ম্যান্ডেলাকে দেখে চেনার উপায় নেই -সাক্ষাৎকারে ম্যান্ডেলার সহযোদ্ধা কাতরাদা

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নেলসন ম্যান্ডেলাকে দেখে দুঃখ প্রকাশ করেছেন তাঁর সহযোদ্ধা আহমেদ কাতরাদা (৮৩)। বার্তা সংস্থা এপিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এ অনুভূতির কথা জানান। তিনি ম্যান্ডেলার শারীরিক অবস্থারও বর্ণনা দেন এবং বলেন, ম্যান্ডেলাকে দেখে চেনার উপায় নেই।

Mandela

অনলাইন সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে, গত ১ জুলাই ম্যান্ডেলাকে দেখতে হাসপাতালে যান কাতরাদা। এ জন্য তিনি সময় পান মাত্র কয়েক মিনিট। এই কয়েক মিনিট সময়কে দুঃখজনক স্মৃতি বলে মন্তব্য করেন তিনি। তিনি বলেন, ‘ম্যান্ডেলা কথা বলতে পারছিলেন না। চেহারাও বদলে গেছে। দেখে চেনার জো নেই। কেবল চোখের ইশারায় বুঝিয়েছেন যে তিনি আমাকে চিনতে পেরেছেন।’

সাক্ষাৎকারে কাতরাদা বলেন, ‘কারাগারে থাকার সময় থেকেই ম্যান্ডেলা শরীরের প্রতি উদাসীন ছিলেন। অনেকেই কারাগারের বাইরে শরীরচর্চা করত। কিন্তু ম্যান্ডেলা ছিলেন ব্যতিক্রম।’

ফুসফুসের সংক্রমণের কারণে গত ৮ জুন প্রিটোরিয়ার মেডিক্লিনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ম্যান্ডেলাকে। গতকাল ১৩ জুলাই হাসপাতালে টানা ৩৬তম দিন পার করেছেন ম্যান্ডেলা। গত ১২ জুলাই তাঁর স্ত্রী গ্রাসা ম্যাশেল বলেন, ম্যান্ডেলার অবস্থা নিয়ে তাঁর উদ্বেগ কিছুটা কমেছে। তিনি (ম্যান্ডেলা) চিকিৎসায় ধারাবাহিকভাবে সাড়া দিয়ে যাচ্ছেন। সরকারের পক্ষ থেকে গত ১১ জুলাই জানানো হয়েছে, ম্যান্ডেলার অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। তবে এখনো সংকটাপন্ন। তাঁকে লাইফ সাপোর্ট দিয়ে বাঁচিয়ে রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ণবাদী আমলে ১৯৬৪ সালের ১৩ জুন রাষ্ট্রদ্রোহের মামলায় ম্যান্ডেলা ছাড়াও সাতজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তাঁদের মধ্যে কাতরাদাও ছিলেন। রোবেন দ্বীপে ম্যান্ডেলার সঙ্গে দীর্ঘ সময় কারাবন্দি ছিলেন তিনি। তথ্যসূত্র : এপি।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...