The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

‘আমার বিয়ে, পাস মার্ক দিয়েন স্যার’ এ কথা বলেও পার পাননি এক শিক্ষার্থী!

কেও আবার পরীক্ষার খাতার সঙ্গে পরীক্ষককে খুশি করতে ৫০-১০০ টাকার নোট লাগিয়েও দেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বিভিন্ন সময় পরীক্ষার খাতায় পাস করিয়ে দেওয়ার জন্য নানা ধরনের আর্জি করে থাকেন পরীক্ষার্থীরা। তবে এবার একটু ব্যতিক্রমি আর্জি ছিলো এক শিক্ষার্থীর। তার আর্জি ছিলো, ‘আমার বিয়ে, পাস মার্ক দিয়েন স্যার’।

‘আমার বিয়ে, পাস মার্ক দিয়েন স্যার’ এ কথা বলেও পার পাননি এক শিক্ষার্থী! 1

বিভিন্ন সময় নানা ধরনের আর্জি থাকে পরীক্ষার খাতায়। বিশেষ করে যাদের পড়ালেখায় মন থাকে না, অথচ পাস না করলে নানা সমস্যায় নিপিতিত হবেন। তারা নানাভাবে প্রচেষ্টা চালান। তাই কেউ লেখেন চাকরি না পাওয়ার আশংকার কথা, আবার কেও ভয় পান পরিবারের মারধরের কথা। তাই খাতায় আর্জি করেন পাস করিয়ে দেওয়ার জন্য।

শুধু তাই নয়, কেও আবার পরীক্ষার খাতার সঙ্গে পরীক্ষককে খুশি করতে ৫০-১০০ টাকার নোট লাগিয়েও দেন। তবে এবার পরীক্ষার খাতায় পাওয়া গেছে একটু ভিন্নধরনের আর্জি। এবারের আর্জিতে বিয়ের জন্য পরীক্ষায় পাস করিয়ে দেওয়ার আর্জি করা হয়েছে।

মজার এবং অদ্ভুত এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ বোর্ডের সাম্প্রতিক এক পরীক্ষার খাতায়।

এক ছাত্রী তার পরীক্ষায় খাতায় লিখেছেন, ‘স্যার ম্যায় এক লাড়কি হুঁ! মেরি শাদি ২৮ জুন কো হ্যায়, মুঝে পাস কর দেন! নেহি তো ঘরওয়ালে গুসসে মে রেহেঙ্গে’!

তবে ওই ছাত্রীর এই আর্জি যে কাজে আসছে না, তা লখনৌ এর জেলা স্কুল পরিদর্শক মহেশকুমার সিংহের কথায় অন্তত তাই মনে হয়েছে।

লখনৌ এর জেলা স্কুল পরিদর্শক মহেশকুমার সিংহ বলেছেন, ‘এই ধরনের ছল চাতুরিতে কোনো কাজের কাজ হয় না। শিক্ষকরা পেশাদার, তাদের কাজই খুঁটিয়ে পরীক্ষার খাতা দেখা। আমরা এই ধরনের কাজকে কখনও উৎসাহ দিই না।’

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...