৩৫ বছর ধরে নখ কাটেননি এক ব্যক্তি!

পাড়া পড়শিরা তাকে ভূতের নখরধারী বলে ঠাট্টাও করেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বিশ্বে কতো রকম মানুষ থাকে তা গুণে শেষ করা যাবে না। এক এক জনের মনোভাব এক এক রকম। যেমন ৩৫ বছর ধরে নখ কাটেননি এমন এক ব্যক্তির খোঁজ পাওয়া গেছে!

এক এক জনের ইচ্ছা এক এক রকম হয়ে থাকে। কেও চুল ফ্যাশন করেন, কেও জামার ফ্যাশনে বিশ্বাসী। আবার কেও বড় লম্বা গোফ রেখে স্বাচ্ছন্দবোধ করে থাকেন। তবে এবার পাওয়া গেছে লম্বা নখ রাখা ব্যক্তির খোঁজ। ভিয়েতনামের ৫৮ বছরের লু কং হুয়েন ৩৫ বছর যাবত নখ কাটেননি!

লু কং হুয়েনকে যদি আপনি কম্পিউটারে টাইপ করতে বলেন, তিনি পারবেন না। যদি তাকে বলেন একটু গিটারে টুং টাং শব্দ করতে, তাহলে আপনিই চুপ হয়ে যাবেন। ওসব তো দূরের কথা, নিজের হাতে নাইতে খাইতে পর্যন্তও পারেন না এই ভদ্রলোক। তার হাতটা লক্ষ্য করলেই, খোঁজ মিলবে নখের বহরের। কারণ হলো বিগত ৩৫ বছর ধরে নিজের দুই হাতের নখ বাড়িয়েই চলেছেন লু কং হুয়েন। আর এর ফলাফল হলো ৫৫ সে.মি দীর্ঘ দুই হাতের নখ!

তার এলাকার পাড়া পড়শিরা তাকে ভূতের নখরধারী বলে ঠাট্টাও করেন। তবে এসবে কিছুই যায় আসে না তার। বৃষ্টি হতে বাথরুমের শাওয়ার এসব কাজে যাওয়ার আগে সাধের নখগুলি প্লাস্টিকে ভালোভাবে মুড়ে নেন তিনি। তাছাড়া স্নানও করেন কদাচিৎ। কেনো না তিনি খুব ভালো করেই জানেন একটু ভিজে গেলেই নখদের আয়ু কমে যাবে।

লু কং হুয়েন পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। সেইসঙ্গে বাড়িঘর রঙও করে থাকেন। তার স্ত্রী নিউয়েন থি থুয়ান তো বেজায় চোটে থাকেন হুয়েনের উপর। ভালোবাসার পাত্রের শখ আহ্লাদ মেটাতে গিয়ে চামচে করে খাইয়ে অবধি দিতে হয় তার স্বামীকে। স্ত্রীর সঙ্গে এক বিছানায় ঘুমানোতেও নাকি লু কং হুয়েনের ঘোর আপত্তি। পাছে নখগুলো যদি ভেঙে যায়। লু কং এর স্ত্রী সব থেকে বেশি বিরক্ত হন তখন, যখন প্রতিদিন স্বামীকে জামা কাপড়টাও পরিয়ে দিতে হয়।

শখের নখ সম্পর্কে লু বলেছেন, ‘বাড়ানোর থেকেও বড় কথা হলো, নখেদের লালন-পালন করা। একবার তো আমাকে একজন মোটা টাকার অফার করেছিলেন নখ কেটে ফেলতে। আমি হেসে উড়িয়ে দিয়েছি, তবুও নখ কাটিনি।’

ভিয়েতনামে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় নখের মানুষ তিনিই। তবে বিশ্বের সবথেকে বড় নখের অধিকারী শ্রীধর ছিল্লাল হলেন ভারতবাসী। তার নখ ১৮৬.৬ সে.মি লম্বা। দু’নম্বরে রয়েছেন ভিয়েতনামের লু কং হুয়েন। তবে নখের প্রতি এই অপার টান অচিরেই তাকে এক নম্বরে পৌঁছে দেবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেছেন।

Advertisements
Loading...