The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মনের প্রশান্তি যোগায় ধ্যান

মেডিটেশন বা ধ্যান নিয়মিত করলে আমাদের চিন্তাশক্তি বাড়ে অনেক দ্রুত

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ধ্যান সম্পর্কে আমাদের ততোটা ধারণা না থাকলেও এটি বাস্তব জীবনে প্রয়োজন রয়েছে। মনোসংযোগ বৃদ্ধিতে এটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বিষয়। মনের প্রশান্তি যোগায় ধ্যান। আজকের বিষয় হলো ধ্যান।

মনের প্রশান্তি যোগায় ধ্যান 1

আমাদের মন খুব কম সময়ে অনেক কিছু নিয়ে চিন্তা ভাবনায় নিজেকে ব্যস্ত করতে সক্ষম। আমাদের মনের এমন অগাধ ভাবনার ফলে আমাদের মস্তিষ্ক অল্পসময়ে ক্লান্ত হয়ে পড়ে আর যার ফলে আমাদের শারীরিক সমস্যা সহ দেখা দিতে পারে নানান সকল জটিলতা। ধ্যান বা মেডিটেশনের ফলে আমরা আমাদের মনকে যেকোনো একটি কাজের প্রতি মনোযোগ স্থাপন করাতে সক্ষম হতে পারবো। মেডিটেশন বা ধ্যান আমাদের এমন একটি উপায় যার মাধ্যমে আমরা আমাদের মনকে নিজেদের মতো করে চিন্তার সকল ধারায় প্রশিক্ষিত করতে পারি। এই প্রশিক্ষার মাধ্যমে আমাদের মন খুব অল্প সময়ে প্রশান্তি যোগাবে আমাদের জীবনে। নিয়মিত মেডিটেশন বা ধ্যানের মাধ্যমে আমাদের জীবন যাত্রায় বিভিন্ন ইতিবাচক দৃষ্টিকোণ তৈরি হবে যা আমাদের জীবনকে করবে আরো সহজ ও আনন্দময়।

মেডিটেশন বা ধ্যান নিয়মিত করলে আমাদের চিন্তাশক্তি বাড়ে অনেক দ্রুত। আমরা যখন কোন কিছু শিখতে অথবা মনে রাখতে মনোনিবেশ করে থাকি আমাদের অনেকেরই কোন কিছু শিখতে বা মনে রাখতে কষ্ট হয়। আবার এমন অনেকেই আছেন যারা মনে রাখতেই পারেননা। নিয়মিত মেডিটেশন বা ধ্যান আমাদেরকে সে সকল সমস্যা থেকে মুক্তি দিয়ে থাকে। এছাড়া ধ্যান আমাদের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি অনেক রোগ থেকে আমাদেরকে পরিত্রাণ দিয়ে থাকে।

মনের প্রশান্তি ছাড়াও নানা রকম মেডিটেশন বা ধ্যান করা হয়। আমাদের জীবনে এমন কিছু ঘটতে পারে যা আমরা খুব সহজে ভুলতে পারি না। অতীতের কথা, কষ্ট, ভুল, ধোঁকা ইত্যাদি আমাদের বর্তমানকে প্রভাবিত করে। যার ফলে আমাদের বর্তমান সময়ে ঝুকিস্বরূপ। এমতাবস্থায় আমরা মাইন্ডফুলনেস মেডিটেশন করে থাকি। মাইন্ডফুলনেস মেডিটেশন বা ধ্যান আমাদের অতীতকে ভুলে যেতে ও বর্তমানকে প্রাধান্য দিতে আমাদের মনকে প্রস্তুত করে। মাইন্ডফুলনেস মেডিটেশন আমাদেরকে বর্তমানের প্রতি দৃষ্টি নিবদ্ধ করতে সহায়তা করে।

মেডিটেশন বা ধ্যান একটি ধৈর্যের কাজ যা প্রথম অবস্থায় সকলের জন্যেই একটু কঠিন। প্রথম অবস্থায় একসাথে অনেকক্ষণ এই মেডিটেশন করা কঠিন হলেও ধিরে ধিরে এটি আমাদের সকলের নিত্যদিনের একটি অভ্যাসে পরিণত হয়ে পরবে। ধ্যান আমাদের প্রত্যেকেরই আয়ত্তে নিয়ে আসতে সময়ের প্রয়োজন এবং সবথেকে বেশি প্রয়োজন ধারাবাহিকতা। আমরা অনেকেই অল্পদিনে হতাশ হয়ে পরি এবং ভাবি হয়ত আমাদের ঠিক মতো হচ্ছে না। আসলে ধারাবাহিকতার মধ্যে থাকলে আমরা খুব দ্রুত মেডিটেশনকে আয়ত্তে নিয়ে আসতে পারবো।

ধ্যান এর জন্য আমাদের সঠিক সময় হল সকালে, এছাড়া আপনি দিনের যেকোনো সময়ে ধ্যান করতে পারবেন। সকালে আমাদের আশেপাশের পরিবেশ শান্ত থাকে। সকালের বাতাশ থাকে নির্মল যা আমাদের মেডিটেশনের জন্য খুবি উপযুক্ত একটি পরিবেশ। আমরা অনেকেই খুব চাপ নিয়ে ধ্যান করতে মনোনিবেশ করে থাকি, সে ক্ষেত্রে আপনি যদি মেডিটেশনে পারদর্শী না হন তাহলে আপনার জন্য খুবি কষ্টসাধ্য হতে পারে। তাই আমাদের প্রথম অবস্থায় আমাদের মনকে শান্ত রাখতে হবে।

আমরা যারা প্রথম অবস্থায় ধ্যান করার কথা ভাবছি তাদের জন্য নিঃশ্বাসের ধ্যান খুবি কার্যকরী। একটি শান্ত পরিবেশে বশে নিজের নিঃশ্বাসের প্রতি মনোযোগ নিবেশ করতে হবে। খেয়াল করতে হবে আমাদের নিঃশ্বাস কোথা থেকে আসছে আবার কোথায় যাচ্ছে। আমাদের অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে যাতে আমাদের মনোযোগ যাতে অন্য কোথাও না চলে যায়। মনোযোগ অন্য কোথাও চলে গেলে ধিরে ধিরে তা আবার নিঃশ্বাসের দিকে নিয়ে আসতে হবে।

এছাড়া আমরা মেডিটেশন রেকর্ডিং চালু করে তা সঠিক ভাবে অনুসরণ করে ধ্যান করতে পারি। ইন্টারনেটে প্রচুর মেডিটেশনের ভিডিও, মিউজিক, অডিও রয়েছে যা আমাদেরকে ধ্যান করায় সাহায্য করবে। পাশাপাশি প্রচুর গাইড্ডে মেডিটেশন রেকর্ডিং পাওয়া যায় ইন্টারনেটে যা অনুসরণ করে আমরা আমাদের ধ্যান সম্পূর্ণ করতে পারবো। এছাড়া সম্প্রতি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান মেডিটেশন করার ট্রেনিং দিচ্ছে যেখানে আছে পারদর্শী সকল কর্মকর্তা যাদের কাছ থেকেও মেডিটেশনের সঠিক কৌশল ও জ্ঞ্যান লাভ করা যেতে পারে।

Loading...