The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ধরা পড়েছে অদ্ভুত এক মাছ: দাঁত, ঠোঁট একেবারে মানুষের মতোই!

অবিশ্বাস্য, অদ্ভুত কত কিছুই না ঘটছে প্রতিদিন!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ পৃথিবীতে যে কতো রকমের রহস্য রয়েছে তা গুণে শেষ করা যাবে না। এবার ধরা পড়লো এমন এক অদ্ভুত মাছ যার দাঁত, ঠোঁট একেবারে মানুষের মতোই!

ধরা পড়েছে অদ্ভুত এক মাছ: দাঁত, ঠোঁট একেবারে মানুষের মতোই! 1

অবিশ্বাস্য, অদ্ভুত কত কিছুই না ঘটছে প্রতিদিন! নিজের চোখে না দেখলে সেসব বিশ্বাস করাও যেনো কঠিন। প্রকৃতির রূপ, রস, গন্ধের কতোটুকুইবা আমরা দেখতে পাচ্ছি! যদি প্রকৃতি স্বেচ্ছায় নিজের রহস্য উন্মোচন করে সেটি পৃথক ব্যাপার।

অনেক সময় দেখা যায় মানুষ নিজের অজান্তেই প্রকৃতির রহস্যভাণ্ডার হতে কিছু অদ্ভুত জিনিস আবিষ্কার করে বসে। সেসব রহস্যের উন্মোচন স্তম্ভিত করে দেয় আমাদের সকলকে। এবারও সে রকমই একটি ঘটনা ঘটলো। আরও একবার দেখা গেলো মানুষের মতো একটি আজব মাছ।

এর আগেও মানুষের মতোই মাছ দেখা গিয়েছিল। তবে সেবার পানির একটু নিচে দেখা যায় সেটিকে। অল্প সময়ের মধ্যে একজন সেই মাছের ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন। সেই ছবি খুব একটা স্পষ্টও ছিল না।যে কারণে ওই ছবি নিয়ে ধোয়াঁশাও ছিল বেশ। তবে এবার ব্যাপারটা একেবারেই আলাদা ধরনের। মানুষের মতোই দেখতে মাছ ধরা পড়েছে এবার। যে কারণে সেটিকে খুব কাছ থেকে দেখা ও যাচাই করার সুযোগও ছিল। একেবারে মানুষের মতোই দাঁত এবং ঠোঁট ওই মাছটির। মুখের গড়ন অনেকটাই মানুষের মতোই। সেই মাছের ছবির সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ হতেই অনেকেই সেটিকে ফটোশপ এর মাধ্যমে আরও বেশি মানুষের মতো আকৃতি দিতে লেগে গেছেন।

জানা যায় যে, এই ধরনের মাছকে বলা হয়ে থাকে ট্রিগার ফিশ। সাধারণত এশিয়ার দক্ষিণ পূর্ব অঞ্চলের অনেক জলাশয়ে এই মাছটি দেখা যায়। মাছটির শরীরে রয়েছে দুটি রং। দুটি রংকে ভাগ করছে লাল রঙের একটি রেখায়। ঠোঁটের ওপর দিক দিয়ে শরীরের নিচের অংশ পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে সেই লাল রেখাটি। মাছটির মুখটি লম্বা। চোখের সামনে ধূসর রঙের বর্ডার দেখতে অনেকটা বেল্টের মতোই। এই মাছটি দেখার পর নেট দুনিয়ার মানুষ নানা রকম মন্তব্য করেছেন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...