জাতীয় সংসদে পরমাণু শক্তি কমিশন বিল ২০১২ পাস ॥ রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ ত্বরান্বিত হবে

ঢাকা টাইমস্‌ রিপোর্ট ॥ জাতীয় সংসদে পরমাণু শক্তি কমিশন বিল ২০১২ পাস হয়েছে। এর ফলে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ ত্বরান্বিত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সংসদ প্রতিনিধি জানান, বিদেশী অপারেটরদের পারমাণবিক দুর্ঘটনা সম্পর্কিত দায়ের আওতায় রেখে জাতীয় সংসদে ‘বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ বিল-২০১২’ ৩১ মে পাস হয়েছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন। পরে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়। এর আগে বিলের ওপর দেয়া সংশোধনী, জনমত যাচাই ও বাছাই কমিটিতে পাঠানোর প্রস্তাব নাকচ হয়। বিলে প্রযুুক্তি চুরি এবং গুপ্তচরবৃত্তির জন্য কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৭ মে বিলটি সংসদে উত্থাপন করা হয়। পরে এটি পরীক্ষা করে সংসদে রিপোর্ট দিতে সংসদীয় কমিটিতে পাঠানো হয়। ৩০ মে বিলটির ওপর সংসদে রিপোর্ট জমা দেয় সংশ্লিষ্ট সংসদীয় কমিটি। বিলের উদ্দেশ্য ও কারণ সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রী বলেন, পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ আইন প্রবর্তন হলে বাংলাদেশে পারমাণবিক শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের পথ প্রশস্ত হবে। এতে রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী পাবনার রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ নির্মাণ কাজ ত্বরান্বিত হবে।

এদিকে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ফজলুল আজিমকে বিলের ওপর আলোচনা করতে সময় কম দেয়ায় তিনি অধিবেশন থেকে ওয়াকআউট করেন। বিলে কর্তৃপক্ষের ৩৬টি কাজের বিষয়ে বলা হয়েছে। বিলের ৬৬ ধারায় বলা হয়েছে, সরকারের অনুমতি নিয়ে কর্তৃপক্ষ নিউক্লীয় নিরাপত্তা এবং বিকিরণ সুরক্ষায় জাতীয়, আন্তর্জাতিক, আঞ্চলিক এবং বিদেশী সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান বা এজেন্সির সঙ্গে সহযোগিতা চুক্তি করতে পারবে। বিলের ৫৩ ধারায় এ আইনের অধীন অনুমোদন গ্রহণ করা ব্যক্তি বিধিনিষেধ লংঘন করলে সর্বনিম্ন এক বছর ও সর্বোচ্চ সাত বছর সশ্রম কারাদণ্ড বা নর্বনিম্ন ১০ লাখ থেকে ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদণ্ড বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। নিউক্লীয় স্থাপনায় কোন ব্যক্তি ইচ্ছাকৃত হামলা করলে বা অন্তর্ঘাতমূলক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করলে সর্বনিম্ন পাঁচ বছরের ও সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন। অথবা সর্বনিম্ন ৩০ লাখ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০ লাখ টাকা পর্যন্ত অর্থদণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

উল্লেখ্য, পাবনার ঈশ্বরদীতে পদ্মার তীর ঘেষে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কাজ বর্তমান সরকার হাতে নিয়েছে। এটি বর্তমানে এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করবে। এ বিষয়ে রাশিয়ার সঙ্গে একটি চুক্তিও হয়েছে।

বাংলাদেশ-রাশিয়া সমঝোতা স্মারক সই

বাংলাদেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে দুটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। রাশিয়া সফররত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান ও রাশিয়ার স্টেট এনার্জি কর্পোরেশনের মহাপরিচালক সারগেই কিরিনকো সোমবার এ সমঝোতা স্মারকে সই করেন। এ সমঝোতা চুক্তির আওতায় পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের উন্নয়নে এবং একটি তথ্যকেন্দ্র প্রতিষ্ঠায় যৌথভাবে কাজ করবে উভয় দেশ। স্বাক্ষরিত সমঝোতা চুক্তির একটিতে বাংলাদেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের সব ক্ষেত্রে সহযোগিতার ভিত্তিতে উভয় দেশ যৌথভাবে কাজ করবে। বিশেষ করে পারমাণবিক প্রকল্পে মানবসম্পদ উন্নয়ন, টেকনিক্যাল, অপারেশনাল, প্রশাসনিক, প্রশিক্ষণসহ প্রয়োজনীয় সব ক্ষেত্রে সহযোগিতা দেবে রাশিয়া। অন্য সমঝোতা চুক্তির মাধ্যমে বাংলাদেশে একটি তথ্যকেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করবে রাশিয়া। এতে চলতি বছরই এ তথ্যকেন্দ্র নির্মাণ করার কথা বলা হয়েছে। এ তথ্যকেন্দ্রের মাধ্যমে বাংলাদেশের তরুণ সমাজসহ সব জনগণকে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া হবে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...