The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

redporn sex videos porn movies black cock girl in blue bikini blowjobs in pov and wanks off.

অ্যাজমা, ঋতুজনিত সর্দি, টনসিল, গরম বা ঠাণ্ডা জ্বর সারাতে তরমুজ খান

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ বাজারে তরমুজ পাওয়া যাচ্ছে। বাজারে গেলেই চোখে পড়বে বিশাল আকৃতির সব তরমুজ। তরমুজে রয়েছে বহুগুণ। যা মানব দেহের জন্য বড়ই উপকারী। তাহলে আসুন জেনে নেওয়া যাক এই তরমুজে কি কি পুষ্টিগুণ রয়েছে।


Watermelon-1

তরমুজে রয়েছে ৯৫-৯৬% পানি। যে কারণে অতিমাত্রায় ডায়রিয়া হলে কিংবা বমি হলে শরীর নেতিয়ে পড়ে। সেক্ষেত্রে তরমুজ বহু কাজ করবে। আবার যাঁরা অতিরিক্ত সময় রোদে থাকেন, তাঁদের জন্য এই তরমুজ একটি উপকারী ফল। তরমুজে থাকে নিম্ন মাত্রার ক্যালরি, রয়েছে অতি উচ্চমাত্রার পটাশিয়াম, যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে থাকে।

Watermelon-2

তরমুজ প্রচুর পরিমাণে রসাল ফল হওয়ায় কিডনির জন্যও খুব ভালো সুফল বয়ে আনে। গবেষকরা বলেছেন, তরমুজ রক্তে ইউরিক এসিডের পরিমাণ কমায়। যে কারণে কিডনিতে পাথর, ইনফেকশনসহ যাবতীয় অসুখগুলো তুলনামূলকভাবে কম হয়ে খাকে। কিডনি ভালোভাবে কাজ করার জন্য দেহের বর্জ্যগুলো সঠিকসময় বের হয়ে যায়। যে কারণে কিডনি ভালো থাকে।

Watermelon-3

তরমুজের বিচিতে থাকা citrullin এবং arginine লিভারে ইউরিয়ার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। যে কারণে প্রস্রাবের পরিমাণও বেড়ে যায়। প্রস্রাব সঠিকভাবে হওয়ার কারণে কিডনি ও প্রস্রাবের অন্যান্য সমস্যা দূর হয়ে যায়।

Watermelon-4

অনেকের প্রখর রোদে থাকার কারণে ডিহাইড্রেশন দেখা দেয়। তখন দেখা যায় প্রস্রাবের পরিমাণ কমে গেছে। আবার এক্ষেত্রে প্রস্রাবে জ্বালা-পোড়াও করতে পারে। যাদের এমন সমস্যা হয় তারা ৫ গ্রাম তরমুজের বীজের খোসা ছাড়িয়ে পানিসহ বেটে ২ কাপ পরিমাণ পানিতে মিশিয়ে শরবত বানিয়ে খেতে পারেন। এতে করে প্রস্রাবের পরিমাণও বেড়ে যাবে এবং প্রস্রাবের জ্বালা-পোড়া থাকবে না।

তরমুজে রয়েছে প্রচুর শর্করা ও প্রোটিন। এই শর্করা ও প্রোটিন শারীরিক পরিশ্রমজনিত সকল ক্লান্তি দূর করতে পারে। কোন শারীরিক অসুবিধা ছাড়াই অপুষ্টিতে যদি কেও ভোগেন তাহলে তরমুজ খেলে উপকার পাবেন।

তরমুজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন ‘সি’। যে কারণে অ্যাজমা বা হাঁপানি, ঋতুজনিত সর্দি, টনসিল, গরম বা ঠাণ্ডা জ্বর, নাক দিয়ে পানি পড়া, অসটিওআর্থ্রাইটিস অর্থাৎ শরীরের জয়েন্টে জয়েন্টে ব্যথা বা গরমজনিত ঘা, ফোড়া ইত্যাদি সমস্যা দূর করতে পারে তরমুজ।

আবার অনেকেই মনে করেন তরমুজ মিষ্টি বলে ডায়বেটিস রোগীরা খেতে পারবেন না, সেটি ঠিক নয়। তরমুজের পটাশিয়াম-ম্যাগনেশিয়াম রক্তের ইনসুলিনকে সুষ্ঠুভাবে কাজ করার শক্তি জুগিয়ে থাকে। তাই ডায়াবেটিসের রোগীরাও তরমুজ খেতে পারবেন। তবে অবশ্যই পরিমিত খাওয়া দরকার।

দেহে আয়রনের অভাব হলে পূর্ণ বয়স্ক মানুষ প্রতিদিন ২০০ গ্রাম পরিমাণ তরমুজ খেয়ে আয়রণের ঘাটতি পূরণ করতে পারেন। যেমন মহিলাদের আয়রণ সমস্যা বেশি হয় তারাও তরমুজ খেয়ে আইরণের ঘাটতি পূরণ করতে পারেন।

প্রতি ১০০ গ্রাম তরমুজের পুষ্টিগুণ:

  • # জলীয় অংশ ৯৫.৮ গ্রাম
  • # আয়রন ৭.৯ মি:গ্রাম
  • # মোট খনিজ পদার্থ ০.৩ গ্রাম
  • # কার্বোহাইড্রেট ৩.৩ গ্রাম
  • # প্রোটিন ০.২ গ্রাম
  • # ক্যালসিয়াম ১১ মি:গ্রাম
  • # খাদ্যশক্তি ১১ কিলো ক্যালরি
  • # ভিটামিন বি১-০.০২ মি:গ্রাম
  • # ভিটামিন বি২-০.০৪ মি:গ্রাম
  • # ভিটামিন সি-১ মি:গ্রাম
  • তরমুজ রসাল ফল হওয়ায় ত্বককে করে উজ্জ্বল ও মসৃণ। ত্বকে সঠিকভাবে রক্ত চলাচল বাড়িয়ে ত্বককে শক্তিশালী করে তুলতে পারে। আর তাই সৌন্দর্য চর্চায় মহিলারা তরমুজ ব্যবহার করতে পারেন।

    তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
    Loading...
    sex không che
    mms desi
    wwwxxx