The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

পাকিস্তানের লাহোরের গ্রান্ড জামিয়া মসজিদ

এই গ্রান্ড জামিয়া মসজিদটির অবস্থান পাকিস্তানের লাহোরের বাহিরা শহরে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ শুভ সকাল। শুক্রবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খৃস্টাব্দ, ১২ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৭ মহররম ১৪৪১ হিজরি। দি ঢাকা টাইমস্ -এর পক্ষ থেকে সকলকে শুভ সকাল। আজ যাদের জন্মদিন তাদের সকলকে জানাই জন্মদিনের শুভেচ্ছা- শুভ জন্মদিন।

পাকিস্তানের লাহোরের গ্রান্ড জামিয়া মসজিদ 1

যে দৃশ্যটি দেখছেন সেটি পাকিস্তানের লাহোরের গ্রান্ড জামিয়া মসজিদ। এই মসজিদে ৭০ হাজার মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারেন।

এই গ্রান্ড জামিয়া মসজিদটির অবস্থান পাকিস্তানের লাহোরের বাহিরা শহরে। এই মসজিদটি মুসল্লি ধারণ ক্ষমতার দিক দিয়ে পৃথিবীর ১৪তম বৃহত্তম মসজিদের স্থানে রয়েছে। এই মসজিদে এক সঙ্গে ৭০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারেন। কোনো কোনো বর্ণনায় একে পৃথিবীর সপ্তম বৃহত্তম মসজিদ হিসেবেও উল্লেখ করা হয়।

এই মসজিদটি বাহির হতে দেখলে মনে হবে অন্তত কয়েক শ’ বছরের পুরনো মসজিদ। তবে এটি পুরোনো মসজিদ নয়, এই মসজিদটি ২০১৪ সালে নির্মাণ শেষে উদ্বোধন করা হয়। মাত্র ৫ বছর পূর্বে নির্মিত এই মসজিদটিকে কয়েক শ’ বছরের পুরনো মনে হওয়ার কারণ হলো এটি সম্পূর্ণ মোগল ইসলামী স্থাপত্যের অনুকরণে নির্মিত হয়েছে।

মোগল স্থাপত্যের অনন্য নিদর্শন হলো বাদশাহী মসজিদ, শেখ ওয়াজির খান মসজিদের স্থাপত্যশৈলীর সমন্বয় সাধন করা হয়েছে এই মসজিদটি নির্মাণে। এই মসজিদটিতে ২১টি গম্বুজ এবং ৪টি মিনার রয়েছে। পুরো মসজিদের ভিত্তি মাটি হতে ২০ ফুট ওপরে। মোগল স্থাপত্যের সঙ্গে আধুনিক স্থাপত্যের সংযোগের কারণে এর পরিবেশ এক কথায় হৃদয় কাড়া। মূল মসজিদটি এক বৃত্তাকার মসজিদ।

এই মসজিদের প্রধান আকর্ষণ হলো রতের গম্বুজ। মূল গম্বুজটি আবার ২০টি ছোট গম্বুজ দিয়ে ঘেরা। এই গম্বুজের গায়ে হাতে তৈরি ৪০ লাখ মুলতানী টাইলস বসানো হয়েছে। প্রতিটি টাইলস হলো আড়াই ইঞ্চি। ৪ বছর ধরে কারিগররা হাতে বসিয়েছে এই সব টাইলস।

তাছাড়া এই মসজিদের মিনার যেনো এক রাজকীয়। ১৬৫ ফুট উঁচু প্রতিটি মিনারেই রয়েছে কাঠের ব্যালকনি। মিনারের অলঙ্করণও মনোহর। এই মসজিদের আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো এর কারুনৈপুণ্যতা। কার্পেট ছাড়া মসজিদের সব দ্রব্যসামগ্রীই পাকিস্তানে তৈরি।

এই মসজিদের আরেকটি ব্যতিক্রমী বৈশিষ্ট্য হলো এটির শাহান বা কোর্টইয়ার্ড। এই মসজিদের শাহান মোগল আমলে নির্মিত অন্যান্য মসজিদ শাহানের মতো নয়। এর শাহান চারবাগ অনুকরণের নির্মিত হয়েছে। চারবাগ নকশা রয়েছে ১৫৭২ সালে নির্মিত দিল্লির হুমায়ুনের মাজার, ১৫৯৮ হতে ১৬২৯ সালে নির্মিত ইরানের ইসফাহানের শাহ মসজিদ এবং লাহোর জাহাঙ্গীরের মাজারে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...