The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

স্ত্রীর চিতায় ঝাঁপ দিলেন এক স্বামী!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ হিন্দু ধর্মে এক সময় ছিলো সহমরণ। তবে সেটি ছিলো বাধ্যতামূলক এবং স্বামীর চিতায় স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারার মতো ঘটনা। তবে এবার এক ভালোবাসার নজির স্থাপন করলেন একজন স্বামী। তিনি স্ত্রীর চিতায় ঝাঁপ দিলেন!

স্ত্রীর চিতায় ঝাঁপ দিলেন এক স্বামী! 1

গতমাসে ভারতের ওড়িশার কালাহাণ্ডির ঘটনা কিছুটা সেই সহমরণের ঘটনাকেই মনে করিয়ে দিয়েছে। যদিও এক্ষেত্রে ঘটনাটা ঘটেছে ঠিক একেবারে উল্টো। কালাহাণ্ডিতে স্ত্রীর চিতায় ঝাঁপ দিয়েছেন স্বয়ং একজন স্বামী। একেবারেই স্ব-ইচ্ছায়।

ভালোবাসার মানুষটাকে একলা ছেড়ে দিতে মন চায়নি স্বামীর একেবারেই। সে কারণেই হয়তো স্ত্রীর সঙ্গেই পরপারে যেতে চেয়েছিলেন ওই স্বামী। তাই ভালোবাসার সেই অমোঘ টানের কাহিনীই এখন মুখে মুখে ফিরছে ভারতের কালাহাণ্ডিতে।

মৃত স্ত্রীর নাম রায়বতী সবর। তার বয়স ৫৭ বছর। ভারতের ওড়িশার কালাহাণ্ডির গোলামুণ্ডা ব্লকের ওই বাসিন্দা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। তবে স্ত্রীর মৃত্যু একেবারেই মেনে নিতে পারেননি তার স্বামী নীলমনি সবর। ৬০ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি স্থানীয় পঞ্চায়েতের একজন সদস্য। স্ত্রীকে চিরদিনের মতো হারিয়ে শোকে কাতর স্বামী ঝাঁপ দেন স্ত্রীর জ্বলন্ত চিতায়। এতেকরে তিনি মারাত্মকভাবে অগ্নিদগ্ধও হয়েছেন।

কালাহাণ্ডির এসপি বিবেক সারভানা জানিয়েছেন যে, মঙ্গলবার ওই নারী মারা যান। তার স্বামী এবং চার সন্তান ও আত্মীয়রা দাহ করার জন্য দেহ নিয়ে গ্রামের শ্মশানে গিয়েছিলেন। তারপর শ্মশানের আচার অনুষ্ঠান পালন শেষে দেহটি চিতায় তোলা হয়। শ্মশান থেকে সকলে যখন বাড়ি চলে যাচ্ছেন সেই সময় উপস্থিত সবাইকে অবাক করে দিয়ে নীলমনি আচমকাই ছুটে গিয়ে চিতায় ঝাঁপ দেন।

স্থানীয় এসপি সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, আত্মীয়-স্বজনরা তাকে ওই জ্বলন্ত চিতা থেকে নামানোর আগেই তিনি অনেকটা দগ্ধ হয়েছেন এবং চিকিৎসার জন্য তাকে তাৎক্ষণাত হাসপাতালে নেওয়া হয়।

তথ্যসূত্র: https://news.dgmartpro.com

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...