জেনে নিন দুর্ঘটনায় মানুষের জীবন বাঁচাতে জরুরী কিছু টিপস

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক॥ আমরা এমন এক সময়ে আছি যেখানে রাস্তায় চলার পথে কখন কি বিপদ এসে হাজির হয় তার ঠিক নেই, ফলে আমাদের সবারই দুর্ঘটনায় জরুরী চিকিৎসা টিপস জানা থাকা প্রয়োজন।


hospital

প্রথমেই জেনে নেয়া যাক, যে সকল কারণে মানুষের সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হবার সম্ভাবনা থাকেঃ সড়ক দুর্ঘটনার কারণে আমাদের দেশে প্রতিনিয়ত মৃত্যুর খবর আমরা পেয়ে থাকি। আমাদের কেউই সড়ক দুর্ঘটনার আওতা মুক্ত নয়। কেবল আমাদের দেশেই নয়, উন্নত দেশ সমূহেও সড়ক দুর্ঘটনা হয়ে থাকে এবং এর ফলে মৃতের সংখ্যা নেহায়েত কম নয়।

সড়ক দুর্ঘটনায় মানুষের নানান ক্ষতি সাধন হয় তবে কিছু আঘাত এতই ব্যাপক থাকে যে এর কারণে মৃত্যু ঝুঁকি অনেক বেশী থাকে যেমন – ঘাড় ভেঙে যাওয়া, মাথায় আঘাত পাওয়া, শিরদাঁড়া দুমড়ে যাওয়া কিংবা বুকে গুরুত্বর আঘাত পাওয়া। অনেক সময় ভিক্টিমের আঘাত এতোটাই গুরুত্বর থাকে যে এক্ষেত্রে মস্তিষ্ক এবং বুকে আভ্যন্তরীণ রক্ত ক্ষরণ হতে থাকে, ফলে আহত ব্যক্তিটি মৃত্যুর দিকে চলে যায়। দুর্ঘটনার প্রথম ঘন্টা অনেক ঝুঁকিপূর্ণ। এই কারণে এই সময়টাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় Golden Hour বলা হয়ে থাকে।

এবার চলুন ধাপে ধাপে গুরুতর দুর্ঘটনার ক্ষেত্রে আহতকে বাঁচাতে কিছু টিপস জেনে নিইঃ

ensuresafety

নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন: প্রথমেই আপনাকে ভিক্টিমকে নিরাপদে দুর্ঘটনা স্থল থেকে অন্য কোথাও সরিয়ে নিতে হবে। এবার আহতের ঘাড়ের দিকে ভালো ভাবে লক্ষ্য করুন এবং সেটা সমানভাবে রাখার চেষ্টা করুন যাতে তার Spinal Cord ছিঁড়ে না যায়। আহতের কোথাও যদি কেটে যায়, তার রক্তক্ষরণ বন্ধ করার ব্যবস্থা করুন দ্রুত। কারণ গুরুত্বর আহত না হয়েও কেবল রক্ত ক্ষরণের কারণেই অনেক সময়ে আহত ব্যক্তিটি মৃত্যু ঝুঁকিতে পতিত হতে পারে।

ambulance

এ্যাম্বুলেন্স কিংবা ক্যারিয়ারের ব্যবস্থা করুন: এ্যাম্বুলেন্স আসার মাঝে কিছু সময় আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে এ সময় আপনি অবশ্যই খেয়াল রাখবেন যাতে করে আহত ব্যক্তিটির রক্ত ক্ষরণ বেশী না হয়। যত সম্ভব ব্যান্ডেজ দিয়ে তা কমানোর চেষ্টা করুন এবং আহত ব্যক্তিটির ঘাড়ের ক্ষেত্রে অবশ্যই খেয়াল রাখবেন যাতে এটি সমতলে থাকে এবং বেশী নাড়ানো না হয়। যদি এ্যাম্বুলেন্স আসতে বেশী দেরি হয়, তবে অবশ্যই আহত ব্যক্তিটিকে নিকটস্থ্য স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নেয়ার ব্যবস্থা করুন। এর মাঝে বারবার খেয়াল করুন আহত ব্যক্তিটির শ্বাস-প্রশ্বাস ঠিক মত চলছে কিনা। এবার ভালো একটি হাসপাতালে স্থানান্তর করার ব্যবস্থা করুন। রোগীকে হাসপাতালে ভর্তির পর খেয়াল রাখুন রোগীর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে কিনা। না হলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তার ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান করুন।

bloodloss_600x450

রোগীর জন্য প্রয়োজনীয় রক্ত সংগ্রহে রাখুনঃ আপনি অবশ্যই আপনার কাছের মানুষদের রক্তের গ্রুপ জেনে রাখুন, কারণ বিপদে এটি অত্যন্ত কাজে দিবে। রোগীর রক্তের গ্রুপ অনুসারে সেই গ্রুপের রক্ত দাতা হাতের কাছেই রাখুন।

sleepapnea

রোগীকে আতংকিত হতে দিবেন নাঃ অনেক সময় দুর্ঘটনায় রোগীর নানান সমস্যা হতে পারে যেমন অনেক ক্ষেত্রে রোগীর হাত, পা কিংবা অন্যান্য অঙ্গ কেটে বাদ দিতে হয়। এক্ষেত্রে রোগী অচেতন থাকাতে প্রথমে টের পান না, তবে পরে রোগীর হুঁশ ফিরলে রোগীকে অবস্থার সাথে খাপ খাওয়াতে সাহায্য করুন।

চিকিৎসা পরবর্তী সেবা নিশ্চিত করুন: আপনাকে অবশ্যই রোগীর চিকিৎসা পরবর্তী সেবা নিশ্চিত করতে হবে। যেমন অনেক ক্ষেত্রেই দুর্ঘটনায় আহত রোগীর Infection এর কারণেই মৃত্যু হবার সম্ভাবনা তৈরি হয়। তাই, অবশ্যই আপনার রোগীর পর্যাপ্ত যত্ন নিন।

পরিশেষে এটাই বলতে চাই, আপনার সচেতনতাই পারে আপনার অতি কাছের একজন মানুষের জীবন বাঁচাতে। তাই বাঁচতে হলে এবং বাঁচাতে হলে এসব টিপস নিজে খেয়াল রাখুন এবং অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।

সূত্রঃ Healthmeup.com

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...