The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

অমিত শাহকে রুখতে অভিনব কৌশল অবলম্বন!

দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের বক্তব্যের পর প্রতিবাদের আগুন আরও তীব্র হয়ে উঠেছে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ভারতীয় পার্লামেন্টে পাস হওয়া নাগরিকত্ব সংশোধন আইন নিয়ে ক্ষমতাসীন বিজেপির কঠোর সমাচেলানায় উত্তাল হয়ে উঠেছে পুরো ভারত। রাজপথে সাধারণ মানুষ হতে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও নেমেছেন প্রতিবাদ জানাতে।

অমিত শাহকে রুখতে অভিনব কৌশল অবলম্বন! 1

ভারতীয় পার্লামেন্টে পাস হওয়া নাগরিকত্ব সংশোধন আইন নিয়ে ক্ষমতাসীন বিজেপির কঠোর সমাচেলানায় উত্তাল হয়ে উঠেছে পুরো ভারত। রাজপথে সাধারণ মানুষ হতে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও নেমেছেন প্রতিবাদ জানাতে।

বিশেষ করে দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের বক্তব্যের পর প্রতিবাদের আগুন আরও তীব্র হয়ে উঠেছে। নাগরিকত্ব বিল পাসের আগে এবং পরে তার বক্তব্যে ক্ষুব্ধ ভুক্তভোগী দেশটির লাখ লাখ মানুষ।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ভারতীয় এই স্বরাষ্টমন্ত্রীর বিরুদ্ধে অন্যরকম প্রতিবাদ জানানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লিগ (আইইউএমএল)। সংবাদ মাধ্যমের এক খবরে জানা যায়, আগামী ১৫ জানুয়ারি কেরালার কোঝিকোড়ে সফরে যাবেন অমিত শাহ। সেই ময়য় ৩৫ কিলোমিটারের দীর্ঘ প্রাচীর তৈরি করে বিক্ষোভ দেখানো হবে বলে প্রতিবাদকারীরা জানিয়েছেন।

মানুষের ‘কালা প্রাচীর’ তৈরি করে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের বিরুদ্ধে অভিনব এই প্রতিবাদ এবং বিক্ষোভ প্রদর্শন করার কথা ঘোষণা করেছে ওই সংগঠনটি।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের খবরে আরও বলা হয়েছে, প্রায় ১ লাখ সমর্থক কালো পোশাক পরা অবস্থায় ৩৫ কিলোমিটারের প্রাচীর গড়ে তুলবেন। পশ্চিম পর্বতমালার হেলিপ্যাড হতে কালিকট আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত এই মানব প্রাচীর গড়ে তোলা হবে বলে জানানো হয়েছে।

এইদিন নাগরিকত্ব বিলের পক্ষে সমর্থন ব়্যালিতে যোগ দিতে কোঝিকোড় সফরে যাবেন বিজেপি সভাপতি ও দেশটির কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

বিভিন্ন সময় কথায় কথায় মোদী-শাহের মুখে শোনা যায় স্বামীজির কথা। এবার সেই স্বামীজির বাণীই বিজেপি বিরোধীতায় হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেছে ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লিগ। ১৯৮৩ সালে শিকাগোতে এক ভাষণ দিয়েছিলেন স্বামী বিবেকানন্দ। সেই ভাষণেরই নানা কথা প্রতিবাদীদের পোশাকেই লেখা থাকবে।

ইন্ডিয়ান ইউনিয়ন মুসলিম লিগের সাধারণ সম্পাদক পি কে ফিরোজ এই বিষয়ে বলেছেন, ‘নাগরিককত্ব বিলের প্রতিবাদ করলেই দমন পীড়ন চালাচ্ছে পুলিশ। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরএসএসের কর্মীদের হিংসায় মদত দিচ্ছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। যা ২০০২ সালের স্মৃতিকেই উস্কে দিচ্ছে। এর উদাহরণ হলো গত রবিবারের জহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলার (জেএনইউ) ঘটনা।’

Loading...