The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

সোলাইমানি হত্যায় জড়িত গুপ্তচরের মৃত্যুদণ্ড দিলো ইরান

সৈয়দ মাহমুদ মুসাভি-মাজদ নামে ওই ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড খুব শীঘ্রই কার্যকর করার কথা জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত ইরানের ক্ষমতাধর জেনারেল কাশেম সোলাইমানি হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে একজনকে মৃত্যুদণ্ড দিলো ইরান।

সোলাইমানি হত্যায় জড়িত গুপ্তচরের মৃত্যুদণ্ড দিলো ইরান 1

সৈয়দ মাহমুদ মুসাভি-মাজদ নামে ওই ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ড খুব শীঘ্রই কার্যকর করার কথা জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এক ড্রোন হামলায় নিহত হন জেনারেল সোলাইমানি। তার অবস্থান সস্পর্কে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ ও ইসারায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদকে তথ্য সরবরাহ করার অভিযোগে ইরানি নাগরিক সৈয়দ মাহমুদ মুসাভিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হলো।

ইরানের বিচার বিভাগের মুখপাত্র গোলাম হোসেন ইসমাইল সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ‘ইরানের সশস্ত্র বাহিনী ও ইসলামিক বিপ্লবী গার্ড এর কুদস ফোর্সের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তিকারীদের একজন এই মাহমুদ মুসাভিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সোলাইমানির অবস্থান সম্পর্কে তিনি শত্রুদের তথ্য দিয়েছিলেন।’

তবে কখন মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হবে সেই বিষয়ে বিস্তারিত কিছু না জানালেও তিনি বলেছেন, খুব শীঘ্রই মুসাভির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে। এছাড়াও এই হত্যকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে সম্প্রতি গ্রেফতারকৃত ১৭ গুপ্তচরের মধ্যে কয়েকজনের ফাঁসি হয়। মুসাভি তাদের সঙ্গে যুক্ত কিনা তা অবশ্য জানানো হয়নি।

গত ৩ জানুয়ারি শুক্রবার স্থানীয় সময় মধ্যরাতে ইরাকের বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কাশেম সোলাইমানিকে বহনকারী গাড়িতে ড্রোন হামলা চালায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম ক্ষমতাধর ব্যক্তি এবং ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডসের শাখা কুদস ফোর্সের প্রধান ছিলেন নিহত কাশেম সোলাইমানি।

সেই সময় থেকেই সোলাইমানি হত্যা নিয়ে মার্কিন-ইরান উত্তেজনা শুরু হয়। প্রিয় জেনারেল সোলাইমানি এভাবে নিহত হওয়ার পর তার জন্য শোকের মাতম করে ইরানের লাখ লাখ মানুষ। তারপর ইরাকে মার্কিন ঘাঁটিতে পাল্টা হামলাও করে ইরান। তবে তাতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি বলে দাবি করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...