The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

হিজড়াদের জন্য মাদ্রাসা চালু করলো পাকিস্তান

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ পাকিস্তান সরকার হিজড়াদের সমাজবিরোধী কার্যকলাপ হতে সরিয়ে আনতে প্রথমবারের মতো তাদের জন্য ব্যক্তি উদ্যোগে মাদ্রাসা চালু করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

হিজড়াদের জন্য মাদ্রাসা চালু করলো পাকিস্তান 1

এই বিষয়ে হিজড়াদের মাদ্রাসাপ্রধান রিনা খান বলেছেন, বেশিরভাগ পরিবারই হিজড়াদের গ্রহণ করে না। তাদের বাড়ি হতে বের করে দেওয়া হয়। যে কারণে হিজড়ারা বাধ্য হয়েই অন্যায় কাজ এবং বিভিন্ন সমাজবিরোধী কর্মকাণ্ডে যুক্ত হয়ে পড়ে।

তিনি আরও বলেন, এক সময় আমিও তাদের মধ্যেই একজন ছিলাম। কান্না আটকে রেখে রিনা খান নিজের খারাপ সময়ের কথা স্মরণ করে বলেন, তার পরিবার ১৩ বছর বয়সেই অস্বীকার করেছিল তাকে। পরে তিনি বাধ্য হন ভিক্ষা করতে। ১৭ বছর বয়সে তিনি একটি হিজড়া দলে যোগ দেন। বিয়ে এবং অন্যান্য অনুষ্ঠানে তাদেরকে দিয়ে নাচানো হতো। পরে তিনি এসব কাজ ছেড়ে দেন।

ব্যাতিক্রমী এবং পিছিয়ে পড়া একটি জনগোষ্ঠীর জন্য প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসার প্রধান রিনা আরও বলেন, এই কাজে সরকারের সহায়তা কখনও পাননি। তবে শিক্ষার্থীদের চাকরির জন্য সহায়তা করবেন বলে কিছু কর্মকর্তা প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন।

রিনা খান মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের সেলাই প্রশিক্ষণ দেন। কিছু অনুদানের পাশাপাশি তহবিল সংগ্রহের আশায় ছাত্রদের সেলাই ও হাতের কাজ শেখাচ্ছেন রিনা খান। এতে করে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থাও করা সম্ভব হবে।

পাকিস্তান সরকার ২০১৮ সালে তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) মানুষদের স্বীকৃতি দেয়। ভোটাধিকারও দেওয়া হয় তাদের। তবুও হিজড়ারা এখনও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মধ্যেই রয়ে গেছে। জীবিকা নির্বাহের জন্য অনেকেই ভিক্ষা, নাচ এবং বেশ্যাবৃত্তির কাজও করে।

দেশটির ইসলামাবাদের জেলা প্রশাসক হামজা শফকাত বলেছেন, ‘মাদ্রাসাটি মূলধারার সমাজে তাদের একীভূত করতে সহায়তাও করতে পারে। আমি আশাবাদী যদি অন্য শহরগুলোতে এই ব্যবস্থা করা যায় তাহলে উন্নতি হবে।’

উল্লেখ্য, পাকিস্তানের ২০১১ সালের আদমশুমারিতে দেশটিতে প্রায় ১০ হাজার হিজড়ার বসবাসের কথা বলা হলেও ট্রান্স রাইটস গ্রুপগুলো বলছে যে, সংখ্যাটি ৩ লাখেরও বেশি হতে পারে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর

অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...