The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

মহাকাশে নাসার স্পেস এক্স-এর ড্রাগন

উৎক্ষেপণের সময় ফ্লোরিডার স্পেস স্টেশনে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেনস

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ ফ্লোরিডার মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র হতে তিন মার্কিন এবং এক জাপানি মহাকাশচারীকে নিয়ে মহাকাশের স্পেস স্টেশনে পৌঁছে গেছে নাসার স্পেস এক্স-এর ড্রাগন মহাকাশযানটি।

মহাকাশে নাসার স্পেস এক্স-এর ড্রাগন 1

সেখানে অন্য মহাকাশচারীদের সঙ্গে আগামী ৬ মাস কাজ করবেন এই চার মহাকাশচারী। এরপর স্পেস এক্স-এর মহাকাশযানে চড়েই তারা আবার ফিরে আসবেন পৃথিবীতে।

সোমবার নাসা জানিয়েছে যে, পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের অরবিট ভেদ করে ড্রাগন মহাকাশে ঠিকভাবেই পৌঁছে গিয়েছে। সফল উৎক্ষেপণের পর সদ্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী জো বাইডেন নাসা ও অভিযাত্রীদের অভিনন্দনও জানিয়েছেন। বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও টুইটে লিখেছেন যে, ‘গ্রেট’।

চারজন মহাকাশচারী মাইকেল হপকিন্স, ভিক্টর গ্লোভার, শ্যানন ওয়াকার ও সইচি নগুচি রবিবার গ্রিনিচ সময় রাত ১২টা ২৭ মিনিটে ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার হতে মহাকাশে যাত্রা শুরু করেন।

উৎক্ষেপণের সময় ফ্লোরিডার স্পেস স্টেশনে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেনস। তিনি বলেছেন যে, এই দিনের ঘটনা আমেরিকার মহাকাশ গবেষণায় এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা হয়েছে।

এ বছরের ঠিক মাঝামাঝি সময় ফ্লোরিডায় নাসার গবেষণা কেন্দ্র হতে পরীক্ষামূলকভাবে মহাকাশে গিয়েছিল স্পেস এক্স-এর ড্রাগন। সেই মহাকাশযানেও ছিলেন মহাকাশচারী। তবে রবিবার ফ্লোরিডা হতে যে ৪ জন মহাকাশচারীকে পাঠানো হয়, তারা আগামী ৬ মাস মহাকাশের স্পেস স্টেশনে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ গবেষণাতেও অংশ নেবেন।

এতোদিন মহাকাশের স্পেস স্টেশনে মহাকাশচারীদের আনা-নেওয়ার কাজ করে আসছিলো রাশিয়ার সয়ুজ মহাকাশযান। স্পেস এক্স-এর ‘ড্রাগন’ বহুদিনের সেই নিয়মে খানিকটা পরিবর্তন এনেছে। মূলত রাশিয়ার মহাকাশযানের চেয়েও এই মহাকাশযান আরও দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্পেস স্টেশনে পৌঁছাতে সক্ষম বলে জানিয়েছে নাসা।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...