পবিরহন সমস্যায় নাকাল রাজধানীবাসী ॥ কর্তৃপক্ষের কোন ভ্রুক্ষেপ নেই! ৩ বছরে পরিবহন কমেছে দেড় হাজার

ঢাকা টাইমস্‌ রিপোর্ট ॥ এমনিতেই যানজটসহ নানা সমস্যায় রাজধানীবাসীকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তারওপর এখন আরো বড় সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে পরিবহন সমস্যা। সকাল এবং সন্ধ্যায় অফিসগামী এবং অফিস ফেরত চাকরিজীবিদের চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে।

রাজধানীতে সমপ্রতি পরিবহন সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। সকালে বাসা হতে বের হয়ে অফিসগামী চাকুরিজীবিদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। বাস স্টপেজে এসে দেখা যায়, কোন বাস নাই। যদিও বা দু’একটি বাস পাওয়া যায় ভিড়ের ঠেলায় তাতে ওঠা একেবারে অসম্ভব ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। এই অবস্থা সামপ্রতিক সময়ে বেড়েছে। প্রতিটি রুটেই পরিবহন সমস্যা দেখা দিয়েছে। মিরপুর ১০ নম্বরে এসে সকালে দেখা যায় কোন বাস নেই। যদিও বা বাস দু’একটি করে আসছে সব হাউস ফুল। তিল ধারণের ঠাই নেই তাতে। তাছাড়া বেশ কিছু রুটে ইদানিং বাস মালিকরা বেশি ভাড়া পাওয়ার আশায় ‘সিটিং সার্ভিস’ চালু করেছেন। যে কারণে পরিবহন সমস্যা আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে। যেখানে লোকাল গাড়িগুলোর ভাড়া মিরপুর ১০ হতে ফার্মগেট পর্যন্ত ৭ বা ৮ টাকা। অথচ ওইসব সিটিং সার্ভিসগুলো ভাড়া নিচ্ছে ১০ থেকে ১২ টাকা। এবং শুধু তাই নয়, যেখানে নামা যাবে সেখানকার ভাড়ায় ১০ বা ১২ টাকা। বিআরটিআই কিভাবে এসব গাড়ির রুট পারমিট দিয়েছে তা একমাত্র আল্লাহই বলতে পারবে!

মতিঝিল থেকে লোকাল বাসে ফার্মগেট পর্যন্ত ভাড়া ৬ টাকা। অথচ সিটিং সার্ভিস লিখে তার ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ১০ টাকা। আবার সব সময় যে সিটিং চলে তাও নয়। মাঝে মধ্যেই দেখা যায়, দাঁড়িয়েও নেওয়া হচ্ছে। এই বেহাল অবস্থা সায়দাবাদ থেকে গাজীপুরের বলাকা পরিবহনেও। বলাকা পরিবহনে লেখা রয়েছে সিটিং সার্ভিস, ভাড়াও নেওয়া হচ্ছে বেশি। কিন্তু বাইরে থেকে গাড়িটি দেখলেই বোঝা যাবে কত যাত্রী দাঁড়িয়ে আছে! এভাবে প্রতিটি রুটে নিয়ম বহির্ভূতভাবে যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া আদায় করা হচ্ছে অথচ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোন নজরদারি নেই।

পরিবহন সমস্যায় রাজধানীবাসী যখন নাকাল ঠিক সেই মুহূর্তে যোগাযোগ মন্ত্রণালয় ঘোষণা দিয়েছে আরও ২ হাজার ট্যাক্সি ক্যাবের অনুমতি দিতে যাচ্ছে বলে জানানো হয়েছে। জানা গেছে, রাজধানীতে পরিবহন ছিল সাড়ে ৫ হাজার। সেখানে গত ৩ বছরে নানা কারণে কমে গেছে দেড় হাজারের মতো। যেখানে রাজধানীর লোক সংখ্যা গত ৫ বছরে প্রায় ৫০% বেড়েছে, সেখানে পরিবহন আরও কমেছে! এই যদি অবস্থা হয় তাহলে রাজধানীবাসী চলাচল করবে কিভাবে। এমনিতেই রাজধানীতে যানজটের কারণে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অসহ্য পরিস্থিতির শিকার হতে হচ্ছে, তার ওপর পরিবহন সমস্যা আজ ‘মরার ওপর খাড়ার ঘা’ হয়ে দেখা দিয়েছে। এই অবস্থা থেকে রাজধানীবাসী নিস্তার চাই।

Advertisements
Loading...