The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ভারতের মধুরা ভট্টাচার্যের সঙ্গে দ্বৈত গানে বাংলাদেশের শিশির [ভিডিও]

এই গানটির কথা লিখেছেন সবুজ সানী। রেজোয়ান শেখের সংগীতে গানটিতে সুরারোপ করেন কণ্ঠশিল্পী শিশির নিজেই

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ কোলকাতা এবং মুম্বাইয়ের প্লে-ব্যাক সিঙ্গার মধুরা ভট্টাচার্য এবং বাংলাদেশের প্রতিশ্রুতিশীল কণ্ঠশিল্পী শিশিরের দ্বৈত গান ‘বৃষ্টি এলেই’ প্রকাশিত হয়েছে এই ঈদে।

ভারতের মধুরা ভট্টাচার্যের সঙ্গে দ্বৈত গানে বাংলাদেশের শিশির [ভিডিও] 1

এই গানটির কথা লিখেছেন সবুজ সানী। রেজোয়ান শেখের সংগীতে গানটিতে সুরারোপ করেন কণ্ঠশিল্পী শিশির নিজেই। মুম্বাইয়ের ‘গীতি অডিও ক্রাফট স্টুডিও’তে গানটি রেকর্ডিং হয়েছিলো অনেক আগে সেই ২০১৯ সালের জুলাই মাসে।

ইতিপূর্বে শিশিরের ‘একটা স্বপ্ন’, ‘অগোছালো প্রেম’, ‘তুই আমার অন্তরে’, ‘জোছনার লুকোচুরি’ এবং ‘হৃদয় জুড়ে তুমি’ গানগুলো শ্রোতাদের ভীষণভাবে মুগ্ধ করেছিলো।

অপরদিকে ভারতের মধুরা ভট্টাচার্য জি বাংলা এবং স্টার জলসা সিরিয়ালে ‘বোঝে না সে বোঝে না’, ‘তোমায় ছাড়া ঘুম আসে না মা’সহ বেশকিছু সিরিয়ালের টাইটেল গানে কণ্ঠ দিয়ে ব্যাপক আলোচিত হয়ে ওঠেন।

কোলকাতার চলচ্চিত্রে ‘কি করে তোকে বলবো’, ‘ডারলিং’, ‘হাঁটিহাঁটি পায়ে পায়ে’, ‘ভাইজান এলো রে’, ‘মম চিত্তে’, ‘তোমাকে চাই’, ‘মনের কথা বলো’সহ বেশকিছু জনপ্রিয় গান রয়েছে তাঁর কণ্ঠে গাওয়া। মুম্বাই চলচ্চিত্রাঙ্গনেও ধীরে ধীরে জায়গা করে নিতে চলেছেন এই গুণী কণ্ঠশিল্পী।

‘শিশির অফিসিয়াল’ ইউটিউব চ্যানেলে ৬ আগস্ট প্রকাশ হওয়া ‘বৃষ্টি এলেই’ গানটি সম্পর্কে শিশির বলেন, আমার অনেক দিনের ইচ্ছে ছিলো যে মধুরার সাথে একটি দ্বৈত গানে কণ্ঠ দেবো। তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি আমাকে মিউজিক ট্র্যাক নিয়ে মুম্বাই যেতে বলেছিলেন। গতবছরের জুলাই মাসে মুম্বাইয়ের ‘গীতি অডিও ক্রাফট স্টুডিও’তে মধুরা এবং আমি গানটিতে কণ্ঠ দেওয়ার পরে স্টুডিওপার্ট ভিডিও নির্মাণের জন্য ওই স্টুডিওতেই ভিডিও ধারণের কাজ করি। কাজটি সম্পন্ন করতে মধুরার সহযোগিতা দেখে আমি মুগ্ধ হয়েছি। আশা করছি শ্রোতারাও মুগ্ধ হবেন আমাদের গানটি শুনে।

দেখুন গানটি

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...