The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

ফাইভজি ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০২১ সালের শেষে দাঁড়াবে ৫০ কোটিরও বেশি

দ্রুততম সময়ে গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির দৌড়ে এগিয়ে যাচ্ছে ফাইভজি। প্রতিদিন বাড়ছে প্রায় ১০ লাখ নতুন গ্রাহক

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ এরিকসন মোবিলিটি এক রিপোর্টে উল্লেখ করেছে যে, ২০২১ সালের শেষে ফাইভজি ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়াবে ৫০ কোটিরও বেশি।

ফাইভজি ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২০২১ সালের শেষে দাঁড়াবে ৫০ কোটিরও বেশি 1

এরিকসন মোবিলিটি এক রিপোর্টে উল্লেখ করেছে যে, ২০২১ সালের শেষে ফাইভজি ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়াবে ৫০ কোটিরও বেশি। বলা হয়েছে, অত্যন্ত দ্রুততম সময়ে গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধির দৌড়ে এগিয়ে যাচ্ছে ফাইভজি। প্রতিদিন বাড়ছে প্রায় ১০ লাখ নতুন গ্রাহক।

এ বছরের প্রথম প্রান্তিকে ফাইভজি সক্ষম ডিভাইস ব্যবহার করে ফাইভজি সেবা ব্যবহার বেড়েছে ৭ কোটি। ধারণা করা হচ্ছে যে, ২০২১ সালের মধ্যে এ সংখ্যা ৫৮ কোটিতে পৌঁছাবে। ২০২১ সালের প্রথম প্রান্তিকে ফাইভজি ব্যবহার করা যায় এমন ডিভাইসের সংখ্যা ৭ কোটি বৃদ্ধি পেয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে যে, ২০২১ সালের শেষের দিকে সংখ্যাটি ৫৮ কোটিতে পৌঁছাবে।
২০২৬ সাল নাগাদ দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া ও ওশেনিয়া অঞ্চলে প্রতি স্মার্টফোনে ডাটা আদান-প্রদানের হার সর্বোচ্চ হবে এবং ফাইভজি ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৪০ কোটিতে পৌঁছাবে।

এরিকসনের (ন্যাসড্যাক: ইআরআইসি) ধারণা অনুযায়ী বলা হয়েছে, প্রতিদিন আনুমানিক ১০ লাখ নতুন গ্রাহক বাড়ার মাধ্যমে ২০২১ সালের শেষে ফাইভজি মোবাইল গ্রাহক ৫৮ কোটি ছাড়িয়ে যাবে।

এরিকসন মোবিলিটি প্রতিবেদনের ২০তম সংস্করণের পূর্বাভাস অনুযায়ী জানা যায়, ফাইভজি ইতিহাসের সবচেয়ে দ্রুত গ্রাহক বৃদ্ধি পাওয়া মোবাইল জেনারেশন হতে যাচ্ছে। প্রতিবেদনে ধারণা করা হয় যে, ২০২৬ সালের শেষে ফাইভজি গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়াবে ৩৫০ কোটিতে, যা হবে মোট জনসংখ্যার ৬০ শতাংশ। তবে, ফাইভজি প্রযুক্তি গ্রহণ করার প্রবণতা অঞ্চল অনুসারে ভিন্ন। এক্ষেত্রে, ইউরোপের দেশগুলো ধীরগতিতে এগুচ্ছে। ফাইভজি সম্প্রসারনের দৌড়ে চীন, যুক্তরাষ্ট্র, কোরিয়া, জাপান ও
গালফ কো-অপারেশন কাউন্সিলের (জিসিসি) দেশগুলোর চেয়ে পিছিয়ে আছে ইউরোপ।

আশা করা হচ্ছে যে, ফাইভজি নেটওয়ার্ক ফোরজি এলটিই’র সময়সীমার দুই বছর আগেই শতাধিক কোটি গ্রাহকের মাইলফলক অর্জন করবে। এর পেছনে অন্যতম কারণ হলো, শুরু থেকেই ফাইভজি উন্নয়ন ও বিকাশে চীনের প্রতিশ্রুতি এবং বাণিজ্যিক ফাইভজি ডিভাইসের সহজলভ্যতা এবং ক্রমবর্ধমান সাশ্রয়ী মূল্য। ৩শ’র বেশি ফাজভজি স্মার্টফোন মডেল ইতিমধ্যেই বাণিজ্যিকভাবে উন্মোচন করা হয়েছে বা উন্মোচনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। করোনার বৈশ্বিক মহামারি পরবর্তী অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে কানেক্টিভিটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে, আর এর ওপর ভিত্তি করেই আগামী বছরগুলোতে বাণিজ্যিক ফাইভজি’র সম্প্রসারণ ঘটবে।

ধারণা করা হচ্ছে যে, উত্তর পূর্ব এশিয়া হবে ফাইভজি গ্রাহকের সবচেয়ে বড় অঞ্চল। ২০২৬ সালের মধ্যে এই অঞ্চলে আনুমানিক ১৪০ কোটি ফাইভজি গ্রাহক হবে বলে আশা করা হচ্ছে। অন্যদিকে, উত্তর আমেরিকা ও জিসিসি অঞ্চলের বাজার নিয়ে ভাবা হচ্ছে, সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ব্যবহারকারী এ অঞ্চল থেকে ফাইভজি সেবা ব্যবহার শুরু করবে, যেখানে যথাক্রমে সমন্বিতভাবে ফাইভজি গ্রাহক হবে ৮৪ শতাংশ এবং পুরো অঞ্চলের মোবাইলে সেবা ব্যবহারকারী হবে ৭৩ শতাংশ। খবর সংবাদ বিজ্ঞপ্তির।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...