The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ব্যতিক্রমি এক বরফের ইগলু ক্যাফে!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতের কাশ্মীরে এই প্রথম ও এশিয়ার সবচেয়ে বৃহৎ ইগলু ক্যাফে তৈরি হলো। এমনিতেই পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হলো এই ভূস্বর্গ কাশ্মীর।

ব্যতিক্রমি এক বরফের ইগলু ক্যাফে! 1

শীত থেকে গ্রীষ্ম সব সময়ই পর্যটকদের হাতছানি দেয় এই জায়গাটি। সেই গুলমার্গকে পর্যটকদের কাছে দিগুণ আসক্তি করতে ভারতে এই প্রথম তৈরি হলো একটি ইগলু ক্যাফে। যেখানে বরফের বাড়ির ভিতরে বসে আপনি ধোঁয়া ওঠা গরম চা কিংবা কফির কাপে চুমুক দিতে পারবেন!

ইগলু বাড়ি, ক্যাফে সাধারণত শীতপ্রধান দেশে হতে পারে যেমন ফিনল্যান্ড, সুইজারল্যান্ড, কানাডা ইত্যাদি দেশে দেখা যায়। ভারতের মতো গ্রীষ্মপ্রধান দেশেও এসব যেনো কল্পনাতীত। তবে সেই অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখালেন সেখানকার এক বিখ্যাত হোটেলের মালিক ওয়াসিম শাহ।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা যায়, কাশ্মীরের বারমুলা জেলার গুলমার্গে বহু সিনেমার শ্যুটিং হয়ে থাকে। শীতের সময় পর্যটকরা এখানে বেড়াতে গিয়ে স্কি খেলাতের পছন্দ করেন। এই ক্যাফের মালিকের ধারণা যে, এবারে তার পাশাপাশি এই ইগলু ক্যাফেতে বসে চা, কফি খেয়ে, আরও মজা পাবেন আগত পর্যটকরা। এই ক্যাফের মধ্যে থাকবে বরফের তৈরি চেয়ার, টেবিল। ভাবছেন বরফের তৈরি চেয়ারে কীভাবে আপনি বসবেন! তার জন্যেও পৃথক ব্যবস্থা থাকছে এখানে। ভেড়ার চামড়া, বা মোটা কম্বল পেতে এমন চেয়ারে বসলে, কোনও অসুবিধাই হবে না বলে জানিয়েছেন এর মালিক ওয়াসিম শাহ।

ক্যাফের মালিক ওয়াসিম শাহ আরও জানিয়েছেন, এমন ক্যাফে তৈরি করার শখ ছিলো তাঁর বহুদিনের। হঠাৎই বহুদিনের পরিকল্পনা মাত্র ১৫ দিনের মধ্যেই বাস্তবায়িত করেছেন তিনি। তবে গরমে এই ক্যাফে থাকবে না। শুধু শীতকালে বেড়াতে এলেই এই ক্যাফের দেখা মিলবে। ভিতরে ১৬ জনের বসার ব্যবস্থাও রেখেছেন তিনি। ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়ের বেগে ভাইরাল হয়েছে এই ইগলু ক্যাফের ছবিটি। আসছে শীতে এখানে বসে চা, কফি খাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন লক্ষ লক্ষ ভ্রমণপিপাসুরা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...