The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

বর্ষিয়ান সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী আর নেই

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ বর্ষিয়ান সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী আর নেই। আটাশি বছরের বর্ণাঢ্য জীবনের ইতি টানলেন। একুশের গানের রচয়িতা ও কলাম লেখক ছিলেন আব্দুল গাফফার চৌধুরী।

বর্ষিয়ান সাংবাদিক আবদুল গাফফার চৌধুরী আর নেই 1

আজ (বৃহস্পতিবার) সকালে লন্ডনের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু ঘটেছে। এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন একুশে পদক প্রাপ্ত সাংবাদিক স্বদেশ রায়।

বর্ষীয়ান লেখক এবং সাংবাদিক আব্দুল গাফফার চৌধুরী দীর্ঘদিন যাবত বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের লন্ডনের মিডলসেক্সের এজোয়ারের মেথুইন রোডের ৫৬ নম্বর বাড়িতে তিনি স্থায়ীভাবে বসবাস করতেন।

যুক্তরাজ্যপ্রবাসী স্বনামধন্য এই সাংবাদিক স্বাধীনতাযুদ্ধে মুজিবনগর সরকারের মাধ্যমে নিবন্ধিত স্বাধীন বাংলার প্রথম পত্রিকা সাপ্তাহিক জয় বাংলার প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে ছিলেন। তিনি ভাষা আন্দোলনের স্মরণীয় গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’র রচয়িতা ছিলেন।

বিশিষ্ট সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফফার চৌধুরী ১৯৩৪ সালের ১২ ডিসেম্বর বরিশাল জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার উলানিয়া গ্রামে চৌধুরী বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন।

তার বাবা ছিলেন হাজি ওয়াহিদ রেজা চৌধুরী এবং মা মোসাম্মৎ জহুরা খাতুন। ৩ ভাই, ৫ বোনের মধ্যে বড় ভাই হোসেন রেজা চৌধুরী এবং ছোট ভাই আলী রেজা চৌধুরী। বোনেরা হলেন মানিক বিবি, লাইলী খাতুন, সালেহা খাতুন, ফজিলা বেগম এবং মাসুমা বেগম।

সাংবাদিকতা ছাড়াও গল্প, উপন্যাস, স্মৃতিকথা, ছোটদের উপন্যাসও লিখেছেন আবদুল গাফফার চৌধুরী। ‘চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান’, ‘ধীরে বহে বুড়িগঙ্গা’, ‘সম্রাটের ছবি’, ‘বাঙালি না বাংলাদেশি’সহ তার প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা প্রায় ৩০টি।

এছাড়া তিনি কয়েকটি পূর্ণাঙ্গ নাটক লিখেছেন। এর মধ্যে রয়েছে ‘একজন তাহমিনা’ ‘রক্তাক্ত আগস্ট’ এবং ‘পলাশী থেকে বাংলাদেশ’, ।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী কলমযোদ্ধার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। জয় বাংলা পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে মডারেটরের ভূমিকা পালন করেন। স্বাধীনতার পর ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক জনপদের প্রধান সম্পাদক ছিলেন তিনি।

তিনি ১৯৭৪ সালের অক্টোবর মাসে লন্ডনে চলে যান। ১৯৭৬ সালে আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী সেখানে ‘বাংলার ডাক’ নামে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদনাও করেন। পরে তিনি ‘নতুন দিন’ এবং ‘পূর্বদেশ’ পত্রিকা বের করেন।

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী প্রবাসে থাকলেও গাফ্ফার চৌধুরী আমৃত্য বাংলাদেশের প্রধান সংবাদ মাধ্যমে নিয়মিতভাবে কলাম লিখে গেছেন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

# সব সময় ঘরে থাকার চেষ্টা করি।
# জরুরি প্রয়োজনে বাইরে বের হলে নিয়মগুলো মানি, মাস্ক ব্যবহার করি।
# তিন লেয়ারের কাপড়ের মাস্ক ইচ্ছে করলে ধুয়েও ব্যবহার করতে পারি।
# বাইরে থেকে ঘরে ফেরার পর পোশাক ধুয়ে ফেলি। কিংবা না ঝেড়ে ঝুলিয়ে রাখি অন্তত চার ঘণ্টা।
# বাইরে থেকে এসেই আগে ভালো করে (অন্তত ২০ সেকেণ্ড ধরে) হাত সাবান বা লিকুইড দিয়ে ধুয়ে ফেলি।
# প্লাস্টিকের তৈরি পিপিই বা চোখ মুখ, মাথা একবার ব্যবহারের পর অবশ্যই ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে শুকিয়ে ব্যবহার করা যেতে পারে।
# কাপড়ের তৈরি পিপিই বা বর্ণিত নিয়মে পরিষ্কার করে পরি।
# চুল সম্পূর্ণ ঢাকে এমন মাথার ক্যাপ ব্যবহার করি।
# হাঁচি কাশি যাদের রয়েছে সরকার হতে প্রচারিত সব নিয়ম মেনে চলি। এছাড়াও খাওয়ার জিনিস, তালা চাবি, সুইচ ধরা, মাউস, রিমোট কন্ট্রোল, মোবাই, ঘড়ি, কম্পিউটার ডেক্স, টিভি ইত্যাদি ধরা ও বাথরুম ব্যবহারের আগে ও পরে নির্দেশিত মতে হাত ধুয়ে নিন। যাদের হাত শুকনো থাকে তারা হাত ধোয়ার পর Moisture ব্যবহার করি। সাবান বা হ্যান্ড লিকুইড ব্যবহার করা যেতে পারে। কেনোনা শুকনো হাতের Crackle (ফাটা অংশ) এর ফাঁকে এই ভাইরাসটি থেকে যেতে পারে। অতি ক্ষারযুক্ত সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকাই ভালো।

Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx