The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

খাওয়া-গোসল সবই চলে ঘুমের মধ্যে: বছরে ৩০০ দিনই ঘুমিয়ে কাটান এক ব্যক্তি!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বিরল এক রোগে আক্রান্ত এক ব্যক্তি বছরে ৩৬৫ দিনের মধ্যে ৩০০ দিনই কাটান ঘুমিয়ে। সে কারনে বাস্তব জীবনের ‘কুম্ভকর্ণ’ খেতাব পেয়েছেন ভারতের রাজস্থানের নাগাউয়ের বাদওয়া গ্রামের বাসিন্দা।

খাওয়া-গোসল সবই চলে ঘুমের মধ্যে: বছরে ৩০০ দিনই ঘুমিয়ে কাটান এক ব্যক্তি! 1

পুরখারাম নামে ৪২ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি অ্যাক্সিস হাইপারসোমনিয়া নামে বিরল এক রোগে আক্রান্ত হয়েছেন।

টাইমস নাউ নিউজের এক খবরে বলা হয়, রামায়ণে রাবণের ছোট ভাইয়ের নাম হলো কুম্ভকর্ণ। তিনি একটানা ৬ মাস পর্যন্ত ঘুমিয়ে কাটাতেন। একজন মানুষকে সাধারণত দিনে ৬-৮ ঘণ্টা ঘুমিয়ে কাটাতে পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে পুরখারাম একটানা ২৫ দিন পর্যন্ত ঘুমিয়ে কাটান। ২৩ বছর আগে তার এই বিরল রোগ ধরা পড়ে।

তার এই বিরল রোগের কারণে মাসে মাত্র ৫ দিন দোকান চালাতে পারেন পুরখারাম। তিনি একবার ঘুমিয়ে পড়লে তাকে জাগিয়ে তোলা এক কথায় কঠিন। প্রথম প্রথম পুরখারামের পরিবার তার চিকিৎসার চেষ্টা করেন। তখন দিনে টানা ১৫ ঘণ্টা করে ঘুমাতেন পুরখারাম।

তবে দিন যতো গড়িয়েছে পুরখারামের ঘুমের পরিমাণও ততোই বেড়েছে। এই ঘুম ঘণ্টা পেরিয়ে তা কয়েকদিনে গড়িয়েছে। তার অবস্থার এতোটাই অবনতি ঘটেছে যে, তিনি এখন এক নাগাড়ে ২৫ দিন পর্যন্ত ঘুমান। তাই ঘুমের মধ্যেই পুরখারামকে খাওয়ায় তার পরিবার। গোসলও করা হয় ঘুমের মধ্যেই। এমনকি কাজ করতে করতেও মাঝে মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন পুরখারাম।

পুরখারাম বলেছেন, চিকিৎসার পাশাপাশি অতিরিক্ত ঘুমানোর পরও তার শরীর অধিকাংশ সময়ই ক্লান্ত থাকে। তার কর্মক্ষমতাও প্রায় নেই বললেই চলে। ঘুম ছাড়াও তার প্রচণ্ড মাথা ব্যথা করে বলেও জানিয়েছেন পুরখারাম। এদিকে পুরখারামের মা কানবারি দেবী ও তার স্ত্রী লিচমি দেবীর আশা যে একদিন সুস্থ হয়ে স্বাভাবিক মানুষের মতোই জীবনযাপন করবেন পুরখারাম।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...