The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

বাড়ি কিনুন মাত্র ৮০ টাকায়!

ইতালির নেপলস শহর হতে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত বিসাকিয়া

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ এমন কি কখনও হতে পারে? মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি! কিভাবে সম্ভব? ঠিক তাই। সম্ভব। তবে আমাদের দেশে নয় ইতালির নেপলস শহর হতে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত বিসাকিয়াতে মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি হচ্ছে! এমন একটি খবর শুনে যে কেও আশ্চর্য হবেন সেটিই স্বাভাবিক। ইতালির নেপলস শহর হতে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত বিসাকিয়াতে নাকি মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি হচ্ছে! তবে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কেনো মাত্র ৮০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে বাড়ি? সেই প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে, জনসংখ্যা বাড়ানোর উদ্দেশেই নাকি এমন উদ্যোগ হাতে নিয়েছে দেশটির একটি সংস্থা!

বাড়ি কিনুন মাত্র ৮০ টাকায়! 1

এমন কি কখনও হতে পারে? মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি! কিভাবে সম্ভব? ঠিক তাই। সম্ভব। তবে আমাদের দেশে নয় ইতালির নেপলস শহর হতে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত বিসাকিয়াতে মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি হচ্ছে! এমন একটি খবর শুনে যে কেও আশ্চর্য হবেন সেটিই স্বাভাবিক। ইতালির নেপলস শহর হতে মাত্র দুই ঘণ্টার দূরত্বে অবস্থিত বিসাকিয়াতে নাকি মাত্র ৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি হচ্ছে! তবে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে কেনো মাত্র ৮০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে বাড়ি? সেই প্রশ্নের জবাবে বলা হয়েছে, জনসংখ্যা বাড়ানোর উদ্দেশেই নাকি এমন উদ্যোগ হাতে নিয়েছে দেশটির একটি সংস্থা!

ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিসাকিয়া গ্রামটিতে জনসংখ্যার হার খুব কম। সে কারণেই তারা এক ইউরোতে অর্থাৎ
৮০ টাকায় বাড়ি বিক্রি করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছেন।

সংবাদ মাধ্যমটির খবরে আরও বলা হয়েছে যে, গোলাপি, নীল, সবুজ ও হলুদ রঙের বাড়িগুলোর মালিক সিএনএন-ট্রাভেল অনুসারে উন্নত ভবিষ্যতের জন্য অন্যত্র চলে গিয়েছেন। সে কারণেই এখানকার সব ঘরবাড়ি স্থানীয় লোকজনের কাছে রয়েছে।

খবরে আরও বলা হয় যে, এসব বাড়ি কেনার জন্য খুব একটা দৌড়োদৌড়িও করতে হবে না। কারণ বাড়িগুলো ওখানকার স্থানীয় মানুষই বিক্রি করছেন। এই বাড়ির পুরনো মালিকের সঙ্গেও দেখা করার কোনো দরকার নেই বলে জানানো হয়েছে।

সংবাদ মাধ্যমটিকে শহরের ডেপুটি মেয়র ফ্রানসেস্কো টোর্টাগ্লিয়া জানিয়েছেন যে, ‘আমাদের এখানে জনসংখ্যা ক্রমেই কমে যাচ্ছে। এখানে যে বাড়িগুলো লোকজন ছেড়ে দিয়ে চলে গেছে, সেগুলো সবই এই গ্রামের পুরনো অংশে অবস্থিত।’

শহরের ডেপুটি মেয়র ফ্রানসেস্কো টোর্টাগ্লিয়া আরও জানিয়েছেন যে, ‘এ কারণেই আমরা এখানে পরিবার, বন্ধু বান্ধবের গোষ্ঠী, আত্মীয়-স্বজন, এমন মানুষ যারা একে অপরকে জানেন তাদেরকেই স্বাগত জানিয়ে আসছি। যাতে এই ঘরগুলো বিক্রি হয় কিংবা তারা ঘরগুলো কিনে নেন!’

Loading...