The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

৪৩ বছর আগের শেয়ারের দাম উঠেছে সাড়ে ১৪শ কোটি!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ আজকের কথা নয় সেই ৪৩ বছর আগের কথা। এক সংস্থার সাড়ে ৩ হাজার শেয়ার কিনেছিলেন ভারতের কেরলের কোচির বাসিন্দা বাবু জর্জ ভালাভি। সেই শেয়ারের বর্তমান মূল্য উঠেছে প্রায় ১৪৪৮ কোটি টাকা!

৪৩ বছর আগের শেয়ারের দাম উঠেছে সাড়ে ১৪শ কোটি! 1

বাবু জর্জ ভালাভির দাবি, হিসেব অনুযায়ী ওই সংস্থার ২.৮% অংশীদারিত্ব এখন তারই হাতে রয়েছে। তবে এই বিপুল অঙ্কের টাকা দিতে সংস্থাটি নাকি অস্বীকার করছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী জানা যায়, জর্জ ভালাভির দাবি হলো, ৪৩ বছর আগে তিনি ও তার চার আত্মীয় মিলে দেশটির মেবার অয়েল অ্যান্ড জেনারেল মিলস লিমিটেড-এর সাড়ে ৩ হাজার শেয়ার কিনেছিলেন। তবে এতোদিনে সেগুলোর কোনও খবরই ছিল না। সম্প্রতি জর্জ তার পুরনো কাগজপত্র ঘেঁটে দেখার সময় ওই বিনিয়োগের বেশ কিছু কাগজপত্র খুঁজে পান। উদয়পুরের ওই সংস্থা হতে কেনা শেয়ারের নথি নিয়ে খোঁজ নেওয়া শুরু করেন তিনি।

আর তখনই তিনি জানতে পারেন, যে শেয়ার তিনি কিনেছিলেন, তার বর্তমান মূল্য দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৪৪৮ কোটি টাকায়। জর্জ আরও জানতে পারেন যে, তিনি যে সময়টিতে শেয়ারগুলো কিনেছিলেন, সেই সময় উদয়পুরের ওই সংস্থা শেয়ার বাজারের নথিভুক্ত কোনো সংস্থায় ছিল না। তবে বর্তমানে ওই সংস্থার নাম বদলে পিআই ইন্ডাস্ট্রিজ হয়েছে। একইসঙ্গে সেটি শেয়ার বাজারের নথিভুক্ত সংস্থার তালিকাতেও উঠেছে।

২০১৫ সালে জর্জের ছেলে যখন শেয়ারের ওই কাগজপত্রগুলো দেখেন, তিনি সেই নথি নিয়ে শেয়ারের এক এজেন্টের সঙ্গে যোগাযোগ করেন উপায় বের করার জন্য। ওই এজেন্ট তাকে সংশ্লিষ্ট সংস্থাটির সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করার পরামর্শ দিয়েছিলেন। জর্জ এবং তার ছেলে মিলে তখন ওই সংস্থার অফিসে গেলে তাদের বলা হয় যে, ওই শেয়ার ১৯৮৯ সালে অন্য ব্যক্তিদের হস্তান্তর করে দেওয়া হয়েছে। এই কথা শুনে স্তম্ভিত হন তারা। আসল নথি রয়েছে তাদের কাছে, তাহলে সেই শেয়ার হস্তান্তর হয়ে গেলো কীভাবে!

জর্জ অভিযোগ করেছেন, অবৈধভাবে তার শেয়ার অন্যদের কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন পিআই ইন্ডাস্ট্রিজ। তাই তিনি বিষয়টি নিয়ে এখন সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়া (সেবি)-র কাছে গেছেন তাদের অভিযোগ নিয়ে।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...