The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

চোর ধরার অভিনব মেশিন আবিষ্কার করেছেন কওমী মাদরাসার এক ছাত্র!

তিনি তার আবিস্কৃত মেশিন সম্পর্কে বলেছেন, ২০১৪ সাল হতে আমি এটি নিয়ে গবেষণা করতে থাকি

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীন আলেম দীন ইসলাম লেখাপড়া করেছেন কওমী মাদরাসায়। ছোট বেলা হতেই মেশিন, লাইট, চার্জার এসব নিয়ে ঘাটাঘাটির অভ্যাস রয়েছে তার। এবার তিনি নিজে আবিষ্কার করে ফেললেন চোর ধরার অভিনব এক মেশিন!

চোর ধরার অভিনব মেশিন আবিষ্কার করেছেন কওমী মাদরাসার এক ছাত্র! 1

মেশিনের নামও দিয়েছেন তিনি নিজেই। ‘টিসিএস-চোর ধরার মেশিন’ নামেই তিনি এটিকে পরিচিত করতে চান বলে জানিয়েছেন সংবাদ মাধ্যমকে।

দীন ইসলাম তার এই অভিনব আবিস্কার নিয়ে কথা বলেছেন সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে। তিনি জানিয়েছেন যে, তার নাম দীন ইসলাম, পিতার নাম নজরুল ইসলাম, তার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে।

তিনি তার আবিষ্কৃত মেশিন সম্পর্কে বলেছেন, ২০১৪ সাল হতে আমি এটি নিয়ে গবেষণা করতে থাকি। শেষ পর্যন্ত নিজে নিজেই আমি এই মেশিনটি আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছি। আমার আবিস্কৃত এই মেশিনটি চোর ধরতে বিশেষভাবে সহায়তা করবে। যেখানেই মেশিনটি স্থাপন করা হবে সেখানে কোনো চোরের আগমন ঘটলে মেশিনটি সিগন্যাল দিবে। এমনকি মেশিনের মধ্যে স্থাপন করা থাকবে একটি মোবাইল হ্যান্ডসেটও। সেখানে সেট করা নম্বরে অটোমেটিকভাবেই কল যাবে। তাছাড়াও মেশিনটিতে রয়েছে আরও বেশ কিছু সুযোগ সুবিধা।

দীন ইসলামের এই আবিষ্কারের বিষয়ে তার বাবা নজরুল ইসলাম বলেছেন, ছেলের এই আবিস্কারে আমি ভীষণ খুশি হয়েছি। আমার ছেলে অনেক মেধাবী। আমি মনে করি আমার ছেলে রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোষকতা পেলে আরও বড় কিছু করতে পারবে।

স্থানীয় হেদায়েত উল্লাহ নামে জনৈক ব্যক্তি জানিয়েছেন, তিনি তার কাছ থেকে চোর ধরার মেশিনটি ৬ হাজার টাকায় কিনে নিয়েছেন। তিনি সেটি নিয়ে গোয়াল ঘরে স্থাপন করেছেন। এটা কেনার পর তার ঘরে চুরির বিষয়ে তিনি নিশ্চয়তাও পাচ্ছেন। এখন মেশিন স্থাপনের জায়গায় অনাকাঙ্খিত কেও এলে মেশিনটি সিগন্যাল দিতে থাকে এমনকি মোবাইলেও কল চলে আসে।

এলাকাবাসীদের বেশ কয়েকজনই বলেছেন যে, দীন ইসলাম সঠিকভাবে পৃষ্টপোষকতা পেলে আরও বড় কিছু করে দেখাতে পারবে, যা জাতির জন্য উপকারে আসবে।

Loading...