The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

১৯৭২ সাল যে কারণে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বছর

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ যদি প্রশ্ন করা যায়, পৃথিবীর ইতিহাসে দীর্ঘতম বছর কোনটি? তাহলে আপনি অবশ্যই ঘাবড়ে যাবেন। কারণ এর উত্তর আপনার জানা নেই। তবে এবার থেকে সঠিক জবাব দিতে পারবেন। সেটি হলো ১৯৭২ সাল পৃথিবীর ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বছর।

১৯৭২ সাল যে কারণে ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বছর 1

হয়তো আপনি ভাবছেন লিপ ইয়ারের বছর হতে পারে। লিপ ইয়ার তো আর নির্দিষ্ট কোনও একটি বছরে আসেনি। প্রতি চার বছর পর পর লিপ ইয়ার আসে। তাই দীর্ঘতম বছরের উত্তর নিশ্চয়ই লিপ ইয়ার যুক্ত কোনও বছর হবে না।

আসলে এর সঠিক উত্তরই হলো ১৯৭২ সাল। লিপ ইয়ার হওয়ার পাশাপাশি আরও একটি কারণে এটিই হলো এখন পর্যন্ত দীর্ঘতম বছর। বছরের গড় সময়ের তুলনায় দু’সেকেন্ড বড় ছিল এই সালটি।

১৯৭২ সালে দু’সেকেন্ড অতিরিক্ত সময় থাকার কারণ হলো লিপ সেকেন্ড। তাহলে কীভাবে দীর্ঘতম বছর হলো ১৯৭২ সাল?

পৃথিবীর নিজের অক্ষের চারপাশে ঘুরতে সময় লাগে প্রায় ২৪ ঘণ্টার মতো। তার ওপর ভিত্তি করেই আন্তর্জাতিক সময় নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। ২৪ ঘণ্টায় ৮৬ হাজার চারশ’ সেকেন্ড হয়। আর সূর্যের চারপাশে ঘুরতে ৩৬৫ দিন সময় লেগে যায়।

এই ঘোরার ওপর নির্ভর করেই হয় দিনরাত, জোয়ার-ভাটা ও ঋতু পরিবর্তনও হয়। তবে পৃথিবীর গতি সব সময়ই একই রকম থাকে না। অনেকগুলো প্রাকৃতিক বিষয়ের ওপর পৃথিবীর এই গতি নির্ভর করে। কখনও কখনও পৃথিবীর গতি সামান্য বেড়ে যায় আবার কখনও সামান্য কমেও যেতে পারে। সে কারণেই জোয়ার-ভাটা, অগ্ন্যুৎপাতের মতো ঘটনা ঘটে৷

১৯৭২ সাল হতে লিপ সেকেন্ড যোগ করা শুরু হয়। ৩০ জুন ও ৩১ ডিসেম্বর এই দুই দিনে লিপ সেকেন্ড যোগ করা হয়। এই বাড়তি এক সেকেন্ডকেই বলা হয় লিপ সেকেন্ড।

আন্তর্জাতিক আর্থ রোটেশন অ্যান্ড রেফারেন্স সিস্টেমস সার্ভিস নির্ধারণ করে কোন বছর লিপ সেকেন্ড ঘড়িতে যোগ করা হবে সেটি নির্ধারণ করে। তারা অনেক আগে থেকেই ঘোষণা করে কোন বছরে এই লিপ সেকেন্ড যোগ করা হবে।

১৯৭২ সাল হতে ২০২১ সাল পর্যন্ত মোট ২৭ বার লিপ সেকেন্ড যোগ হয়েছে। যেমন: ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত ৩১ ডিসেম্বরে লিপ সেকেন্ড যোগ করা হয়েছে৷ তবে ১৯৮০ সালে কোনো লিপ সেকেন্ডই যোগ করা হয়নি। তারপর ১৯৮১ সাল হতে ১৯৮৩ সাল এই দুই বছর ৩০ জুন যোগ করা হয়।

আবার ১৯৮০ সালের মতো ১৯৮৪ সালেও কোনো রকম লিপ সেকেন্ড যোগ করা হয়নি। সর্বশেষ ২০১৬ সালে যোগ করা হয়েছিল। ১৯৮৪ সাল হতে ২০১৬ সালের মধ্যে বেশ কয়েকবারই লিপ সেকেন্ড যোগ করা হয়েছিল। ২০১৬ সালের পরে আর কোনো লিপ সেকেন্ডই যোগ করা হয়নি।

এ বছরের ৩১ ডিসেম্বর আন্তর্জাতিক আর্থ রোটেশন অ্যান্ড রেফারেন্স সিস্টেমস সার্ভিস প্রয়োজন মনে করলে লিপ সেকেন্ড যোগ করার কথা আগে হতেই ঘোষণা করতে পারে।

তবে বহু আন্তর্জাতিক সংস্থা লিপ সেকেন্ড বাদ দেওয়ার প্রস্তাবও এনেছে। কারণ মিনিটে এক সেকেন্ড যোগ হওয়ার কারণে বহু কম্পিউটার অতিরিক্ত এই সময় নিয়ন্ত্রণে আনতে পারে না। যে কারণে সমস্যায় পড়তে হয় বহু সফটওয়্যারকে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...