The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

নারায়ণগঞ্জ সেভেন মার্ডার: শামীম ওসমান ও নূর হোসেনের ফোনালাপ নিয়ে তোলপাড়

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ নারায়ণগঞ্জ সেভেন মার্ডার ঘটনার প্রধান আসামী নূর হোসেনের সাথে শামীম ওসমান ফোনালাপ নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। তবে নূর হোসেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলার কথা স্বীকার করেছেন শামীম ওসমান।

7-Murder-Narayanganj-০০৯

নারায়ণগঞ্জ সেভেন মার্ডার মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের সঙ্গে ফোনে কথা বলার কথা স্বীকার করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। তবে তিনি ওই ফোনে নূর হোসেনকে কেবলমাত্র আত্মসমর্পণ করতে বলেছেন- পালিয়ে যেতে বলেননি বলে দাবি করেছেন বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকারি দলের এ সাংসদ। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশানের নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলনে শামীম ওসমান এ দাবি করেন। খবর বাংলাদেশ নিউজ২৪

নূর হোসেন ও তাঁর যে ফোনালাপ সম্পর্কে নারায়ণগঞ্জের এই সাংসদ বলেছেন, ‘এটা একটি গোয়েন্দা সংস্থার রেকর্ড করা ফোনালাপ।’ কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘টেলিফোন ট্র্যাকিং সাংবাদিকেরা করেন না, এটা করেন গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা। আমার ফোনও সব সময় ট্র্যাকিং করা হয়। এটা জেনেও আমি ফোনে কথা বলি।’ শামীম ওসমান বলেন, প্রকাশিত ফোনালাপের পুরো কথা এখানে নেই। আংশিক রয়েছে, আংশিক নেই বলেও দাবি করেন শামীম ওসমান।

সংবাদ সম্মেলনে শামীম ওসমান বলেন, ‘আমার সঙ্গে ফোনে নূর হোসেন কথা বলছেন, গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা জানতেন তখন নূর হোসেন ধানমন্ডি-৪ নম্বর রোডে আছেন।’ এ সময় শামীম ওসমান পাল্টা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, ‘তাঁরা (গোয়েন্দা সংস্থার লোকেরা) যদি জানতেন নূর হোসেন ধানমন্ডিতে আছেন, তাহলে তাঁরা নূর হোসেনকে ধরলেন না কেনো?’

শামীম ওসমান-নূর হোসেনের ফোনালাপের অডিওতে কি ছিল?

নারায়ণগঞ্জের সেভেন মার্ডার মামলার প্রধান আসামী নূর হোসেনকে ভারতে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছেন সরকার দলীয় সাংসদ শামীম ওসমান। নূর হোসেনের সঙ্গে শামীম ওসমানের ফোনে কথোপকথনের একটি অডিও গতকাল প্রকাশিত হয়েছে।

জানা যায়, অপহরণের ২ দিন পর ২৯ এপ্রিল রাত সাড়ে ৯টার দিকে শামীম ওসমানকে ফোন করেন নূর হোসেন। ২ মিনিটের মতো কথা হয় তাঁদের মধ্যে। শামীম ওসমানকে ফোন করার সময় ধানমন্ডি ৪ নম্বর সড়কের আশপাশে ছিল নূর হোসেনের অবস্থান বলে ওই রিপোর্টে বলা হয়। তিনি ফোন ধরে বলেন, ‘খবরটা পৌঁছাই দিছিলাম, পাইছিলা?’

জবাবে নূর হোসেন তখন বলেন, ‘পাইছি, ভাই।’ শামীম ওসমান বলেন, ‘তুমি অত চিন্তা করো না।’ নূর হোসেন এই সময় কান্নাজড়িত কণ্ঠে শামীম ওসমানকে বলেন, ‘ভাই, আমি লেখাপড়া করিনি। আমার অনেক ভুল আছে। আপনি আমার বাপ লাগেন। আপনারে আমি অনেক ভালোবাসি ভাই- আপনি আমারে একটু যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেন।’ জবাবে শামীম ওসমান বলেন, ‘এখন আর কোনো সমস্যা হবে না।’ শামীম ওসমান ‘গৌর দা’ বলে এক লোকের সঙ্গে নূর হোসেনকে দেখা করতে বলেন বলে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

নূর হোসেনের কাছে শামীম ওসমান তখন জানতে চান, কোনো সিল আছে কি না। সিল থাকার কথা জানিয়ে নূর হোসেন বলেন, ‘আছে আছে, সিল আছে, কিন্তু যামু ক্যামনে? যেভাবে বলল অ্যালার্ট। শামীম ওসমান বলেন, ‘তুমি আগাইতে থাকো।’ নূর হোসেন তখন বলেন, ‘ভাই, তাহলে একটু খবর নেন- আমি আবার ফোন দেই।’

কথাবার্তার একপর্যায়ে শামীম ওসমান নূর হোসেনকে বলেন, ‘তুমি কোনো অপরাধ করো নাই। আমি জানি, ঘটনা অন্য কেও ঘটাইয়া এক ঢিলে দুই পাখি মারতেছে।’ এ সময় শামীম ওসমান নূর হোসেনের কাছে আরও জানতে চান, এই নম্বরটি নতুন কি না- নূর হোসেন ‘হ্যাঁ সূচক’ জবাব দেন। শামীম ওসমান বলেন, তিনি নূর হোসেনকে তাঁর আরেকটি নম্বর পাঠাবেন যোগাযোগের জন্য।

উল্লেখ্য, এসব বক্তব্য পত্রিকায় প্রকাশের পর শামীম ওসমান সংবাদ সন্মেলন করে ফোনালাপের কথা স্বীকার করেন তবে তিনি বলেন, আমার বক্তব্য আংশিকভাবে দেওয়া হয়েছে। আমি নূর হোসেনকে আত্মসমর্পন করতে বলেছি।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...