ভিনগ্রহীর কঙ্কাল পাওয়া গেছে চিলিতে!

কঙ্কালের বয়স ও অন্যান্য ব্যতিক্রমী বিষয়গুলো ঘটেছে হয়তো জেনেটিক মিউটেশনের কারণেই

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভিনগ্রহীদের নিয়ে গবেষণার শেষ নেই। এবার ভিনগ্রহীর কঙ্কাল পাওয়া গেছে চিলিতে! এই কঙ্কাল বিজ্ঞানীদের গবেষণার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে।

বিজ্ঞানীরা মমি করা একটি অদ্ভূত কঙ্কাল খুঁজে পেয়েছেন। তবে বিস্ময়ের বিষয় হলো, ওই কঙ্কালের দৈর্ঘ্য মাত্র ৬ ইঞ্চি! কেও কেও ধারণা করছেন, এটি কোনো নবজাতকের মমি। যদিও কোনো নবজাতক এতোটা ছোট হওয়ার কথা নয়। প্রাথমিক পরীক্ষায় বোঝা যাচ্ছে, নবজাতকের বয়স ৬-৮ দিন হতে পারে। মমিটির বিস্ময়কর বৈশিষ্ট্য ও এর আদি এবং মৌলিক পরিচয় জানতে বিজ্ঞানীদের আগ্রহী করে তুলেছে।

ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে জানা যায় যে, কঙ্কালের বয়স ও অন্যান্য ব্যতিক্রমী বিষয়গুলো ঘটেছে হয়তো জেনেটিক মিউটেশনের কারণেই। এই মমিকে নিয়ে যে গবেষণা করা হয়েছে তা প্রকাশ পায় ‘জেনোম রিসার্চ’ নামক জার্নালে। কঙ্কালটির উচ্চতা সত্যিই অবিশ্বাস্যভাবে খর্বাকায়। এর বেশ কয়েকটি বৈশিষ্ট্য দেখা গেছে একেবারেই ভিন্ন। বিশেষ করে এর অনাকাঙিক্ষত আকৃতির পাঁজরের হাড় ও কোণ আকৃতির করোটি সবাইকে অবাক সত্যিই করে দিয়েছে। দেহাবশেষটি লা নোরিয়া শহরের একটি পরিত্যক্ত নাইট্রেট খনিতে পাওয়া যায়। সেখান থেকে এটি স্পেনের এক ব্যক্তিগত সংগ্রহশালায় চলে যায়।

সংবাদ মাধ্যমের খবরে জানা যায়, ধারণা করা হচ্ছে আতাকামা অঞ্চলে পাওয়া এই দেহাবশেষ হয়তো কোনো মানুষের ছিল না। ‘সিরিয়াস’ নামে এক ডকুমেন্টরিতে এটিকে পৃথিবীতে এলিয়েনের আসার প্রমাণ হিসেবেও উল্লেখ করা হয়েছে। এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘আতা’। বিজ্ঞানীদের একটি দল কঙ্কালটির জেনোমও পরীক্ষা করেছেন। কোষের নিউক্লিয়াস হতে সংগৃহীত হয় জেনেটিক ব্লুপ্রিন্ট। এই পদ্ধতিতে মানুষের দেহ পরীক্ষা করা হয়। এতে প্রমাণ পাওয়া যায় আতা ছিল একটি কন্যাশিশু।

Advertisements
Loading...