এক তরুণী উত্ত্যক্তকারীকে উত্তম-মাধ্যম দিয়ে পুলিশ দিলেন!

দি ঢাকা টাইমস্ ডেস্ক ॥ প্রাদনিয়া মান্ধারি নামের মুম্বাইয়ের এক তরুণী উত্ত্যক্তকারীকে ধরে টেনে-হিঁচড়ে পুলিশ দিলেন! ভারতের এই ঘটনাটি ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে।

Teased and Women

প্রাদনিয়া মান্ধারি নামের মুম্বাইয়ের এক তরুণী উত্ত্যক্তকারীকে ধরে টেনে-হিঁচড়ে পুলিশ দিলেন! ভারতের এই ঘটনাটি ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে।

আমাদের দেশে প্রায়শই ঘটে থাকে নারীদের উত্যক্তের ঘটনা। কিন্তু কেও সাহস করে প্রতিবাদ করতে না পারায় ঘটনা একের পর এক ঘটতেই থাকে। আবার অনেক ক্ষেত্রে অভিযোগকারী নারীর দিকেই আঙুল ওঠে। নারীদের প্রতিবাদ বা মামলা না করার আরেকটি কারণ হলো দীর্ঘসূত্রতা। যে কারণে থানায়ও অভিযোগ করেন না অনেকেই।

কিন্তু প্রাদনিয়া মান্ধারি নামের মুম্বাইয়ের ওই তরুণী উত্ত্যক্তকারীকে চুলে ধরে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে থানায় সোপর্দ করে এক নজির স্থাপন করলেন। অনেকটা অবাক করা মতো ব্যাপার ঘটিয়ে প্রাদনিয়া একাই কাজটি করেছেন। ঘটনার সময় ৫০ জনেরও বেশি মানুষ তা চেয়ে চেয়ে শুধুই দেখেছেন।

এনডিটিভি খবরে বলা হয়, মুম্বাইয়ের একটি কলেজে সম্মান তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী প্রাদনিয়া মান্ধারি। গত বুধবার ক্লাস শেষে ট্রেনে বিরভলির নিজ বাড়িতে ফিরছিলেন প্রাদনিয়া মান্ধারি। কিন্তু সময় বাঁচাতে পথেই কানদিভলি নামের এক স্টেশনে ট্রেন বদলানোর জন্য নামেন তিনি।

প্রাদনিয়া বলেন, ‘আমি স্টেশনের প্ল্যাটফর্মে আরেকটি ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছিলাম। এমন সময় ওই মাতাল লোকটি আমার কাছে আসে ও আমাকে অভদ্রভাবে স্পর্শ করে। আমি তাঁকে এড়ানোর চেষ্টা করি। এক পর্যায়ে লোকটি আমাকে জাপটে ধরে ফেলে। এতে আমি হতভম্ব হয়ে পড়ি। এর পরই আমি তাঁকে ব্যাগ দিয়ে পেটাতে শুরু করি।’ ওই উত্ত্যক্তকারী যখন মান্ধারিকে আক্রমণ করে, তখন কেওই মান্ধারিকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেনি।

বরিভলি রেলওয়ে পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলেন, আমরা চাঁভান নামের ওই ব্যক্তিকে আটক করেছি। সে মাদকাসক্ত এবং ঘটনার সময়ও মাতাল ছিল। তাঁর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়েছে। তাঁকে আদালতে নেওয়া হবে।

প্রাদনিয়া মান্ধারি বলেন, ‘নারীদের এমন ঘটনায় প্রতিবাদী হওয়া উচিত এবং এ ধরনের লোকদের শিক্ষা দেওয়া উচিত। নারীরা কোনো পণ্য নয় যে, যখন যার ইচ্ছা স্পর্শ করবে।’

Advertisements
আপনি এটাও পছন্দ করতে পারেন
Loading...