The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

তুর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ: ১৫ জন নিহত

এই ঘটনায় ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মন্দবাগ এলাকায় তুর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষে ১৫ জন নিহত হয়েছেন। আজ (১২ নভেম্বর) রাত ৩টার দিকে এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। এই দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। তবে হতাহতদের নাম-পরিচয় এখনও জানা যায়নি। ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

তুর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ: ১৫ জন নিহত 1

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মন্দবাগ এলাকায় তুর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষে ১৫ জন নিহত হয়েছেন। আজ (১২ নভেম্বর) রাত ৩টার দিকে এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। এই দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। তবে হতাহতদের নাম-পরিচয় এখনও জানা যায়নি। ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফায়ার সর্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক তানহারুল সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। এই দুর্ঘটনার পর হতে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রাম-সিলেটের সঙ্গে সকল প্রকার রেল যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

ইউএনও মাসুদ উল আলম সংবাদ মাধ্যমকে এই দুর্ঘটনার বিষয়ে বলেছেন যে, ‘ঘটনাস্থলে রয়েছে ৯টি লাশ, এরমধ্যে ৫ জন পুরুষ ও ৪ জন নারী। কসবা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৮ জন ভর্তি হয়েছেন, তাদের মধ্যে ২ জন মারা গেছেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ২ জন মারা গেছেন। কুমিল্লায় ভর্তি হয়েছেন ৯ জন, তারমধ্যে একজনের মৃত্যু হয়েছে, সেখানে ৩ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছি। উদ্ধার কাজ চালানো হচ্ছে। আমরা ইতিমধ্যেই কন্ট্রোল রুমও খুলেছি। আমাদের স্থানীয়রা জানিয়েছেন, প্রায় ১০০ লোক আহত হতে পারেন।’

এদিকে জানা গেছে যে, এই ঘটনায় ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন। সকাল সাড়ে ৭টার দিকে জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খান বিষয়টি নিশ্চিত করে সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে যে, তুর্ণা নিশীথা ট্রেনটি সিগন্যাল অমান্য করে লাইনে ঢুকে উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনটিকে সজোরে ধাক্কা দিয়েছে। তবে প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মিতু মরিয়মকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সংবাদ মাধ্যমকে তিনি আরও জানিয়েছেন যে, নিহতদের পরিচয় শনাক্ত করে প্রত্যেক পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা প্রদান করে মরদেহ বাড়িতে পৌঁছানোর ব্যবস্থা করা হবে। সেইসঙ্গে আহতদের চিকিৎসার সব ব্যবস্থা করা হয়েছে। অপরদিকে ধারণা হচ্ছে যে, দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া বগির নিচে আরও মরদেহ থাকতে পারে।

Loading...