The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

কর্মক্ষেত্রে ৫ ধরনের সবচেয়ে খারাপ সহকর্মীদের যেভাবে সামলাবেন

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ কর্মক্ষেত্রে সহকর্মীদের অসহযোগিতা কম বেশি সবাইকেই ভোগায়, অনেক ভালো সহকর্মীদের মাঝে এমন কিছু সংখ্যক সহকর্মী থাকে যারা কিনা আপনার কর্মক্ষেত্র যন্ত্রণায় বিষিয়ে তুলতে যথেষ্ট ভূমিকা রাখে, এসব সহকর্মীকে কিভাবে সামলাবেন তাই নিয়ে দি ঢাকা টাইমসের আজকের প্রতিবেদন।


a3321e0816d5b66f_shutterstock_94662742.preview

১. খারাপ সংবাদ বাহকঃ

এইসব লোক নেতিবাচক কাজ অত্যন্ত উপভোগ করে। সরবরাহকারী ভুল করেছে, কার্যনির্বাহী চাকুরী হারিয়েছে আর কেউ কিছুতে মাথা ঘামাচ্ছে এ জাতিও খবর দিতে তাদের তর সয় না। কিন্তু যতই তারা এইসব খবর আপনাকে দেয়, ততই তা অবিশ্বাস্য ভাবে আপনাকে নিঃশেষিত করে দেয়। (গবেষণা করে দেখা গেছে কর্মক্ষেত্রে প্রতিবিন্ধকতা একটা বিষাক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে যা আপনার মানসিক, আবেগ আর শারীরিক ভাবে ভাল থাকার উপর বিরূপ প্রভাব ফেলে।)

সমাধানঃ

যদি থাকে বাস্তব সমস্যা মোকাবেলা করতে চলে যান। কেও কথা বলতে চাইলে নীরব ভাবে শুনুন আর কিছু টুকটাক প্রশ্ন করুন যতক্ষন না কথা শেষ হয়। যদি তাও সে আলোচনা শেষ না করে তাহলে “কল আসছে, ধরতে হবে” বা “বিকেলের মিটিং এর জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে” জাতীয় কথা বলতে পারেন।

২. গুজব সঞ্চালকঃ

সচরাচর দেখা যায় কর্মক্ষেত্রে গুজব শেষই হয় না। কেও কিছু শুনলে তার উপর পরতের উপর পরত পড়তে থাকে। যেমন নতুন ম্যানেজার এসেছে, ডিপার্টমেন্টের অর্ধেক লোক চাকুরী হারাচ্ছে অথবা কারো বেতন বৃদ্ধি পাবে না এ জাতীয় কথা বার্তা। সত্য হোক না হোক, এই সব গুজব ঘুরেফিরে চলতেই থাকে। একই লোকই এটা করে। তারা সবার শোচনীয় অবস্থা দেখতে পছন্দ করে।

সমাধানঃ

গুজব সঞ্চালক দের সচরাচর সত্য বলতে দুর্বলতা থাকে। তাই যখনি ভয়ানক বা সন্দেহজনক কিছু শুনবেন তখনি তাকে প্রশ্ন করবেন আদতে এটা সত্য? অথবা কার কাছ থেকে শুনেছ? আপনি এইসব বিশ্বাস করেননি এমনটা বোঝান। এতে গুজব রটনা কারীর মজাই নষ্ট হয়ে যাবে। আরেকটা কাজ করতে পারেন, তাকে মুখের উপর বলে দিতে পারেন, তোমার এই গল্পের সাথে আমি নেই।

৩. নাটুকেঃ

এইসব লোক সহকর্মীদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য নানা ধরনের নাটকের অবতারনা করে। তারা এটা করে শুধু আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে যাওয়ার জন্য। তারা যেকোন বিষয় এমন ভাবে বলবে যেন অন্য কারো এই বিষয়ে বিন্দুমাত্র ধারনা নেই। তারা শুধু গলাবাজি করবে।

সমাধানঃ

এদের প্রতি একেবারেই মনোযোগ দিবেন না কেননা তারা তাই চায়। আপনি যতই তার প্রতি মনোযোগ দিবেন ততই সে আপনাকে পেয়ে বসবে। এই ধরনের আচরন কে উপেক্ষা করুন। পারলে এর উপযুক্ত জবাব দিন।

৪.নেতিবাচক বিবেচকঃ

এদেরকে আপনি যতই সুসংবাদ দেন না কেন, তার খারাপ দিক টা এরা টেনে বের করবেই। তাদেরকে যদি বলেন কাজটা আমরা পেয়েছি, তারা বলবে এটা করা আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়।

সমাধানঃ

এইক্ষেত্রে তার আচরেনের একটা জবাব দেয়া উচিত। তাকে ভদ্র ভাবে বোঝানো উচিত, তার আচরন অন্যদের উপর খারাপ প্রভাব ফেলছে। অধিকাংশ ব্যক্তিই বুঝতে পারে না তাদের আচরন কি রকম নেতিবাচক আর তাদের এই নেতিবাচকতা কিভাবে অন্যদের উপর প্রভাব ফেলছে। তাই ভদ্র ভাবে বুঝালে আপনি তাকে শোধরাতে সাহায্য করবেন এবং তাকে সহায়ক সতীর্থ হিসেবে পাবেন।

৫. দুর্ভাগ্যের শিকারঃ

এরা তাদের দুর্ভাগ্যের জন্য অন্যদেরকে দোষারোপ করে। তারা ক্রমাগত তাদের জীবনে সব খারাপ ঘটছে বলে অভিযোগ করতে থাকে। সবচেয়ে খারাপ দিকটা হল তারা মনে করে তাদের দুর্ভাগ্যের উপর তাদের নিয়ন্ত্রণ নেই। আর সবকিছু তাদের বিরুদ্ধে হচ্ছে। তারা বিশ্বাস করে সার্বজনীন ষড়যন্ত্র তাদের উন্নতি রুখে দিচ্ছে। এই বিষয়ে কথা বলে তারা পছন্দ ও করে।

সমাধানঃ

তাকে উপদেশ দিন। সবকিছু ইতিবাচক ভাবে দেখার পরামর্শ দিন। মাঝে মাঝে তাদের সাথে তাল মেলান।তারপর তাদের কে বলেন ভিন্ন কিছু করতে।

আপনার কর্মক্ষেত্র থেকে এই ৫ ধরনের ব্যক্তি পরিবর্তিত হলে তা হবে সহকর্মীদের নিয়ে কাজ করার সবচেয়ে উপযুক্ত পরিবেশ। চেষ্টা করতে থাকুন।

ধন্যবাদান্তেঃ Mashable

Loading...
sex không che
mms desi
wwwxxx