The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

দাওয়াত পেতে এক ফকির সভাপতির অদ্ভুত কাণ্ড!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ দিনে দিনে ডিজিটাল যুগে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ। বলা যায় এই যুগে কোনো কিছুই যেনো পিছিয়ে নেই।

দাওয়াত পেতে এক ফকির সভাপতির অদ্ভুত কাণ্ড! 1

এই ডিজিটাল যুগকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের দাওয়াত পেতে ফকিরের এক সভাপতি অদ্ভুত এক কাণ্ড ঘটিয়েছেন। বিভিন্ন স্থানে হরেক রকম পোস্টার চোখে পড়লেও এর মধ্যে এক কিংবা দুটো ভিন্ন খবরের পোস্টারও রয়ে যায়। যা খুব অল্পতেই সবার চোখের সামনে চলে আসে।

দেশের সর্ব উত্তরের জেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় ফকির দাওয়াতসহ কুলখানি এবং দোয়া মাহফিলের দাওয়াত পেতে ফকিরের এক সভাপতি গাছে গাছে পোস্টারিং করে রেখেছেন। এমনই এক ঘটনা চোখে পড়ে উপজেলার দেবনগড় ইউনিয়নের দেবনগড় বাজারে গেলে। খবর নিয়ে জানা গেছে, একই রকমের পোস্টার একই ইউনিয়নের মাগুরমাড়ি চৌরাস্তা বাজারের বিভিন্ন গাছেও লাগানো হয়।

সম্প্রতি দেখা গেছে, বেশ কিছু গাছে পেরেক দিয়ে টাঙানো রয়েছে ওই পোস্টার। এক গাছের কাছে গিয়ে দেখা যায় যে, গিয়াস উদ্দীন ফকির নামে এক ফকির নিজেকে ৭ নম্বর দেবনগড় ইউনিয়নের ফকিরের সভাপতি দাবি করে দাওয়াত পেতে নিজের মোবাইল ফোন নম্বর ঠিকানাসহ গাছে গাছে পোস্টারিং করেছেন।

ওই পোস্টারে লেখা হয়েছে যে, ‘এখন থেকে ফকির দাওয়াত, কুল ও দোয়া কালামের জন্য ফকিরের প্রয়োজন হলে যোগাযোগ করুন- দেবনগড় ইউনয়ন ফকির সভাপতি গিয়াস উদ্দীন ফকির। ‘ সেখানে ঠিকানা দেওয়া হয়েছে মাগুরমারি চৌরাস্তা বাজার বটতলা।

এই বিষয়ে জানতে চেয়ে যোগাযোগ করা হলে মোবাইল ফোনে গিয়াস উদ্দীন ফকির বলেন, অনেক সময় অনেকেই আমাদের কোনো খোঁজ পায় না। যার কারণে দেবনগড় ইউনিয়নে আমরা প্রায় ৩ মাস ধরে এই পোস্টারের ব্যবস্থা করেছি। এই পোস্টারের মাধ্যমে মোটামুটি ভালো সাড়াও পাচ্ছি। যদি কারও ফকির দাওয়াত, কুলখানি ও দোয়া কালাম হয়ে থাকে তারা আমাদের ফোন দেন, তখন আমরা ২-৩ জন চলে যায়। আমরা তাদের বাড়িতে গেলে সেখানে সারাদিন সময় দেওয়ার জন্য লোক প্রতি ৩শ’ টাকা নিয়ে থাকি। তবে বড়লোক পরিবারের কারও দাওয়াত হয়ে থাকলে তারা ৫শ’ বা একটু বেশিই দিয়ে থাকে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...