সৎ মায়ের অমানুষিক নির্যাতনের শিকার প্রতিবন্ধী শিশু রিদওয়ানের সর্বশেষ অবস্থা! [ছবি ও বিস্তারিত]

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক॥ পাঠক গত সোমবার দি ঢাকা টাইমসে একটি মর্মস্পর্শী প্রতিবেদন তুলে ধরা হয়েছিল, রিদওয়ানের সর্বশেষ কিছু ছবি এবং তার সর্বশেষ অবস্থা নিয়ে এই প্রতিবেদন।


Ridwan1WM

রিদওয়ানের সৎ মায়ের ভয়াবহ কিছু নির্যাতনের চিত্র নিয়ে এই প্রতিবেদন। বিগত ২৬ নভেম্বর রিদওয়ান কে তার সৎ মায়ের বাড়ি থেকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয়, তাকে তাৎক্ষণিক ফেনী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে হাসপাতালের ১নং ওয়ার্ডের ১নং কেবিন থেকে তুলে আনা রিদওয়ানের ছবিতে দেখা যায় তার সারা শরীরে জখমের দাগ! নির্দয় নির্যাতনের চিহ্ন! একটি মানসিক এবং বাক প্রতিবন্ধী শিশুকে যেভাবে নির্যাতন করা হয়েছে তা পশুকেও হার মানায়।

This slideshow requires JavaScript.

রিদওয়ানের বাবা রফিকুল ইসলাম একজন সৌদি আরব প্রবাসী, তার সাথে রিদোয়ানের মা সামছুন নাহার সোনিয়ার ছাড়াছাড়ি হয়ে গেলে রফিকুল ইসলাম আবার বিয়ে করেন এবং রিদওয়ানকে নিজের সাথেই রেখে দেন। পরবর্তীতে রিদওয়ানের সৎ মা এবং বাবা রফিকুল ইসলাম উভয়ে মিলে রিদওয়ানের উপর চালায় দুর্বিষহ নির্যাতন। বিষয়টি জানতেপেরে রিদওয়ানের মা সামছুন নাহার সোনিয়া এবং রিদওয়ানের খালা সাথে কয়েকজন স্থানীয় রেডক্রিসেন্ট সদস্য মিলে রিদওয়ানকে উদ্ধার করে নিয়ে আসেন। পরে তাকে ফেনী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

কিন্তু এখানেই রিদওয়ানের উপর তার বাবা ও সৎ মায়ের কালো থাবার বিস্তার শেষ হয়নি তারা নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে শিশু রিদওয়ানকে পৃথিবী থেকে সরিয়ে দিতে নানান প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। রিদওয়ানের বাবা রফিকুল ইসলাম রিদওয়ানকে তুলে নিতে স্থানীয় কিছু যুবককে ভাড়া করে, তাদের মাঝে রুবেল নামের একজনের ছবি তুলে রাখা হয়। হাসপাতালের সচেতন মানুষের বাঁধার মুখে রুবেল তার দল বল নিয়ে পিছু হটতে বাধ্য হয়।

ছবিতে রুবেল ও তার সঙ্গীরা।
ছবিতে রুবেল ও তার সঙ্গীরা।

রিদওয়ানের মায়ের আইনের সাহায্য নেয়ার মত আর্থিক অবস্থা নেই, একই সাথে রিদওয়ানের বাবা এবং সৎ মায়ের অনেক অর্থ বিত্ত থাকাতে তারা বিভিন্ন ভাবে অর্থ ব্যায় করছেন রিদওয়ানের ঘটনা ধামা চাপা দেয়ার জন্য। রিদওয়ানের নির্যাতনের জন্য মামলা করা হয় ফেনী থানায়। মামলার বিবরণঃ
( ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেল)
মামলা – ফেনী থানা
২৭/১১/২০১৩
মামলা নং- ৩৭

এদিকে হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় রিদওয়ানের শরীরে আঘাত অনেক গভীর ফলে তৈরি হওয়া বিভিন্ন আভ্যন্তরীণ ক্ষতের কারণে রিদওয়ান বর্তমানে আশঙ্কা জনক অবস্থায় রয়েছে। সারাক্ষণ রিদওয়ান শারীরিক ব্যথা এবং ভয়ে ডুকরে কেঁদে উঠছে। এছাড়া দীর্ঘদিন তাকে শারীরিক নির্যাতন করাতে তার মানসিক অবস্থাও ভয়াবহ বিপর্যস্ত।

উন্নত চিকিৎসার জন্য রিদওয়ানকে এখনই ঢাকায় স্থানান্তর প্রয়োজন কিন্তু রিদওয়ানের মায়ের সেই আর্থিক অবস্থা নেই যে তিনি রিদওয়ানকে ঢাকায় এনে চিকিৎসা করাবেন।

আমরা কেউ কি পারিনা রিদওয়ানকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে, রিদওয়ানের বেঁচে থাকা নিশ্চিত করতে? রিদওয়ানের উপর নির্যাতনকারীদের বিচারের আওতায় নিয়ে আসতে?

আপডেট – ডিসেম্বর ০৪, ২০১৩

প্রিয় পাঠক আমরা অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাতে বাধ্য হচ্ছি এখন পর্যন্ত কোন সুহৃদ ব্যক্তি হাসপাতালে শুয়ে থাকা অসহায় শিশু রিদওয়ানের পাশে এসে দাড়ায়নি, বরং রিদওয়ানের নির্যাতনকারিণী সৎ মা ঝুমুরের অর্থের প্রলোভনে উপর মহলের কেউই রেদওয়ানের পাশে এসে দাঁড়াচ্ছেনা। বিভিন্ন ভাবে রিদওয়ানের প্রান নাশের হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। যদি কোন হৃদয়বান মানুষ আইনি অথবা কেবল মানসিক সাহায্য নিয়ে রিদওয়ানের পাশে দাড়াতে চান তবে চলে আসুন ফেনী সদর হাসপাতালের ১নং ওয়ার্ডের ১নং কেবিনে। সেখানেই রিদওয়ান ভর্তি আছে।” রিদওয়ানের বিষয়ে সামাজিক জনমত গড়ে তুলুন নিজ নিজ অবস্থান থেকে, বিষয়টি শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন বন্ধু, বান্ধব, পরিবার সদস্যদের সাথে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...