The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

রাজনৈতিক ছবি ফেসবুক প্রোফাইল পিকচারে রাখা যাবে না

নভেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচন। তার আগেই এমন কড়া সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলো ফেসবুক

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ উঠেছিল আরও আগেই। এবার কড়া সিদ্ধান্ত ফেসবুকের। ব্যক্তিগত পেজের প্রোফাইল পিকচারে কোনও রাজনৈতিক দলের ছবি কিংবা রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের মুখ ব্যবহার করা যাবে না।

রাজনৈতিক ছবি ফেসবুক প্রোফাইল পিকচারে রাখা যাবে না 1

নভেম্বরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচন। তার আগেই এমন কড়া সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলো ফেসবুক। ফেসবুক এই নির্দেশিকা জারি করলো তাদের কর্মীদের জন্যও। ফেসবুকের কোনও কর্মী রাজনৈতিক প্রোপাগান্ডা করার জন্য এই প্ল্যাটফর্মকে ব্যবহার করতে পারবেন না বলেও জানানো হয়েছে। এছাড়াও বিতর্কিত কোনও ইস্যু যেমন- ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারের মতো কোনও ঘটনাকে সামনে রেখে প্রোফাইল পিকচারও তৈরি করা যাবে না বলে জানানো হয়।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেসবুকের কোনও কর্মী কোনও আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন কিংবা কোনও বিশেষ রাজনৈতিক দলকে সমর্থন করেন, তা কোনো অবস্থাতেই প্রকাশ করা যাবে না। নিরপেক্ষ থাকাই মূললক্ষ্য ফেসবুকের। ফেসবুকের মুখপাত্র জো ওসবোর্ণ এক বিবৃতি প্রকাশ করে একথা জানিয়েছেন।

গত সপ্তাহে ফেসবুকের সিইও মার্ক জুকারবার্গ জানিয়েছেন যে, সব ধরনের বিতর্ক এড়াতে ফেসবুক বিশেষ কিছু উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে। খুব দ্রুতই এগুলি কার্যকর করা হবে। কর্মক্ষেত্রে সঠিক পরিবেশ বজায় রাখতে ফেসবুকের এই সিদ্ধান্ত কার্যকরী প্রমাণিত হবে বলেই আশা করা হয়। তবে বিশেষ ফ্রেমও ব্যবহার করা যেতে পারে, যা রাজনৈতিক দল কিংবা কোনও ইস্যুকে সামনে তুলে ধরে।

উল্লেখ্য যে, এমনিতেও ফেসবুকে বিগত কিছুদিন যাবত একাধিক বদল আনা হয়েছে। পাশাপাশি আরও কড়াকড়ি করা হয় পোস্ট করার ক্ষেত্রে। তবে জানা যায় যে, আগামীকাল (১ অক্টোবর) হতে বদলাচ্ছে অনেক নিয়ম। যদিও কিছুদিন ধরেই ফেসবুকের একাধিক গ্রাহক জানিয়েছিলেন বেশ কিছু নোটিফিকেশন তারা পাচ্ছেন। যা নিয়ে গ্রাহকরা বেশ উদ্বিগ্ন ছিলেন। তবে জানানো হয়েছে বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগে পড়ার কোনো কারণ নেই।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...