The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

৫ম শ্রেণীর ছাত্রীর স্কুলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে অশালীন ভিডিও পোস্ট!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ স্কুলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রীদের জীববিজ্ঞানের ক্লাস নিচ্ছিলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া গ্রামীণ এলাকার সরকারি একটি বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা। হঠাৎ গ্রুপে শেয়ার করা হয় একটি ভিডিও, যা দেখে স্তম্ভিত হয়ে যান ওই শিক্ষিকা!

৫ম শ্রেণীর ছাত্রীর স্কুলের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে অশালীন ভিডিও পোস্ট! 1

তিনি লক্ষ্য করেন, এক ছাত্রীর মোবাইল থেকে পোস্ট করা হয়েছে একটি পর্ন ভিডিও। তখনই ক্লাস বন্ধ করে তিনি ঘটনাটি প্রধান শিক্ষিকাকে বিষয়টি জানান। প্রধান শিক্ষিকা যোগাযোগ করেন হাওড়া পুলিশের সাইবার ক্রাইম থানার সঙ্গে। বর্তমানে ওই ছাত্রীর কাউন্সেলিং চলছে।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবরে বলা হয়, পরপর করোনা ঢেউয়ের কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঝুঁকি নিতে পারছে না দেশটির সরকার। তাই ‘‍নিউ নর্মাল’ জীবনে পড়াশোনা পুরোটাই ইন্টারনেট ও স্মার্টফোন নির্ভর। অল্পবয়সী শিক্ষার্থীদের হাতে স্মার্টফোন দেওয়ায় ঝুঁকি কতোটা, তা জেনেও নিরুপায় হয়ে ছোটদের হাতে তুলে দিতে হচ্ছে ইন্টারনেটসহ স্মার্টফোন। তবে অল্পবয়সী শিক্ষার্থীদের হাতে শুধু স্মার্টফোন দিলেই হবে না। তাদের প্রতিনিয়ত নজরদারির আওতায় আনতে হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

পশ্চিমবঙ্গ শিশু অধিকার রক্ষা কমিশনও একই ধরনের মন্তব্য করেছেন। কমিশনের সদস্য সুদেষ্ণা বসু বলেন, ইন্টারনেট এখন অপরিহার্য একটি জিনিস। তবে একই সঙ্গে সকলকে জানতে হবে, ইন্টারনেট ব্যবহার করে কিভাবে সাইবার ক্রাইম হয়ে থাকে। এ বিষয়ে আমরা প্রতিনিয়ত শিশু-কিশোর-কিশোরীদের কাউন্সেলিং এর ব্যবস্থা করছি। সচেতনতামূলক একটি গানও তৈরি হয়েছে। ভিডিওর মাধ্যমে সেটি ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে বিভিন্ন জেলায় জেলায়। আমাদের লক্ষ্যই হলো, কিশোর-কিশোরীরা যেনো ইন্টারনেটের অপব্যবহার সম্পর্কে সচেতন হন। আর এই গুরু দায়িত্বটি পালন করতে হবে অভিভাবকদের। তা নাহলে আমরা এই অপব্যবহার রোধ করতে পারবো না।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের সার্জিক্যাল মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...