The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ঘরে বসে পেডিকিউর

আমরা কি আমাদের হাত পায়ের সঠিক যত্ন নিতে পারি?

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রতিদিনের আমাদের এই কর্মব্যস্ত জীবনের মাঝে আমরা ঘড়ে বাইরে নানান প্রতিকূল পরিবেশের মধ্য দিয়ে আমাদের দিন পার করি । যার ফলে আমাদের শরীরের বাইরের সৌন্দর্য ধিরে ধিরে হয়ে ওঠে রুক্ষ। আজ জেনে নিন ঘরে বসে পেডিকিউর সম্পর্কে কিছু তথ্য।

ঘরে বসে পেডিকিউর 1

আমাদের শরীরের বাইরের সৌন্দর্য ধিরে ধিরে হয়ে ওঠে রুক্ষ। এই কারণে আমরা আমাদের ত্বকের প্রতি যত্নশীল হয়ে থাকি। তবে আমরা কি আমাদের হাত পায়ের সঠিক যত্ন নিতে পারি? আমাদের দৈনন্দিন বাইরে যাতায়াতের ফলে আমাদের হাত পায়ের ত্বক ধুলা বালির সংস্পর্শে এসে হারাচ্ছে তার আসল সৌন্দর্য। সঠিক যত্নের অভাবে আমাদের হাত ও পায়ের নখ ও ত্বক অচিরেই কালো ও রুক্ষ হয়ে পড়ে। নিয়মঅনুযায়ী যদি আমরা পায়ের যত্ন নেই তাহলে খুব সহজেই আমরা আমাদের পায়ের হারানো উজ্জলতা ফিরে পেতে পারি। পায়ের যত্ন নেয়ার একটি অতিব পরিচিত পদ্ধতি হল পেডিকিউর। এটি দারা আমরা পায়ের গড়ালি, পায়ের পাতা, পায়ের নখ ইত্যাদি পায়ের সম্পূর্ণ যত্ন নিতে পারবো যার ফলে আপনার পা দেখাবে সুন্দর ও প্রাণবন্ত।

আসুন ঘরে বসে পেডিকিউর করার কিছু সহজ পদ্ধতি জেনে নেয়া যাক:

পদ্ধতি-১

এই পদ্ধতির প্রথমেই একটি পাত্রে শ্যাম্পু মেশানো গরম পানি নিয়ে তাতে পা ভিজিয়ে রাখতে হবে। তবে যদি কারো পায়ে নেইল পলিশ থাকে তা আগেই উঠিয়ে ফেলতে হবে। এর প্রায় ৩০ মিনিট পর পা তুলে ফেলতে হবে। পায়ের নখ নরম হয়ে যাবে ঠিক ঐ মুহূর্তে আমাদের পছন্দ মতাবেক নখকে কেটে নিব।

তারপর পা আবার পুনরায় ভিজিয়ে একটি পরিষ্কার ব্রাশে শ্যাম্পু লাগিয়ে ভাল করে দু পা ঘষে নিতে হবে। এরপর পায়ের মরা চামড়া তোলার জন্য ঝামাপাথর ব্যবহার করতে হবে। ঝামাপাথর দিয়ে ভাল করে গোড়ালি ঘষতে হবে।

পরবর্তীতে খুব যত্ন সহকারে নখের ময়লা ও কিউটিকল পরিষ্কার করতে হবে। পরিষ্কার করার সময় লক্ষ রাখতে হবে জেন নখ না ভেঙ্গে যায়। নখের ভেতরের ময়লা ও কিউটিকল পরিস্কারের জন্য অরেঞ্জ স্টিক ও নেইল ট্রিমার ব্যবহার করা উত্তম।

এরপর পায়ে স্ক্রাবিং ক্রিমের দ্বারা ভালকরে ম্যাসেজ করতে হবে। ম্যাসেজ শেষে ভালকরে পা ধুয়ে ফেলতে হবে। তারপর পা শুকানোর পর তাতে ময়শ্চারাইজার লাগাতে হবে। পরবর্তীতে আপনার মনমত নেইল পলিশ লাগান তবে নেইল পলিশ লাগানোর আগে অবশ্যই ট্রান্সপারেনান্ট বা স্বচ্ছ রঙের বেইস কোট দিয়ে নিতে হবে তাহলে নখ হলুদ হওয়া থেকে রক্ষা পাবে।

পদ্ধতি-২

অল্প সময়ের ক্ষেত্রে এটি খুবি কার্যকর একটি পদ্ধতি যা আমাদের পায়ের সঠিক উজ্জ্বলতা প্রদানে বিশেষ ভুমিকা পালন করবে। প্রথমে একটি পাত্রে সহনীয় মাত্রার গরম পানি নিতে হবে। পানির মধ্যে সামান্য লেবুর রস ও এক চামচ বেকিং সোডা মেশাতে হবে।

পানিতে সামান্য তরল সাবান ব্যবহার করে পা ভিজিয়ে রাখতে হবে। ১৫ মিনিট পর পায়ের গোড়ালি সহ সম্পূর্ণ পা ভাল করে ঘষে নিতে হবে। লেবুর দ্বারা পায়ের আঙ্গুলকে ঘষে নিতে হবে। তারপর ভালকরে পা মুছে ফেলতে হবে।

পরবর্তীতে এক গ্রাম ময়দার সাথে সামান্য কফি পাউডার ও চিনি ভাল করে মিশিয়ে তা এক টুকরো টমেটোর মদ্ধ্যে নিয়ে স্ক্রাবার তৈরি করুন। মিশ্রণসহ টমেটো ভাল করে পায়ে ঘষতে হবে জাতে করে সম্পূর্ণ পা স্ক্রাবিং হয়। এভাবে ১০ মিনিট স্ক্রাবিং করার পর পা মুছে ফেলতে হবে।

তারপর পা ভালভাবে শুকাতে দিতে হবে। পা শুকানোর পর নেইল পলিশ করতে পারেন। পায়ে নিয়মিত ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে। নিয়মিত ময়েশ্চারাইজার ব্যবহারের ফলে পায়ের সঠিক উজ্জ্বলতা বজায় থাকে দিনের পর দিন।

আমরা একই ভাবে আমাদের হাতের যত্নে মেনিকিউর করতে পারি। তবে মেনিকিউর করার সময় ঝামাপাথর ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে কারন আমাদের হাতের ত্বক পায়ের ত্বকের তুলনায় অতিব সংবেদনশীল যা হাতের জন্য ঝুকির কারন হতে পারে।

Loading...