The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মাটির তলায় এক সোনার সুড়ঙ্গ আবিষ্কার!

সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা মাটির তলায় লুকিয়ে রাখা ৮০০ বছরের পুরনো সোনার সুড়ঙ্গের খোঁজ পেয়েছেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মাটির তলায় এক সোনার সুড়ঙ্গের কথা শুনে আপনি হয়তো আশ্চর্য হতেই পারেন। তবে যতোই আশ্চর্য হোন না কেনো বাস্তবে ঠিক এমন একটি ঘটনা ঘটেছে। মাটির তলায় এক সোনার সুড়ঙ্গ আবিষ্কার হয়েছে! আর এটি ঘটেছে ইজরায়েলে। বিজ্ঞানীদের এই আবিষ্কারের ফলে প্রায় ৮০০ বছর পূর্বের ইতিহাস যেমন জানা যাবে, অপর দিকে সেই সঙ্গে ওই সুড়ঙ্গ হতে স্বর্ণও উদ্ধার করা যাবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

মাটির তলায় এক সোনার সুড়ঙ্গ আবিষ্কার! 1

মাটির তলায় এক সোনার সুড়ঙ্গের কথা শুনে আপনি হয়তো আশ্চর্য হতেই পারেন। তবে যতোই আশ্চর্য হোন না কেনো বাস্তবে ঠিক এমন একটি ঘটনা ঘটেছে। মাটির তলায় এক সোনার সুড়ঙ্গ আবিষ্কার হয়েছে! আর এটি ঘটেছে ইজরায়েলে। বিজ্ঞানীদের এই আবিষ্কারের ফলে প্রায় ৮০০ বছর পূর্বের ইতিহাস যেমন জানা যাবে, অপর দিকে সেই সঙ্গে ওই সুড়ঙ্গ হতে স্বর্ণও উদ্ধার করা যাবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা।

সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা মাটির তলায় লুকিয়ে রাখা ৮০০ বছরের পুরনো সোনার সুড়ঙ্গের খোঁজ পেয়েছেন। এখন শুধু খোঁড়াখুঁড়ি করে সেই সম্পত্তি তুলে আনার অপেক্ষা। বিজ্ঞানীরা লেসার প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই সুড়ঙ্গের খোঁজ পেয়েছেন। ন্যাশনাল জিযোগ্রাফিক চ্যানেলের বিজ্ঞানী লিন ও তার দল সম্প্রতি এই খোঁজ পেয়েছেন। এই বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমকে লিন জানিয়েছেন, একাদশ শতকে ধর্মযুদ্ধের সময় ইজরায়েলের শহর একরির নীচে খ্রিস্টান যোদ্ধারা সুড়ঙ্গ তৈরি করেন।

মূলত ওই ধর্মযুদ্ধ ছিল ইজরায়েলকে মুসলিম আধিপত্য থেকে মুক্ত করে খ্রিস্টধর্মের সূচনা করা। ধর্মযুদ্ধের সময় ইজরায়েলের ওই শহরটি ছিল যোদ্ধাদের সদর দফতর। সদর দফতর যাতে সহজে কেও খুঁজে না পাই তার জন্যই একরি শহরের মাটির অনেকটা নীচে ওই সুড়ঙ্গ তৈরি করা হয়।

ওই গোপন সুড়ঙ্গ দিয়ে সদর দফতরে পৌঁছাতেন যোদ্ধারা। এই সুড়ঙ্গ দিয়েই তারা যুদ্ধের প্রয়োজনীয় সামগ্রী ও সঙ্গে প্রচুর সোনা-গহনা নিয়ে যেতেন।

তবে এই সুড়ঙ্গটি মাটির ঠিক কতটা নীচে রয়েছে এবং তার বিস্তৃতিও কতোটা জায়গা জুড়ে রয়েছে তা জানার চেষ্টা অব্যাহত রেখে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

এই বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমকে বিজ্ঞানীরা বলেছেন, ভালো করে খোঁড়াখুড়ি করলে ধর্মযোদ্ধাদের লুকিয়ে রাখা অনেক সোনা উদ্ধার করা যাবে মাটির নীচের ওই সদর দফতর ও সুড়ঙ্গ হতে। বিজ্ঞানীরা এই বিষয়ে ব্যাপক অনুসন্ধান অব্যাহত রেখেছেন।

Loading...