The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

করোনার কারণে শিশুরা নতুন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে

এই রোগের প্রধান লক্ষণ উচ্চমাত্রার জ্বর

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ সম্প্রতি দেশে মাল্টিসিস্টেম ইনফ্লেমেটরি সিনড্রোম (এমআইএসসি) নামে নতুন একটি মারাত্মক রোগের সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। এর সংক্রমণের মূল কারণই হলো করোনা ভাইরাস। শিশু-কিশোররা এই নতুন রোগে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে।

করোনার কারণে শিশুরা নতুন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে 1

এই রোগের প্রধান লক্ষণ উচ্চমাত্রার জ্বর। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পরীক্ষায় কোনো জীবাণুর অস্তিত্বই পাওয়া যায় না। এই রোগে আক্রান্ত হলে এমআইএসসি আক্রান্ত শিশুর রক্তপ্রবাহ একেবারে কমে যায়। এতে করে হার্ট, কিডনি, ফুসফুস এবং যকৃতের মতো অঙ্গ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে তাকে মৃত্যুমুখেও ঠেলে দিতে পারে। এমন সব তথ্য দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

জানা যায়, ২৬ এপ্রিলএমআইএসসি রোগটি প্রথম ধরা পড়ে যুক্তরাজ্যে। এর সংক্রমণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, সুইজারল্যান্ড, দক্ষিণ কোরিয়া ও ভারতেও দেখা গেছে।

১৫ মে রাজধানী ঢাকার এভারকেয়ার হাসপাতালে সাড়ে ৩ মাস বয়সী এক নবজাতকের শরীরে রোগটি শনাক্ত হয়। মূলত করোনা ভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে কোনো শিশু এলেই সংক্রমণ হওয়ার ঝুঁকি থাকে। বাংলাদেশে এই পর্যন্ত এভারকেয়ার হাসপাতালে ১৫টি শিশু চিকিৎসা নিয়ে সুস্থও হয়েছে।

এভারকেয়ার হাসপাতালের কনসালট্যান্ট ডা. তাহেরা নাজরীন বলেন, এমআইএসসি রোগে আক্রান্ত শিশুদের প্রধান লক্ষণ হলো– তীব্র জ্বর, ডায়রিয়া, পেটব্যথা, বমি, শ্বাসকষ্ট এবং বুকে ব্যথা, খাবারের প্রতি অনীহা, চোখ-ঠোঁট এবং জিহ্বা লাল হয়ে যাওয়া। জ্বরের পর এসব লক্ষণ একই সঙ্গে কিংবা একটি-একটি করেও দেখা দিতে পারে।

তিনি আরও বলেন, এতে শিশুদের হার্টঅ্যাটাকও হতে পারে। এমনকি নিম্নরক্তচাপও সৃষ্টি হতে পারে। সঠিক সময় হাসপাতালে আনা না হলে রোগীর মারাত্মক সংক্রমণও দেখা দিতে পারে। এমনকি নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্র কিংবা আইসিইউতে নেওয়া লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...