The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

যে পাপ করলে আল্লাহ দুনিয়াতেই শাস্তি দেন

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ কেওই নিষ্পাপ নন। কোনো না কোনো পাপ দুনিয়াতে হয়েই যায়। তবে সেই পাপের একটা পরিধি রয়েছে। আমরা যদি বড় পাপ থেকে বাঁচতে না পারি তাহলে দুনিয়াতেও শাস্তি পেতে হবে। আজ জেনে নিন যে পাপ করলে আল্লাহ দুনিয়াতেই শাস্তি দেন।

যে পাপ করলে আল্লাহ দুনিয়াতেই শাস্তি দেন 1

কেওই নিষ্পাপ নন। কোনো না কোনো পাপ দুনিয়াতে হয়েই যায়। তবে সেই পাপের একটা পরিধি রয়েছে। আমরা যদি বড় পাপ থেকে বাঁচতে না পারি তাহলে দুনিয়াতেও শাস্তি পেতে হবে। আজ জেনে নিন যে পাপ করলে আল্লাহ দুনিয়াতেই শাস্তি দেন।

ইচ্ছায় হোক বা অনিচ্ছায় সবাই কম বেশি পাপ করে থাকেন অনেকেই। একমাত্র নবী-রাসুলরাই গুনাহ হতে মুক্ত। পাপ করা থেকে বড় অপরাধ হলো পাপ করার পর তা থেকে বাঁচার জন্য তাওবা না করা, সঠিক পথে ফিরে না আসা, অনুতপ্ত না হওয়া ও আবারও সেই পাপ করা।

আল্লাহর প্রকৃত প্রেমিকরা পাপ করার সঙ্গে সঙ্গে তাওবা করে ফেলেন। সবারই জানা উচিত যে পাপের অবশ্যই একটা শাস্তি রয়েছে। যদিও আল্লাহ তাআলা অত্যন্ত ক্ষমাশীল। ক্ষমা করা হলো তাঁর দয়া ও শাস্তি দেওয়া হলো তাঁর আদল বা ন্যায়বিচার। আল্লাহ তাআলা কোনো কোনো পাপের শাস্তি এই দুনিয়াতেই দিয়ে থাকেন। আবার কোনো কোনো পাপের শাস্তি দেওয়ার জন্য পরকালের জন্য অপেক্ষা করেন।

কয়েকটি জঘন্যতম পাপের শাস্তি আল্লাহ তাআলা এই দুনিয়ায়ই দিয়ে থাকেন। মহানবী (সা.) বলেছেন যে–

# কোনো জাতি অঙ্গীকার ভঙ্গ করলে তখন আল্লাহ তাআলা শত্রুদের তাদের ওপর চাপিয়ে দেন।

# আল্লাহ প্রদত্ত বিধান ছাড়া বিচার ফায়সালা করা হলে তাদের মধ্যে চরম দারিদ্র্য বিস্তারলাভ করে।

# কোনো জাতির মধ্যে ব্যভিচার বিস্তারলাভ করলে তাদের মধ্যে তখন মহামারি ছড়িয়ে পড়ে।

# কোনো জাতি পরিমাপে এবং ওজনে কম দিলে তাদের ফসলহানির ঘটনা ঘটে ও দুর্ভিক্ষ হয়।

# কোনো জাতি যদি যাকাত দিতে অস্বীকার করে, তাহলে তাদের মধ্যে বৃষ্টি বন্ধ করে দেওয়া হয় (বাজজার, মুয়াত্তা)।

তাই আমাদের উপরোক্ত পাপ থেকে অবশ্যই দূরে থাকতে হবে। তাহলে মহান রাব্বুল আলামিন আমাদের রক্ষা করবেন। আল্লাহ আমাদের সকল শক্ত গোনাহ বা কবিরা সগিরা গোনাহ হতে আমাদের হেফাজত করুন- আমিন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...