The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

হুয়াওয়ের এমন এক ফোন যা ডিএসএলআর ক্যামেরাকেও হার মানাবে!

স্মার্টফোন ফটোগ্রাফিতে গ্রাহকদের যে ধারণা ও প্রত্যাশা সেটি একেবারেই বদলে দেবে হুয়াওয়ের পি৩০ সিরিজ

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ টেকনোলজির কয়েক দশকের উন্নয়নের পর এবার হুয়াওয়ের পি৩০ সিরিজ অনেক বড় সফলতা এনে দিয়েছে। এটি হুয়াওয়ের এমন এক ফোন যা ডিএসএলআর ক্যামেরাকেও হার মানাবে!

হুয়াওয়ের এমন এক ফোন যা ডিএসএলআর ক্যামেরাকেও হার মানাবে! 1

এই সিরিজের ফোনগুলো মোবাইল ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে সবার ধারণা একেবারে পাল্টে দেবে এবং এক্ষেত্রে অভিনবত্বও আনবে। হুয়াওয়ের দারুণ কিছু উদ্ভাবন যেমন; সুপারস্পেকট্রাম সেন্সর ও সুপারজুম লেন্স ফটোগ্রাফি এবং ভিডিওগ্রাফির ক্ষেত্রে দীর্ঘদিনের যে অনৈক্যও রয়েছে।

বর্তমানে এগুলোকে একসূত্রে নিয়ে আসবে। পি৩০ সিরিজ দিয়ে পরবর্তী প্রজন্মরা সত্যিকার সৌন্দর্যকে ক্যামেরায় ধারণ করতে পারবেন।’

স্মার্টফোন ফটোগ্রাফিতে গ্রাহকদের যে ধারণা ও প্রত্যাশা সেটি একেবারেই বদলে দেবে হুয়াওয়ের পি৩০ সিরিজ। মোবাইল ফটোগ্রাফির ক্ষেত্রে র‌্যাংকিং প্রকাশ করা ডিএক্সওমার্ক এর র‌্যাংকিংয়ে ইতিমধ্যেই পি৩০ প্রো সবার শীর্ষে স্থান করে নিয়েছে। এই সিরিজের স্মার্টফোনে থাকছে একটি নতুন লেইকা কোয়াড ক্যামেরা সিস্টেম।

হুয়াওয়ের সুপার-স্পেকট্রাম সেন্সরসহ থাকছে আরও ৪০ মেগাপিক্সেলের প্রধান ক্যামেরা, একটি ২০ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা-ওয়াইড অ্যাঙ্গেল ক্যামেরা, একটি ৮ মেগাপিক্সেলের টেলিফটো ক্যামেরা, হুয়াওয়ের টাইম অব ফ্লাইট ক্যামেরা, আরও থাকছে অনন্য সেলফির জন্য ৩২ মেগাপিক্সেলের ফ্রন্ট ক্যামেরা!

মনে করা হচ্ছে যে, হুয়াওয়ের এই ১/১.৭ ইঞ্চির সুপার-স্পেকট্রাম সেন্সর বিশ্বকে নতুন পথ দেখাবে। পি৩০ প্রো-এর ক্ষেত্রে আইএসও এর সর্বোচ্চ রেটিং থাকছে ৪০৯,৬০০ ও পি৩০ এর ক্ষেত্রে থাকছে ২০৪,৮০০। সেন্সর টেকনোলজিতে এই ধরনের পরিবর্তন এবং এআইএস, ওআইএস ও ১.৬ এফ এর ওয়াইড অ্যাপারচারের কারণে অসাধারণ স্থিরচিত্র এবং ভিডিওচিত্রও পাওয়া যাবে! এমনকি খুব কম আলোতেও তোলা স্থিরচিত্রগুলোতে কালারসহ স্পষ্ট ডিটেইলগুলো পাওয়া যাবে এই স্মার্টফোনে।

জানা গেছে, নতুন পেরিস্কোপ ডিজাইন ও সুপারজুম লেন্স-এর সাহায্যে পাঁচ গুণ অপটিক্যাল জুম, দশ গুণ হাইব্রিড জুম, পঞ্চাশ গুণ ডিজিটাল জুম পাওয়া যাবে। স্থিরচিত্রের যথার্থ সেগমেন্টেশন এবং সঠিক ডেপথ অব ফিল্ড এর জন্য সহায়তা করবে হুয়াওয়ের টিওএফ প্রযুক্তিটি। সুপার পোট্রেইট-এর সাহায্যে খুব ক্ষুদ্র বিষয়গুলোও ক্যামেরায় ধারণ করা সম্ভব হবে! যে কোনো দৃশ্যে সাবজেক্টকে হাইলাইট এবং ব্যাকগ্রাউন্ড ডিফোকাসড করে অসাধারণ স্থিরচিত্র পাওয়া যাবে এতে।

শুধু তাই নয়, বলা হয়েছে স্টুডিও-গ্রেড ভিডিওগ্রাফির ক্ষেত্রেও নতুন যুগের উন্মোচন করবে হুয়াওয়ের পি৩০ সিরিজ। এর সুপার-স্পেকট্রাম সেন্সরের জন্য খুব কম আলোতেও ভালো দৃশ্য ধারণ করা যাবে। এআইএস এবং ওআইএস এর স্টাবিলাইজেশনের জন্য যথার্থ ও কাঙ্খিত ভিডিও ধারণ করা সম্ভব হবে।

বলা হয়েছে, ব্রেথিং ক্রিস্টাল, আম্বার সানরাইজ, অরোরা, পার্ল হোয়াইট এবং ব্ল্যাক কালারের সমারোহে পাওয়া যাবে ৬.৪৭ ইঞ্চির হুয়াওয়ের পি৩০ প্রো এবং ৬.১ ইঞ্চির পি৩০। ফুল এইচডি ডিউড্রপ ডিসপ্লেতে থাকবে খুব ক্ষুদ্র একটি নচ। যে কারণে ডিসপ্লেতে বিস্তৃত জায়গা থাকবে। দ্রুত ও নিরাপদভাবে আইডেনটিটি শনাক্তের জন্য এতে ব্যবহার করা হয়েছে ইন-স্ক্রিন ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর।

হুয়াওয়ের পি৩০ প্রো ও পি৩০ এর বিভিন্ন ভার্সনের স্মার্টফোন ইউরোপের বাজারে খুব শীঘ্রই পাওয়া যাবে। বিভিন্ন ভার্সনের স্মার্টফোনগুলো ৯৯৯ ইউরো হতে ১,২৪৯ ইউরোর মধ্যে কেনা যাবে বলে জানানো হয়।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...