The Dhaka Times
তরুণ প্রজন্মকে এগিয়ে রাখার প্রত্যয়ে, বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় সামাজিক ম্যাগাজিন।

রানা প্লাজা: ধ্বংসস্তূপ হতে হাড়গোড় উদ্ধার করা হয়েছে!

দি ঢাকা টাইমস্‌ ডেস্ক ॥ রানা প্লাজা ট্রাজেডির কথা এখনও মানুষ ভোলেনি। সেই রানা প্লাজার ধ্বংসস্তূপ হতে হাড়গোড় উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে হাড়গোড় পাওয়া যায়। উদ্ধারকৃত হাড়গোড়ের সঙ্গে একটি মানিব্যাগ এবং পরনের প্যান্টসহ এক ব্যক্তির পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে।

Savar ruins

রাজধানীর নিকটবর্তী সাভারে ধসে পড়া রানা প্লাজার ধ্বংসস্তূপ হতে গতকাল শনিবার বিকেলে হাড়গোড় পাওয়া যায়। উদ্ধারকৃত হাড়গোড়ের সঙ্গে একটি মানিব্যাগ এবং পরনের প্যান্টসহ এক ব্যক্তির পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে।

কয়েকজন পথশিশু (টোকাই) ধ্বংসস্তূপ হতে পরিত্যক্ত মালামাল কুড়াতে গিয়ে এসব উদ্ধার করেছে। খবর পেয়ে সাভার মডেল থানার পুলিশ উদ্ধার হওয়া হাড়গোড় জব্দ করে থানায় নিয়ে গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে কয়েকজন পথশিশু ধসে পড়া ভবনের পেছনে জড়ো করে রাখা ধ্বংসস্তূপে রড ও বিভিন্ন ধরনের পরিত্যক্ত মালামাল কুড়াতে গিয়েছিল। এ সময় তারা হাত-পা এবং মুখমণ্ডলের অংশবিশেষসহ শরীরের বিভিন্ন অংশের ১৫টি হাড় কুড়িয়ে পায়। বিষয়টি স্থানীয় লোকজনকে জানানোর পর তারা সাভার থানায় খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে হাড়গোড়সহ প্যান্ট এবং মানিব্যাগ জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে।

কয়েকজন পথশিশুর সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ধ্বংসস্তূপের নিচে আরও অনেক হাড়গোড় চাপা পড়ে আছে। পুলিশি ঝামেলার কারণে তারা ওইসব হাড়গোড় উদ্ধারে সাহস পায় না। তবে পুলিশ না থাকলে সুযোগ বুঝে তারা হাড়গোড় উদ্ধার করে লোকজনদের জানিয়ে গা ঢাকা দেয়।

রানা প্লাজার এক পোশাক কারখানায় কাজ করতেন এমন এক শ্রমিক মাজেদ মোল্লা সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, ‘উদ্ধার হওয়া হাড়গোড়ের সঙ্গে থাকা প্যান্টের পকেটে একটি জাতীয় পরিচয়পত্র পাওয়া গেছে। ওই পরিচয়পত্রটি মেহেরপুরের গাংনী উপজেলাস্থ জুয়েল নামে এক ব্যক্তির।

Savar ruins-2
রানা প্লাজা ভবন ধ্বসের পরে তোলা ছবি

মাজেদ মোল্রার স্ত্রী এরিনা বেগমও ধসে পড়া রানা প্লাজার একটি কারখানায় চাকরি করতেন। তার লাশ খুঁজে পাওয়া যায়নি। তার স্ত্রীর মতো এখনও অনেক শ্রমিক নিখোঁজ রয়েছেন। তাদের হাড়গোড় বা কঙ্কাল ওই ধ্বংসস্তূপের নিচে চাপা পড়ে আছে। সরকার উদ্যোগ নিলে অথবা স্বজনদের অনুমতি দিলে সব হাড়গোড়ই উদ্ধার করা সম্ভব বলে মনে করেন মাজেদ মোল্লা।

উল্লেখ্য, গত বছর ২০১৩ সালে ২৪ এপ্রিল সাভারে রানা প্লাজা ভবন ধসে ১ হাজার ১৩৪ জন শ্রমিক নিহত হন। আহত হন আরও কয়েক হাজার মানুষ। এখনও বহু মানুষ নিখোঁজ রয়েছে।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো
Loading...