The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত হানার অভিযোগ অ্যামাজনের বিরুদ্ধে

শিখ ধর্মাবলম্বীদের ভাবাবেগে আঘাত দিয়ে তীব্র বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এই ই-কমার্স সংস্থাকে

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আবারও বিতর্কে জড়িয়েছে অ্যামাজন ইন্ডিয়া। শিখ ধর্মাবলম্বীদের ভাবাবেগে আঘাত দিয়ে তীব্র বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এই ই-কমার্স সংস্থাকে। ইতিমধ্যেই কোম্পানির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে। সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ভারতে এই অনলাইন শপিং প্ল্যাটফর্মটিতে বিক্রি করা হচ্ছে টয়লেট ম্যাট। সেই টয়লেট ম্যাটে ফুটে উঠেছে অমৃতসরের স্বর্ণমন্দিরের ছবি। গুরুদ্বারের ছবি দিয়ে এভাবে টয়লেট ম্যাট (পাপোশ) বিক্রি কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না শিখ অনুসারীরা। এভাবে তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করা হচ্ছে বলে অভিযোগ জানাচ্ছেন সেই সম্প্রদায়ের মানুষগুলো।

ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত হানার অভিযোগ অ্যামাজনের বিরুদ্ধে 1

আবারও বিতর্কে জড়িয়েছে অ্যামাজন ইন্ডিয়া। শিখ ধর্মাবলম্বীদের ভাবাবেগে আঘাত দিয়ে তীব্র বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এই ই-কমার্স সংস্থাকে। ইতিমধ্যেই কোম্পানির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে। সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ভারতে এই অনলাইন শপিং প্ল্যাটফর্মটিতে বিক্রি করা হচ্ছে টয়লেট ম্যাট। সেই টয়লেট ম্যাটে ফুটে উঠেছে অমৃতসরের স্বর্ণমন্দিরের ছবি। গুরুদ্বারের ছবি দিয়ে এভাবে টয়লেট ম্যাট (পাপোশ) বিক্রি কোনোভাবেই মেনে নিতে পারছেন না শিখ অনুসারীরা। এভাবে তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করা হচ্ছে বলে অভিযোগ জানাচ্ছেন সেই সম্প্রদায়ের মানুষগুলো।

অ্যামাজন দেওয়া প্রোডাক্টের ছবিতে দেখা যাচ্ছে যে, শৌচালয়ে, কমোডের সামনেই রাখা হয়েছে সেই পাপোশ। টয়লেট ম্যাট হিসেবেই ব্যবহার করা হচ্ছে সেই পাপোশটি। কমোডের ঢাকনাতেও একই ছবি রয়েছে।

দিল্লি শিখ গুরুদ্বার ম্যানেজমেন্ট কমিটির প্রধান মনজিন্দর সিং সিরসা এমন কাণ্ডকারখানার জন্য তীব্র নিন্দা করে ইতিমধ্যেই অ্যামাজন ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছেন বলে জানানো হয়েছে সংবাদ মাধ্যমের এক খবরে।

টুইটারে তিনি লেখেন যে, ‘শিখদের ভাবাবেগ নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে অ্যামাজন।’ টয়লেট ম্যাট বিক্রেতাকে ব্যান্ড করার দাবিও জানিয়েছেন তিনি। সেইসঙ্গে এই ঘটনার জন্য গোটা বিশ্বের কাছে আমাজনকে ক্ষমা চাওয়ারও দাবি তুলেছেন তিনি।

তবে এমন ঘটনা এবারই প্রথম নয়। এর আগেও একাধিকবার ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করে বিতর্কের সম্মুখীন হয় অ্যামাজন ইন্ডিয়া। ২০১৮-তে এই অনলাইন সাইটে দেদারচে বিক্রি হয়েছিল স্বর্ণমন্দিরের ছবি দেওয়া পাপোশ। এছাড়াও শৌচালয়ে ব্যবহার করার নানা জিনিসেও ছিল স্বর্ণমন্দিরের চিত্র। তখনও ব্যাপক সমালোচিত হয় অ্যামাজন। বিক্ষোভের মুখে পড়ে সেই সব পণ্য ওয়েবসাইট হতে সরিয়ে ফেলা হয়েছিল সেই সময়। তবে আবারও এই শপিং প্ল্যাটফর্মে একই ঘটনা ঘটায় ক্ষুব্ধ হয়েছেন শিখ ধর্মাবলম্বীরা।

Loading...