অদ্ভুত গাছের প্রাণী কোয়ালা

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ বেঁচে থাকার জন্য কার না খাবারের প্রয়োজন! চার দিকে যখন শুধু খাবার আর খাবার তখন অনেকে ভাবতে পারে, এখন নয় একটু পরেই খাবো। এই খাবার খাওয়া নিয়ে স্ত্রী এবং পুরুষের জন্য সময়ের পার্থক্য লক্ষ করা যায়। পুরুষ বলে খাবার পর্বটা দিনেই সেরে রাখি, এদিকে স্ত্রী বলে, না দিনে একটু ঘুমিয়ে থাকি, খাবার খাবো রাতে। এমন একটি প্রাণীর নাম কোয়ালা। অস্ট্রেলিয়ার জঙ্গলে এদের পাওয়া যায় ।

পুরুষ কোয়ালা দিনের বেলা তাদের প্রয়োজনীয় খাবার খুঁজে খায়। তবে স্ত্রী কোয়ালা পুরুষের মতো দিনের বেলা খায় না। বরং সে সময়টা তারা ঘুমিয়ে কাটায়। আর রাত হলে তারা বের হয় খাবারের সন্ধানে। বাচ্চা হওয়ার পর মা তার বাচ্চাকে কোলোপিঠে করে বড় করে তোলে। প্রায় এক বছর সময় লাগে বাচ্চা বড় হতে। বড় বড় ইউকিপটাস গাছের পাতা খেয়ে এরা বাঁচে। প্রতিদিন গড়ে ১৮ ঘণ্টা ঘুমোয় কোয়ালা। প্রতিদিন এক কেজি করে পাতা খায়। মা খায় রাতে আর বাবা খায় দিনে। পুরুষ ২০ পাউন্ড ও স্ত্রী ১৪ পাউন্ড পর্যন্ত ওজনের হয়।

কোয়ালা শব্দের ইংরেজি অর্থ ‘ডাজ নট ড্রিঙ্ক’, বাংলা অর্থ করলে দাঁড়ায় পানি পান করে না। তাদের এমন নামের অর্থ হওয়ার কারণ, কোয়ালারা সব সময় পানি পান করে না। গাছের পাতা থেকেই এরা পানির প্রয়োজন মেটায়। কোয়ালাদের বসবাসের জন্য গভীর জঙ্গল দরকার। একটা কোয়ালার জন্য প্রায় ১০০ গাছ না হলে এরা স্বাচ্ছন্দ্যে বসবাস করতে পারে না। যে মা তার পেটের থলিতে বাচ্চা বহন করে তাদের বলে মারসুপিয়াল এবং বাচ্চাকে বলে জয়েস। কোয়ালা সেইজাতীয় প্রাণী। এরা সাঁতার কাটতে পারে। অদ্ভুত ঘ্রাণশক্তি আছে এদের। কোন গাছের পাতা বিষাক্ত, খেলে অসুবিধা হতে পারে তারা তা বুঝতে পারে নাক দিয়ে শুঁকে।

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...