The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

এবার মহাসাগরে হাঙরের সঙ্গে সেলফি!

এই কাজটি করেছেন প্রশান্ত মহাসাগরে একদল ডুবুরি

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সেলফি যুগ আসার পর একের পর এক সেলফি নিয়ে ঘটনা ঘটছে। দাফনের আগে মৃত ব্যক্তির সঙ্গেও সেলফি তুলতে পিছপা হন না অনেকেই। এবার ব্যতিক্রমি ঘটনা হলো মহাসাগরে হাঙরের সঙ্গে সেলফি!

এবার মহাসাগরে হাঙরের সঙ্গে সেলফি! 1

সেলফি যুগ আসার পর একের পর এক সেলফি নিয়ে ঘটনা ঘটছে। দাফনের আগে মৃত ব্যক্তির সঙ্গেও সেলফি তুলতে পিছপা হন না অনেকেই। ট্রেনের ছাদে, সমুদ্রের ধারে, সুউচ্চ পাহাড় বা কখনও চিড়িয়াখানায় গিয়ে ভয়ংকর কোনো জীব-জন্তুর সঙ্গে সেলফি তুলতেও কেও কুণ্ঠাবোধ করেন না। এবার ব্যতিক্রমি ঘটনা হলো মহাসাগরে গভীর পানির মধ্যে হাঙরের সঙ্গে সেলফি তোলার ঘটনা ঘটেছে!

এই কাজটি করেছেন প্রশান্ত মহাসাগরে একদল ডুবুরি। তারা বিশাল একটি হাঙরের সঙ্গে সেলফি তুলেছেন। মহাসাগরের ঠিক মাঝখানে ডুবুরি দল যে হাঙরটির সঙ্গে সেলফি তুলেছেন সেটি সাগরের সবচেয়ে বড় হাঙরের মধ্যে একটি। যার দৈর্ঘ্য হলো ২০ ফুট আর ওজন প্রায় আড়াই টন!

সংবাদ মাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াই রাজ্যের ওহু দ্বীপের দক্ষিণ উপকূলে একদল ডুবুরি হাঙরটির সঙ্গে সেলফি তোলেন। যে ডুবুরি দল হাঙরটির সঙ্গে সেলফি তোলেন তাদের নেতৃত্বে ছিলেন ওশান রামসে নামে একজন ডুবুরি।

খবরে জানা যায়, এই সাদা রংয়ের হাঙরটির নাম হলো ‘ডিপ ব্লু শার্ক’ অর্থাৎ ‘গাঢ় নীল হাঙর’। ডুবুরিদের মধ্যে অনেকেই নাকি আবার ওই স্ত্রী হাঙরটিকে ছুঁয়েও দেখেছেন! তারা পছন্দমতো সেলফিও তুলেছেন একের পর এক। হাঙরের খোঁজ পেতে ওই ডুবুরির দল নাকি একটি বিশেষ কৌশলের আশ্রয় নেয়। সমুদ্রের একটি স্থানে মৃত তিমির মাংস ফেলে রাখে তারা। তাদের এই বিশেষ কৌশলের কাছে ধরা পড়ে যায় ওই হাঙরটি।

হাঙর সম্পর্কে ওশান রামসে নামে ওই ডুবুরি হাওয়াই রাজ্যের প্রভাবশালী দৈনিক হনলুলু স্টার অ্যাডভারটাইজারকে জানিয়েছেন, ‘টাইগার শার্ক’ নামে পরিচিত এক জাতের হাঙর এসে মৃত তিমিটির মাংস খাচ্ছিল। আমরা এমন দৃশ্য ভিডিও করার প্রস্ততি নিই।

এমন সময় দেখি কিছু টাইগার শার্কের সঙ্গে ‘ডিপ ব্লু শার্ক’ নামে ওই হাঙরটিও সেখানে আসে। হাঙরটি এসে ডুবুরিদের নৌকাটিকে বার বার নাড়া দিতে থাকে। তারপরই মূলত সেটিকে ছুঁয়ে দেখার এবং সেলফি তোলার সুযোগ আসে আমাদের এই দলটির হাতে। আমরা তখন সেলফি তুলি এবং তিমিটির কাছে গিয়ে ছুঁয়েও দেখি!’

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...