সাদা পাথরের পাহাড়।

এতোদিন সবুজ পাহাড় ঘেরা দৃষ্টিনন্দন এই জায়গাটি পর্যটকদের দৃষ্টিসীমার বাইরে ছিল। অচেনা এই পর্যটন স্পটের নামকরণ জেলা প্রশাসকের দেওয়া ‘নিভৃতে নিসর্গ পার্ক’ হয়েছে মাত্র অল্পদিন আগে। সকাল ৭টা হতে বিকেল ৫টা পর্যন্ত নদীভ্রমণ সবার জন্য উন্মুক্ত রয়েছে। পার্কটি নতুন হওয়ায় এখনও তেমন গুছানো পর্যটন বান্ধব পরিবেশ যদিও তৈরি হয়নি। তবে পর্যটনের উন্নয়নে কাজ চলছে বেশ জোরে সোরেই। প্রতিদিনই হাজারও পর্যটক ভিড় করে এই পার্কটিতে।

রাজধানী ঢাকা কিংবা অন্য যে জায়গা থেকে এখানে আসতে হলে কক্সবাজারগামী গাড়িতে করে আসতে হবে। তারপর চকরিয়া বাস স্ট্যান্ডে নেমে যেতে হবে। চকরিয়া সিটি সেন্টারের সামনে থেকে সিএনজি কিংবা জীপ রিসার্ভ করে সরাসরি এই পার্কে আপনি যেতে পারবেন। এই পদ্ধতিই হলো সবচেয়ে সহজ উপায়। সিএনজি রিসার্ভ নিলে ভাড়া পড়বে ২০০ টাকা। এছাড়াও লোকাল ওয়েতে মানিকপুর হয়ে ৪০ টাকা ভাড়াতে যাওয়া যাবে এই পার্কে।

আর কক্সবাজার থেকে যেতে চাইলে চকরিয়া বাস স্ট্যান্ড হয়ে উপরের পথে যেতে পারবেন বা কক্সবাজার থেকে চকরিয়া যাবার পথে ফাঁসিয়াখালী স্টেশন হতে বান্দরবানের লামা সড়ক ধরে ইয়াংছাবাজারে যেতে হবে। তারপর ইয়াংছাবাজার হতে অটোরিকশা বা ব্যাটারিচালিত ইজিবাইক নিয়ে আড়াই কিলোমিটার গেলেই পাবেন ‘নিভৃতে নিসর্গ’। কক্সবাজার হতে আপনি চাইলে প্রাইভেট কারেও যাতায়াত করতে পারেন। এছাড়াও চাইলে আগে এই পার্ক ঘুরে তারপরও কক্সবাজার যেতে পারবেন।

রাত্রী যাপনের ক্ষেত্রে পার্কের আশেপাশে থাকার কোনো জায়গা অর্থাৎ থাকার হোটেল নেই। রাতে থাকতে চাইলে আপনাকে চকরিয়া শহরে থাকতে হবে। সেখানে মোটামুটি মানের কিছু হোটেল রয়েছে। আপনার পরিকল্পনা যদি থাকে কক্সবাজার যাওয়ার সেক্ষেত্রে আপনাকে চকরিয়া হতে দেড় ঘন্টা পথ দূরত্বের কক্সবাজার চলে যেতে পারেন।

এই পার্কে খাওয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই, তবে হালকা নাস্তা খাবার জন্যে দোকান রয়েছে। মানিকপুর বাজারে খাবারের জন্যে দেশী হোটেল রয়েছে। এছাড়া চকরিয়া বাজারে কয়েকটি মোটামুটি মানের খাবার হোটেলও রয়েছে। তাই আপনাকে অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নিতে হবে। তবে শেষ কথা হলো আপনি নির্দিধায় চলে যেতে পারেন ‘অচেনা দার্জিলিং’ খ্যাত নিভৃতে নিসর্গ পার্ক এ।

তথ্যসূত্র: https://vromonguide.com

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...